কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কেন্দুয়ায় ছাত্রী ধর্ষণে অভিযুক্ত মাদ্রাসা অধ্যক্ষ ভৈরব থেকে গ্রেপ্তার


 নেত্রকোনা সংবাদদাতা | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৮:১৩ | ময়মনসিংহ-নেত্রকোনা 


নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় ছাত্রীকে ধর্ষণ ও জোরপূর্বক গর্ভপাত করানোর ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার পলাতক আসামি আশরাফুল উলুম জান্নাতুল মাওয়া মাহিলা মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ আব্দুল হালিম সাগর (৩৫) কে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব থেকে গ্রেপ্তার করেছে কেন্দুয়া থানা পুলিশ।

বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) ভৈরবে এক বন্ধুর বাড়িতে আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় গ্রেপ্তার করে রাতে কেন্দুয়া থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া আব্দুল হালিম সাগর কেন্দুয়া উপজেলার রোয়াইলবাড়ি ইউনিয়নের চর আমতলা গ্রামের কোনাপাড়ার ফারুক মিয়ার ছেলে।

কেন্দুয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হাবিবুল্লা খান জানান, আব্দুল হালিম সাগর প্রায় ৮ বছর পূর্বে রোয়াইলবাড়ী বাজারের পাশে আশরাফুল উলুম জান্নাতুল মাওয়া মাহিলা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতা করে অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করে আসছিল।

দুই সন্তানের জনক আব্দুল হালিম সাগর সাড়ে চার মাস পূর্বে ৫ম শ্রেণির এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি কাউকে বললে শিশুটিকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দেয় সে।

ভয়ে ওই শিশু শিক্ষার্থী কাউকে কিছু বলেনি। কিন্তু ঘটনার দুই মাস পর ছাত্রীটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে সুচতুর অধ্যক্ষ গত ১৮ জানুয়ারি শিক্ষার্থীকে কবিরাজী ঔষধ কলা খাইয়ে তার গর্ভপাত ঘটায়।

এরপর থেকে ছাত্রীটির অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ শুরু হলে পরিবারের সদস্যরা ১৯ জানুয়ারি রাতে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করান।

ডাক্তাররা শিশুটির প্রাথমিক পরীক্ষা করার পর গর্ভপাতের বিষয়টি জানাজানি হলে ভিকটিমের বাবা এ ব্যাপারে মাদ্রাসার অধ্যক্ষকে আসামি করে কেন্দুয়া থানায় মামলা দায়ের করেন।

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত অধ্যক্ষ আব্দুল হালিম সাগর পলাতক ছিল। পুলিশ আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে পলাতক আব্দুল হালিম সাগরের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরবে অভিযান পরিচালনা করে।

সেখানে তার এক বন্ধুর বাড়ি  থেকে আব্দুল হালিম সাগরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ রাতে কেন্দুয়া থানায় নিয়ে যায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর