কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে ঝরে পড়া রোধ


 মোহাম্মদ আবুল বাশার মৃধা | ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৬:৫১ | মত-দ্বিমত 


সবার জন্য মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার একটি  বড় প্রতিবন্ধকতা হলো ঝরে পড়া। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তিকৃত শিশুদের ৫ বছর মেয়াদী প্রাথমিক শিক্ষাচক্র শেষ হওয়ার পূর্বে মধ্যবর্তী যে কোন সময়ে যে কোনো শ্রেণি থেকে যদি বিদ্যালয় ত্যাগ করে লেখাপড়া বন্ধ করে দেয় তখন তাকে আমরা ঝরে পড়া বলি।

সাধারণত দারিদ্রতা, বাল্যবিবাহ, শিশুশ্রম, অভিভাবকের অসচেতনতা, পিতা-মাতার কলহ বিচ্ছেদ, শিশুর যত্নের ঘাটতি, মেয়ে শিশুকে শিক্ষা না দেয়ার প্রবণতা, অসুস্থতা, ভাষার সমস্যা, অপর্যাপ্ত শৌচাগার, বিদ্যালয় ও শ্রেণিকক্ষের পরিবেশ, দুর্বল শিক্ষক ও শিক্ষাব্যবস্থা, শিক্ষাক্রমের অসংগতি, বিদ্যালয়ের ভৌত সুবিধাদি তথা খেলার মাঠের অভাব, পরীক্ষার ভীতি, যাতায়াত ব্যবস্থা, নিষ্ক্রিয় এসএমসি, শিক্ষক অভিভাবক সম্পর্ক ইত্যাদি কারণে শিশুরা শিক্ষার সোপান হতে ঝরে পড়ছে।

ঝরে পড়া রোধের জন্য বিদ্যালয়ে স্থানীয় জনগণের সম্পৃক্ততা অতীব জরুরী। শিশু জরিপ, শতভাগ ভর্তি, ছাত্র ও শিক্ষকের নিয়মিত উপস্থিতি, বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিভিন্ন জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক দিবস পালন করা, মা সমাবেশ ও অভিভাবক সমাবেশ ইত্যাদি কর্মকাণ্ড বিষয়ে স্থানীয় জনগণকে সম্পৃক্ত করা গেলে সামাজিক সচেতনতা যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি ঝরে পড়া রোধেও উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসবে।

ঝরে পড়া রোধে বিদ্যালয়ে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন সম্পূর্ন বন্ধ করতে হবে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে জরিপ করে দরিদ্র শিশুদের চিহ্নিত করে শিক্ষা উপকরণ, স্কুল ড্রেস ইত্যাদির ব্যবস্থা করা গেলে ঝরে পড়া রোধে ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে।

বিদ্যালয়ে নিয়মিত সহপাঠক্রমিক কার্যক্রম ব্যবস্থা করা, বিদ্যালয়ের যাতায়াত ব্যবস্থা নিরাপদ রাখা, বাল্যবিবাহ বন্ধ করা, গরিব মেধাবী শিক্ষার্থীর জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা করা, মিড-ডে মিল বাস্তবায়ন করা, ছাত্রছাত্রীদের জন্য নিরাপদ স্যানিটেশনের ব্যবস্থা করা, মেয়েদের জন্য পৃথক টয়লেটের ব্যবস্থা করা, প্রতিবন্ধী শিশুদের প্রতি বিশেষ যত্ন নেয়া।

বিদ্যালয়ের আনন্দঘন কার্যক্রম দিয়েই শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ের প্রতি আকৃষ্ট করতে হবে। এই ক্ষেত্রে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে শ্রেণিপাঠদান একটি বড় ভূমিকা রাখতে পারে। প্রতিটি শ্রেণিতে মাল্টিমিডিয়া পাঠদানের ব্যবস্থা করা গেলে শিক্ষার্থীরা যেমন পাঠ লাভে আনন্দ পাবে তেমনি হয়ে উঠবে কর্ম”ঞ্চল ও বিদ্যালয়মুখী।

আজকের শিশুই আগামী দিনে এই দেশকে নেতৃত্ব দিবে। কোনো শিক্ষার্থী প্রাথমিক স্তরেই যদি ঝরে পড়ে তবে এ পরিস্থিতির খেসারত দিতে হবে পুরো জাতিকেই; যা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়। তাই ‘আমাদের বিদ্যালয় আমরাই গড়ব’ এই মন্ত্রে উদ্বুদ্ধ হয়ে বিদ্যালয়ের একজন অংশীজন হিসেবে সমাজের সকল স্তরের মানুষকে বিদ্যালয়ের কাজে সম্পৃক্ত করতে হবে।

রাষ্ট্রের সামগ্রিক উন্নয়ন তথা ব্যক্তি, সমাজ, জাতির উন্নয়নের জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন প্রাথমিক শিক্ষার পরিমাণগত ও গুণগুত মান উন্নয়ন। তাই ঝরে পড়া রোধে রাষ্ট্রের সকল শক্তি ও সামর্থ্য কাজে  লাগাতে হবে।

লেখক: মোহাম্মদ আবুল বাশার মৃধা, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার, কিশোরগঞ্জ সদর।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর