www.kishoreganjnews.com

ধুবাজোড়া গণহত্যায় এক পরিবারের ১৯ জন শহীদ হন



[ স্টাফ রিপোর্টার | ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, শুক্রবার, ৩:৪৮ | মুক্তিযুদ্ধ ]


আজ ১লা সেপ্টেম্বর ভয়াবহ ধুবজোড়া গণহত্যা দিবস। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে এই দিনে মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের ধুবজোড়া গ্রামে স্থানীয় রাজাকার-আলবদরদের সহায়তায় পাক সেনারা নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালায়। এক পরিবারের ১৯ জনকে হত্যা করা হয়। এর আগে ওই পরিবারের আরো দু’জন স্বজনকে হত্যা করা হয়। তবে ২১ জন শহীদের একজনেরও লাশ পায়নি তাদের পরিবার। সেই শহীদদের স্মরণে নির্মিত হয়নি কোন স্মৃতিসৌধও।

সেদিনের শহীদের সন্তান মিঠামইন উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবা রহমান জানান, মুক্তিযুদ্ধের সময় তার বয়স ছিল ৮ বছর। মুক্তিযুদ্ধের পর তার স্বামী একই গ্রামের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান ভূঁইয়ার বিয়ে হয়। মজিবুর রহমান এবং তার বড়ভাই রফিকুর রহমান ভূঁইয়াসহ ধুবাজোড়া গ্রামের কয়েকজন যুবক মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলেন। তারা এই গ্রামে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বিভিন্ন সময় আশ্রয়ও নিতেন। স্থানীয় দোসদের মাধ্যমে এ খবর পেয়ে একাত্তরের পহেলা সেপ্টেম্বর (১৫ ভাদ্র) বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্থানীয় রাজাকার কমান্ডার কোরবান আলীসহ স্থানীয় দোসরদের নিযে ক্যাপ্টেন আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে ইটনা ক্যাম্প থেকে পাকিস্তানী সেনারা গানবোট আর স্পীডবোট নিয়ে নোঙর করে পার্শ্ববর্তী গ্রাম চারিগ্রামের পাশে। এরপর ধান পরিবহনের বড় দুই নৌকায় চড়ে তারা ধুবাজোড়া গ্রামে হানা দেয়। শুরু করে নির্বিচার গুলিবর্ষণ, নির্যাতন, লুটপাট আর অগ্নিসংযোগ। এসময় গুলিতে মাহবুবা রহমানের চাচাত ভাই আব্দুর রউফ রোকন, আত্মীয় আন্নর আলী এবং বুধু ভূঁইয়া ঘটনাস্থলেই মারা যান। দু’টি ছোট ছেলে মজলু ভূঁইয়া এবং ইদ্রিছ মিয়া ভয়ে পালানোর সময় তাদেরকেও গুলি করে হায়েনারা। আজো তারা গুলির ক্ষত চিহ্ন নিয়ে বেঁচে আছেন। অনেকে সাঁতরে অন্যত্র পালিয়ে প্রাণে রক্ষা পান।

হানাদাররা সেদিন মাহবুবা রহমানের বাবা ইউপি সচিব রমিজ উদ্দিন ভূঁইয়া, চাচা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল গণি ভূঁইয়া, মিঠামইন হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মান্নান ভূঁইয়া, দুই প্রাইমারি শিক্ষক সিদ্দিকুর রহমান ভূঁইয়া ও আব্দুল লতিফ ভূঁইয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রোকনুজ্জামান ভূঁইয়া, কলেজ ছাত্র নূর আলী ভূঁইয়া, এলএলবি’র ছাত্র আব্দুল মতিন ভূঁইয়া, হাইস্কুল ছাত্র আব্দুর রশিদ ভূঁইয়া, জহির উদ্দিন ভূঁইয়া, আব্দুল খালেক ভূঁইয়া, সিরাজ মিয়া, রমজান আলী ভূঁইয়া, ইউপি সদস্য আব্দুল মজিদ ভূঁইয়া, আবু জামাল মিয়া ও চান্দু মিয়াকে ধরে রাইফেলের বাট দিয়ে পিটিয়ে এবং বেয়নেট দিয়ে খুচিয়ে খুচিয়ে নির্যাতন চালায় মুক্তিযোদ্ধা এবং অস্ত্রের সন্ধান দিতে। কিন্তু তারা কোন তথ্য না দিলে পাক সেনারা এই ১৬ জনকে বেঁধে ইটনা ক্যাম্পে নিয়ে যায়। যাবার আগে গ্রামটিতে আগুন ধরিয়ে বেপরোয়া লুটপাট চালিয়ে নগদ টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে যায়। আগুনের উত্তাপে মুক্তিযোদ্ধাদের লুকিয়ে রাখা দু’টি গ্রেনেড বিকল শব্দে ফেটে গেলে হানাদাররা আরো ভয়াবহ তাণ্ডব চালায়। আগুনে ঘরবাড়ি, আসবাপত্র, কাপড়চোপর, ধান-চালসহ ব্যাপক সম্পদের ক্ষতি হয়। পাক সেনারা ফিরে যাবার সময় যে ১৬ জনকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল, তাদেরকে দু’দিন পর একসঙ্গে হত্যা করা হয়। কিন্তু স্বজনরা একটি লাশও পাননি।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com