কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রেমিকাকে বিয়ে করতে চাওয়ায় ফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার, ১২:২৬ | ভৈরব 


কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ৩ মাস পর জামাল হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। পরকিয়ায় আসক্ত নিহত জামাল প্রেমিকাকে বিয়ে করতে চাওয়ায় তাকে ফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়।

পরে নিহতের মরদেহ একটি নির্জন বাগানে ফেলে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। একই সঙ্গে জামালের পুরুষালঙ্গ কেটে নিয়ে যায় তারা।

নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত প্রেমিকা আয়েশা বেগম আশা ও হত্যকাণ্ডের মূলহোতা টিটু চন্দ্র বিশ্বাস ওরফে পবন এবং তার সহযোগী মুক্তার হোসেন ও বাবুল মিয়াসহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নিহত জামালের ব্যবহৃত মুঠোফোনের সূত্র ধরে প্রকৃত অপরাধীদের ধরতে সক্ষম হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শাহীন।

সোমবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক আশিকুর রহমানের কাছে প্রেমিকা আয়েশা বেগম আশা ও হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা টিটু চন্দ্র বিশ্বাস ওরফে পবন ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানান তিনি।

এছাড়াও মুক্তার হোসেন ও বাবুল মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, আয়েশা বেগম আশা পৌর শহরের ভৈরবপুর উত্তরপাড়ার বাসিন্দা। আশার বাবার নাম মো. বাচ্চু মিয়া। আর একই মহল্লার ভাড়াটিয়া মোহন বিশ্বাসের ছেলে টিটু চন্দ্র বিশ্বাস। ফলে দু’জনের মধ্যে অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠেছিলো।

তাছাড়া অন্যরা হলো, পৌর শহরের লক্ষ্মীপুর এলাকার মোস্তফা মিয়ার ছেলে মুক্তার হোসেন এবং একই এলাকার বাসিন্দা তারা মিয়ার ছেলে বাবুল মিয়া।

আদালতের জবানবন্দিতে আয়েশা বেগম আশা জানায়, মাদকাসক্ত টিটু চন্দ্র বিশ্বাস ওরফে পবনের সঙ্গে তার দুই বছর যাবত প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ফলে তারা প্রায়ই শারীরিক মেলামেশা করত।

আর টিটু চন্দ্রের মাধ্যমে মুক্তার ও বাবুলের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে এ দু’জনের সঙ্গেও সে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে।

কিন্তু টিটু চন্দ্রের তার উপার্জনের টাকা জোর করে ছিনিয়ে নিতো। এরই মধ্যে অন্য একজনের মাধ্যমে নিহত জামালের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরে জামাল তাকে বিয়ে করার ইচ্ছা প্রকাশ করে। ফলে তার সঙ্গেও শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলে। কিন্তু জামালের সঙ্গে মেলামেশা করা টিটু পছন্দ করত না।

ঘটনার দিন রাতে টিটুর কথা মতো সে জামালকে শহরের স্টেডিয়ামের কাছে মোবাইলে ডেকে আনে। এসময় মুক্তার ও বাবুল টিটুর সঙ্গে ছিল। জামাল ঘটনাস্থলে আসার পর তাকে (আয়েশা) বাসায় চলে যেতে বলে টিটু।

টিটু চন্দ্র বিশ্বাস ওরফে পবন তার জবানবন্দিতে বলেন, আমি আয়েশাকে ভালোবাসতাম। কিন্তু জামাল আয়েশাকে বিয়ে করতে চায়। এ কারণে আমার প্রেমের সম্পর্ক শেষ হয়ে যাচ্ছিল।

তাই আয়েশাকে দিয়ে জামালকে ঘটনার দিন রাতে ফোনে ডেকে নিয়ে আসি। পরে আয়েশাকে বিদায় দিয়ে তিনজনে মিলে তাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করি।

আর মুক্তার জামালের পুরুষাঙ্গ কেটে আলাদা করে। আমি ও বাবুল মিলে তাকে একাধিক ছুরিকাঘাত করলে সে ঘটনাস্থল আলুকান্দা এলাকায় মারা যায়।

পরে তার লাশ নির্জন বাগানে রেখে আমরা পালিয়ে যায়। জামাল আমাদের পথের কাঁটা হয়ে গিয়েছিল, তাই রাতের আঁধারে জামালকে দুনিয়া থেকে বিদায় করে দিয়েছিলাম।

তাকে হত্যার পরে ঘটনাটি আয়েশাকে জানায় এবং জামালের কাটা পুরুষাঙ্গটি তাকে দেখায়।

জানা গেছে, গেল বছরের ৯ নভেম্বর রাত ৮টার দিকে ভৈরব উপজেলার বাউসমারা গ্রামের দিন মজুর জামাল মিয়া বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। এদিন নিহত জামাল তার স্ত্রীকে গানের আসরে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে আর বাসায় ফেরেনি।

পরদিন পরিবারের সদস্যরা শহরের আলুকান্দার একটি নির্জন বাগানে নিহত জামালের মরদেহ সনাক্ত করে। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ মর্গে পাঠায়।

পরে তার স্ত্রী বিলকিছ বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার একমাস পর জামালের চাচাত ভাই ফরহাদকে সন্দেহজনক আসামি হিসেবে পুলিশ গ্রেফতার করে। কারণ ঘটনার দিন ফরহাদ তাকে মোটর সাইকেলে করে শহরে পৌঁছে দিয়েছিল। বর্তমানে ফরহাদ কারাগারে রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার জানান, তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে ৩ মাস পরে হলেও জামাল হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করতে সম হয়েছি। একই সঙ্গে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত মূল অপরাধীদেরও ধরতে সক্ষম হয়েছি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর