কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


৪৯ দিন পর দেশে এলো সৌদিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত পলাশের মরদেহ


 সংবাদদাতা | ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, ৫:২১ | প্রবাস 


গত ১৭ ডিসেম্বর সৌদিআরবের রাজধানী রিয়াদের হারার শহরে নিজ দেশের দুর্বৃত্তদের হামলার শিকার হয়ে গুরুতর আহত হন সফল রেমিট্যান্স যোদ্ধা মো. আমিন উদ্দিন ওরফে পলাশ মোল্লা। তিন দিন মৃত্যুর সাথে লড়ে ২০ ডিসেম্বর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

নিহত মো. আমিন উদ্দিন ওরফে পলাশ মোল্লা সৌদিআরবের রাজধানী রিয়াদে প্রতিষ্ঠিত একজন ঠিকাদারী ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার তুলাতুলি গ্রামের মৃত সরদার আজিম উদ্দিন মোল্লার ছেলে।

নিহত হওয়ার ৪৯ দিন পর বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে তার মরদেহ বাংলাদেশ বিমানের বোয়িং ৭০৭ ফ্লাইটে দেশে আসে।

পরে শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিকালে মেঘনা নদীর পাড়ে তুলাতুলি গ্রামে কয়েক সহস্রাধিক মানুষের অংশগ্রহণে নামাজে জানাজা শেষে পিতার কবরের পাশে দাফন করা হয়।

এর আগে নিহত পলাশের লাশ বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১টার দিকে গ্রামের বাড়ি পৌঁছলে মাতম পড়ে যায় গ্রামজুড়ে। সন্তানহারা মায়ের আহাজারি, ভাই-বোনের কান্না এবং গ্রামবাসীর চাপা কান্নায় সেখানে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়।

মো. আমিন উদ্দিন ওরফে পলাশ মোল্লা অর্থের অভাবে স্কুলের গণ্ডি পেরোতে পারেননি। তিনি পরিবারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে ২০ বছর বয়সে কর্মজীবন শুরু করেন।

অত্যন্ত মেধা ও বিচক্ষণতার মাধ্যমে প্রথমে নিজ চেষ্টায় ভৈরব কমলপুর নিউটাউনে বসবাস শুরু করে ‘সর্দার ইন্টারনেট সার্ভিস’ নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। কিছুদিন পর ‘সরদার কম্পিউটার সার্ভিস’ নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। এতে কিছুটা স্বচ্ছলতার মুখ দেখেন তিনি।

চার সন্তানের জনক মো. আমিন উদ্দিন ওরফে পলাশ মোল্লা বিয়ে করেছেন ভৈরবের ভৈরবপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের ভৈরব বেপারি বাড়ীর মৃত নুরুন্নবী মিয়ার দ্বিতীয় কন্যা বিথী কে।

প্রায় ১৫ বছর আগে তিনি পাড়ি জমান মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদিআরবে। বসবাস করতেন সৌদিআরবের রাজধানী রিয়াদের হারার এলাকায়।  সেখানে স্ত্রী বিথী ও দুই কন্যা ফাতেমা ( ৬) ও আমেনা (৩)কে নিয়ে বসবাস করতেন তিনি। দুই পুত্র আবিদ (১৪) ও অভি( ৭) দেশে থেকে দাদীর কাছে থেকে লেখাপড়া করছেন।

গ্রামের লোকজন জানান, নিজে প্রতিষ্ঠিত হয়েও থেমে থাকেননি মো. আমিন উদ্দিন ওরফে পলাশ মোল্লা। নিজের চেষ্টায় পরিবারের বড়ভাই শামীম, অনেক নিকটাত্মীয়সহ গ্রামের অনেককে প্রবাসে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে তিনি সহযোগিতা করেছেন।

নিহত পলাশের মরদেহের সাথে একই ফ্লাইটে আসা বড়ভাই শামীম জানান, গত ১৭ ডিসেম্বর বিকালে রিয়াদের হারার এলাকা থেকে নরসিংদীরই এক সহকর্মীর ফোন পেয়ে দ্রত হামলার ঘটনারস্থলে হারারে পৌছে গিয়ে তিনি দেখেন যে, রাস্তার পাশে রক্তাক্ত শরীরে পড়ে আছে ছোট ভাই পলাশ।

প্রথমে দ্রুত তাকে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য রিয়াদের বাদশা কিং ফাহাদ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়। পরে ২০ ডিসেম্বর সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় পলাশ মারা যায়।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে শামীম জানান, মস্তিষ্কে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়। তার পিঠ, কাধ, মাথা সহ মুখের ডান পাশে উপর্যুপরি চাপাতির আঘাতের ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়।

এ ঘটনায় ২২শে ডিসেম্বর সৌদি পুলিশের পক্ষ থেকে একটি এবং ২৩শে ডিসেম্বর পরিবারের পক্ষে বড়ভাই হিসেবে শামীম বাদী হয়ে আরো একটি মামলা রিয়াদের একটি থানায় দায়ের করা হয়।

এরই মধ্য রিয়াদের পুলিশ হত্যাকারীদেরকে চিহ্নিত করে এবং হত্যা সাথে সম্পৃক্ততা পাওয়ায় চার যুবককে আটক করে কারাগারে পাঠিয়েছে। তাদের সবারই বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন এলাকায়।

শামীম আরো জানান, দীর্ঘ আইনি জটিলতার কারণে সৌদিআরবে বসবাসকারী প্রবাসীদের জন্য নির্দিষ্ট আইন অনুযায়ী নিহত পলাশের লাশ দেশে আসতে ৫০ দিনের মত সময় লেগে যায়।

বড় ভাই শামীমের একটাই দাবি, ছোট ভাই পলাশকে যারা নির্মম ভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে তাদের যেন সঠিক বিচার হয়।

এদিকে নিহত পলাশের নামাজে জানাজায় কয়েক সহস্রাধিক মানুষ অংশ নেন। এলাকাবাসী বলছেন, পলাশ জনপ্রতিনিধি না হয়েও এলাকার মানুষের উন্নয়নের জন্য তার প্রবাস জীবনের কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় করতেন।

রায়পুরার তুলাতুলি গ্রামের শিশুদের পড়াশোনার জন্য জায়গা কিনে তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। এক সময় এই গ্রামের শিশুরা দুই কিলোমিটার পায়ে হেঁটে স্কুলে যেত। পলাশ দরিদ্র পরিবারের ছেলেমেয়ের বই খাতা কিনে দিতেন। এছাড়া পরীক্ষার ফিস, স্কুলের বেতন দিয়ে সহায়তা করতেন। স্বপ্ন দেখতেন গ্রামের কোন ছেলেমেয়েরা যাতে অশিক্ষিত না থাকে।

বন্যার পানিতে রাস্তা ডুবে থাকতো। নিজ নিজ খরচে রাস্তা বানিয়ে দেন। এছাড়াও এলাকার অসহায় মানুষের বসতবাড়ি বানাতে আর্থিক সহযোগিতা করতেন। মানুষের যে কোন সামাজিক প্রয়োজনে প্রবাসে থেকে সহযোগিতা করতেন।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ হোসেন ভূঁইয়া জানান, যারা প্রবাসের মাটিতে পলাশকে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে, তাদের যেন দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি হয়। পাশাপাশি বাংলাদেশের সরকার যেন সৌদি সরকারকে পালাশ হত্যাকারীদের বিচার কাজে সহায়তা প্রদান করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর