কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় মৃত্যুমুখে প্রথম শ্রেণির ছাত্র, বাবার আকুতি


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার, ৮:৫৮ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে ২১শে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে ফুল দিতে গিয়ে মো. সাঈম (৬) নামে প্রথম শ্রেণির এক ছাত্র মোটর সাইকেল চাপায় গুরুতর আহত হয়েছে। দুর্ঘটনার পর থেকে সে দু’চোখে কিছুই দেখতে পাচ্ছে না।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাঈম এখন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। দরিদ্র রাজমিস্ত্রী বাবা মো. হারুন অর্থাভাবে ছেলের ঔষধ আর চিকিৎসার খরচ মেটাতে পারছেন না। ফলে ছোট্ট শিশু সাঈমের সুচিকিৎসা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

মো. সাঈম কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের কুতকাইল গ্রামের দরিদ্র রাজমিস্ত্রী মো. হারুনের ছেলে। সাঈম কুতকাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র।

পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে, ২১শে ফেব্রুয়ারি প্রত্যুষে সে শহীদ মিনারে ফুল দিতে পার্শ্ববর্তী জিনারাই উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে যাচ্ছিল। পথে একটি বেপরোয়া গতির মোটর সাইকেল সাঈমকে চাপা দিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

মোটর সাইকেল চাপায় সাঈম গুরুতর আহত হলে তাকে প্রথমে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর থেকে সেখানেই সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সাঈমের বাবা মো. হারুন জানান, মোটর সাইকেল চাপায় সাঈম দু’চোখে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এ কারণে সে দুর্ঘটনার পর থেকে দু’চোখে দেখতে পাচ্ছে না।

চিকিৎসকরা বলেছেন, সাঈমের উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। কিন্তু তার পরিবারে নুন আনতে পান্তা ফুরোয় অবস্থা। এ অবস্থায় ছেলের ঔষধ আর চিকিৎসার খরচ মেটানো তার পক্ষে দুরুহ হয়ে পড়েছে।

দরিদ্র রাজমিস্ত্রী হারুন তার অবুঝ সন্তানের চিকিৎসার জন্য হৃদয়বান মানুষদের কাছে সহযোগিতার আকুতি জানিয়ে বলেন, কেবল হৃদয়বান মানুষের সহায়তা পেলেই আমার ছেলের সুচিকিৎসা সম্ভব হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর