কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিকলীতে গরুর বাজার মন্দা, হতাশ কৃষক-ইজারাদার


 সংবাদদাতা | ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার, ৮:৪২ | নিকলী  


কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার জারইতলা ইউনিয়নের সাজনপুর গরুর হাট উপজেলার একটি অন্যতম গরুর হাট। বিভিন্ন এলাকার সাধারণ কৃষক ও খামারি এই হাটে বিক্রির জন্য গরু নিয়ে আসেন।

কিন্তু গত প্রায় ১১ মাস ধরে হাটটিতে মন্দা যাচ্ছে। ফলে কৃষক ও খামারিদের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে।

এদিতে ইজারাদাররা গত বছর উচ্চ মূল্যে হাটটি ইজারা নিয়েছিলেন। গরুর বাজার মন্দা হওয়ায় তাদেরও লোকসান গুণতে হচ্ছে।

হাটটিতে গরু নিয়ে আসা বিক্রেতারা বলছেন, কৃষকেরা বোরো ধান উৎপাদন করে ন্যায্য মূল্য পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এখন কৃষকরা গরুরও দাম পাচ্ছেন না। অথচ গরু লালন-পালন করতে গিয়ে তাদের অনেক খরচ হচ্ছে।

সরেজমিন হাট ঘুরে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গরুর খড়ের দামসহ সবকিছুরই দাম আগের থেকে অনেক বেড়েছে। এই দুর্মূল্যের বাজারে একটি গরু মোটাতাজা করতে গিয়ে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা খরচ হয়ে যায়।

অথচ সেই গরু হাটে নিয়ে আসার পর ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা দাম পাওয়া যায়। ফলে কৃষককে গরু বিক্রি না করেই বাড়ি ফিরতে হয়।

এ রকম পরিস্থিতিতে বিপাকে পড়েছেন ইজারাদাররাও। সাজনপুর বাজারের এই মন্দার কারণে ৪০/৪২ জন কর্মচারীর বেতন চালাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে। প্রতি হাটে ইজারাদারদের ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা লোকসান গুণতে হচ্ছে।

সাজনপুর বাজারের ইজারাদার মো. আলম মিয়া, মো. শাহীন মিয়া, সভাপতি মরছব আলী সাংবাদিকদের জানান, বর্তমানে সবকিছুর দাম বেড়েছে কিন্তু গরুর দাম না বাড়ার কারণে তাদেরকে বছরের প্রথম থেকে লোকসান গুণতে গিয়ে সর্বশান্ত হতে হচ্ছে।

তারা বলেন, হাটে যদি এ রকম মন্দাভাব চলতে থাকে তাহলে হয়তো একদিন সাজনপুর গরুর বাজারটি হারিয়ে যাবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর