কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের দুর্দিন


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, ৩:১৪ | অর্থ-বাণিজ্য 


দেশের অন্যতম নদী বন্দর ভৈরবে ধান-চালসহ বিভিন্ন আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের চলছে দুর্দিন। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ট্রাক্টর, টমটম, নসিমন-করিমনসহ সিএনজি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা। ফলে সড়ক পথে একদিকে যেমন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ ও বিশ্বরোডের সাথে যোগাযোগ বন্ধ। তেমনি নরসিংদী জেলার বেলাব ও রায়পুরাসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি উপজেলার সাথেও এসব যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এছাড়া সড়ক পথে বাজারে হাতে গুণা যেসব পণ্যবাহী ট্রাক, পিকআপ ও অটোরিকশা শহরে প্রবেশ করে এসব গাড়ি থেকে ৩ দফায় টোল আদায় করা হয়। মালামাল লোড শেষে ফেরার পথে একই চিত্র। শুধু তাই নয়, বন্দরের অন্যতম পথ নৌ-পথের নৌযানে বাজারের মালামাল লোড-আনলোডে চড়া টোল দিতে হয়।

আর নৌ-ঘাটে এসব টোল দিতে সামান্য দেরি করলেই টোল আদায়কারীদের হাতে লাঞ্ছিত হতে হয় সাধারণ মানুষদের। ফলে অতিরিক্ত টোলের নামে দিনে-দুপুরে চাদাঁবাজির কারণে ভৈরব থেকে দিন দিন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে আশপাশের জেলা-উপজেলার পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীসহ সাধারণ ক্রেতারা।

এছাড়া হাওরসহ ভাটি অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হওয়ার কারণে গড়ে ওঠেছে নতুন নতুন হাট-বাজার। ফলে এসব হাট-বাজার থেকে কম খরচে ও অল্প সময়ে মালামাল নিতে ও কিনতে পারায় ভৈরবে আসছে না পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা। এতে করে বিপাকে পড়েছেন ভৈরব বাজারের রড, সিমেন্ট, টিন, স্টীল, কৃষিজাত পণ্যসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও আড়তদাররা।

একই দশা কাপড় ও নিত্যপণ্যসহ নির্মাণ সামগ্রী ব্যবসায়ীদের। ফলে ব্যবসায় আয় তো দূরের কথা, ব্যবসা নিয়ে টিকে থাকতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। অথচ এই ভৈরবের ব্যবসায়ীরা বছরের পর বছর ধরে জেলার মোট রাজস্ব আয়ের একটি বড় অংশ দিয়ে সরকারের অর্থনীতিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে।

জানা গেছে, ব্যবসা-বাণিজ্যের শহর হিসেবে বন্দরনগরী ভৈরবে ৩৫টির মতো বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখায় দৈনিক ১শ’ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হতো। কিন্তু নানা প্রতিবন্ধকতাসহ অতিরিক্ত টোলের কারণে দিন দিন আশপাশের জেলা-উপজেলার পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীসহ সাধারণ ক্রেতারা মুখ ফিরিয়ে নেয়ায় লেনদেন কমে গেছে বহুগুণে।

এছাড়া ভৈরব বাজারে খেটে খাওয়া মানুষ হিসেবে প্রায় ১০ হাজারের বেশি শ্রমিক সড়ক ও নৌ পথের মালামাল লোড-আনলোডের সাথে জড়িত থেকে তাদের জীবিকা নির্বাহ করতো। কিন্তু পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীসহ সাধারণ ক্রেতারা মুখ ফিরিয়ে নেয়ায় ব্যবসায়ীদের সাথে তাদেরও কপাল পুড়েছে। ফলে শ্রমিকদের সংখ্যা এখন অর্ধেকের চেয়ে বেশি কমে গেছে।

বাজারে সব মিলিয়ে মাত্র ২ হাজারের মতো শ্রমিক কাজ করে বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা। এছাড়াও যেসব লোকজন ভৈরবে আসে তাদের মনে থাকে ছিনতাই আতঙ্ক। ফলে বিপাকে পড়েছে ব্যবসায়ীরা।

কথা হয় ভৈরব বাজারের গ্রোসারী সামগ্রী ব্যবসায়ী হাজী মো. আব্দুল্লাহ মিয়ার সাথে। তিনি জানান, এক সময় দৈনিক পাইকারী হিসেবে ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা আর খুচরা ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত বেচাকেনা করতে পারতেন। কিন্তু বর্তমানে পাইকারী ২ লাখ টাকা আর খুচরা ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা বেচাকেনা করা যায় না। তার মতে, বেচাকেনা কমার কারণ নানা প্রতিবন্ধকতা ও বাজারে গাড়ি ঢুকতে ৩ দফায় টোল আদায়।

রাণী বাজারের স্টীল ব্যবসায়ী হাজী মোতালেব মিয়া জানান, ১০ বছর আগে প্রতি মাসে তিনি ৩০ লাখ টাকা বেচাকেনা করতে পারতেন। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ ও বিশ্বরোড, নরসিংদীর বেলাব ও রায়পুরার সাথে যোগাযোগ বন্ধসহ সড়কে এবং নৌ-ঘাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের কারণে মাসে ৩ লাখ টাকাও বেচাকেনা করতে পারেন না।

তিনি আরও বলেন, টোল আদায়কারী লোকজনের দুর্ব্যবহারের কারণেও লোকজন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন।

বিশিষ্ট টিন ব্যবসায়ী কাজল চন্দ্র ঘোষের দাবী, সড়ক পথে পরিবহণের তুলনায় নৌ-পথে মালামাল পরিবহণের খরচ কম। কিন্তু নৌ-ঘাটে প্রতি বান টিনে ৩০ টাকা ইজারা নেয়। একজন মধ্যবিত্ত লোক বাড়ি করার জন্য ২৫ থেকে ৩০ বান টিন নৌ-পথে নিতে চাইলে নৌ-ঘাটে ১ হাজার টাকা ইজারা দাবী করেন তারা। অথচ নৌকা ভাড়াও এত টাকা না।

এই ব্যবসায়ীর মতে, ব্যবসা-বাণিজ্যে সবচেয়েও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির কারণ নৌ-ঘাটে টোল আদায়কারী লোকজনের বেপরোয়া আচরণ।

এতে সহমত পোষণ করে বিশিষ্ট সিমেন্ট ব্যবসায়ী হাজী মো. ফুল মিয়া বলেন, তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগে চেয়েও এখন বেচাকেনা অর্ধেকে নেমে এসেছে। দুর্বস্থা চলছে বাজারের ব্যবসা-বাণিজ্যে।

আর চালের আড়ৎদার বিশিষ্ট চাল ব্যবসায়ী আলী আকবর খন্দকার জানান, নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে ভৈরবে চালের আড়তদারদের দুর্দিন চলছে। আর দেশের সর্ববৃহৎ চালের আড়ৎ কুষ্টিয়ার পরে নদীর ওপার আশুগঞ্জে চালের আড়তদাররা সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছেন।

তাছাড়া ধানের আড়তদার আলী হোসেন মিয়ার ছেলে আবু বকর ছিদ্দিক বলেন, মোকাম থেকে ধান নিয়ে আসা পাইকার ও খুচরা ব্যবাসায়ীরা নৌ-ঘাটে টোল আদায়কারী লোকজনের হাতে নাজেহাল হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। আর নিরাপদ ও স্বাচ্ছ্যন্ধবোধ করায় তারা আশুগঞ্জে চলে যাচ্ছে। ফলে আশুগঞ্জে গড়ে ওঠেছে দেশের বৃহৎতম ধানের আড়ৎ।

ব্যবসায়ীদের দাবী, টোল আদায়কারী ইজারাদারদের সাথে স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের লোকজন জড়িত থাকার কারণে সব চেয়েও বেশি বিপাকে পড়েছেন তারা। টোলের নামে দিনে-দুপুরে এই চাদাঁবাজি বন্ধ না হলে পাইকারী ও খুচরা ব্যবসায়ীসহ সাধারণ ক্রেতার অভাবে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে ব্যবসা-বাণিজ্যে।

সেই সাথে হারাবে বিট্রিশ আমলে গড়ে ওঠা বন্দরনগরী ভৈরবের ব্যবসা-বাণিজ্যের ইতিহাস ও এতিহ্য। তাই পৌরসভার আয়ের নামে সড়ক ও নৌ-ঘাট কিংবা লঞ্চঘাট ইজারা দেয়া বন্ধ করতে হবে। লাগাম টেনে ধরতে হবে প্রভাবশালী মহলের ‘সিন্ডিকেট’ ইজারাদারদের। নতুবা ৫ বছর পরে ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে ব্যবসায়ীদের পথে বসতে হবে।

এ ব্যাপারের ভৈরবের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও ভৈরব চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি সাবেক সভাপতি আব্দুল্লাহ আর মামুন বলেন, ব্যবসায়ীদের স্বার্থে অবশ্যই টোল আদায় বন্ধ করতে হবে। আর সড়ক ও নৌ-পথের বিভিন্ন যানে মালামাল লোড-আনলোডে এসব টোল বন্ধ না হলে ভৈরবের ব্যবসা-বাণিজ্য বিলীন হয়ে যাবে।

এক কথায় বলতে গেলে, দেশের দ্বিতীয় নদী বন্দর ভৈরব তার ঐতিহ্য ও গৌরব দুটুই হারাবে। এতে সহমত পোষণ করে শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কয়েকজন জানান, যেসব হাট-বাজারে টোল বা জমা লাগে না, সেসব হাট-বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতারা বেশি ভিড় করে। আর ভৈরবে টোল আদায়ের সময় অনেকে দুর্ব্যবহারসহ নাজেলহালের শিকার হয়। ফলে আশপাশের হাট-বাজারে পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা চলে যাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ভৈরব চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি সভাপতি আলহাজ্ব মো. হুমায়ূন কবির জানান, টোল আদায়ের কারণে ব্যবসা-বাণিজ্যে বড় ধরণের কোন নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি। তবে সাধারণ ক্রেতারা কখনও কখনও টোল নিয়ে অভিযোগ করে। এতে ব্যবসায়ীদের কোন সমস্যা হয় না।

আর বাজারে ব্যবসায়ীদের বেচাকেনা কমার পেছনে একমাত্র কারণ ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ ও বিশ্বরোড, নরসিংদীর বেলাব ও রায়পুরার এলাকায় টমটম, নসিমন ও করিমনসহ সিএনজি চলাচল বন্ধ। ফলে এসব এলাকার ব্যবসায়ীরা সহজে মালামাল নিতে পারছে না।

এছাড়া যেসব হাওর বা ভাটি অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা ভৈরব মোকাম থেকে মালামাল নিতো। সারা দেশের মতো সেসব এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হওয়ার কারণে তারা অন্যান্য মোকাম থেকে কম খরচে মালামাল নিতে পারে। ফলে দিন দিন কমছে ভৈরবের ব্যবসা-বাণিজ্য।

তাছাড়া বিভিন্ন কারণে ভৈরবের তুলনায় আশুগঞ্জে ধান ও চালের আড়তদার বা ব্যবসায়ীরা সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে। ফলে ভৈরব বাজারের ধান-চালের আড়তদারদের ব্যবসা-বাণিজ্য খারাপ যাচ্ছে বা দুর্দিন চলছে।

ব্যবসায়ী সংগঠনের এই নেতা মনে করেন, ব্যবসা-বাণিজ্য ভালো হলে টোল আদায় নিয়ে কেউ আপত্তি করে না। তাই রেল লাইনের পাশ দিয়ে রায়পুরা থেকে ভৈরব পর্যন্ত বিকল্প সড়ক খুবই প্রয়োজন।

এক কথা ভৈরবের ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বার্থে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে উন্মুক্ত বিভিন্ন যান চলাচল এবং রামনগর ও ইব্রাহিমপুরের দিক দিয়ে আরও দু’টি সেতু নির্মাণসহ আঞ্চলিক সড়কের একান্ত দরকার।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর