কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত কমান্ডার আব্দুর রউফ এর ৬ষ্ঠ মহাপ্রয়াণ দিবস পালিত


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৬:৩৯ | বিশেষ সংবাদ 


গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ক্ষেত্রে গৌরবময় ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ দেশের সর্বোচ্চ জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় পুরস্কার “স্বাধীনতা পুরস্কার” মরণোত্তর ২০২০ এর জন্য মনোনীত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম অভিযুক্ত পিএসটিসি প্রতিষ্ঠাতা কমান্ডার (অব.) আব্দুর রউফ এর ষষ্ঠ মহাপ্রয়াণ দিবস উপলক্ষে ভৈরবে মিলাদ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় ভৈরব প্রেসক্লাব মিলনায়তনে কমান্ডার আব্দুর রউফ স্মৃতি পরিষদ এর আয়োজনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

কমান্ডার আব্দুর রউফ স্মৃতি পরিষদ এর সভাপতি এ.কে মোবারক আলী এর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর অতিরিক্ত সচিব (অব.) গবেষক ও লেখক এনডিসি ড. মোহাম্মদ আলী খান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ, বিশিষ্ট লেখক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আতাউর রহমান, শিশু সংগঠক অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ, বাজিতপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শেখ নূরুন্নবী বাদল, ভৈরব প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রবীণ সাংবাদিক বশির আহমেদ, কামরুন-মহিউদ্দিন ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট এর চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. মহিউদ্দিন আহমেদ, বাংলা কথা নির্বাহী সম্পাদক সমর ইসলাম প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা কমান্ডার আব্দুর রউফ এর বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণ করে বলেন, তিনি দক্ষ সংগঠকের পাশাপাশি একজন লেখক, গবেষক ছিলেন। তিনি আমাদের দেশের সম্পদ।

তিনি এমন একজন মহামানব ছিলেন তার মানবপ্রেম, তার ভালবাসা দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজে লাগিয়েছেন। দেশ প্রেমই ছিল তার মূল্য উদ্দেশ্য।

বাংলাদেশের জনসংখ্যা নিয়ে বেসরকারি পর্যায়ে কার্যক্রমে তার অবদান অপরিসীম। কেউ যদি বলতে চাই তিনি দেশের জন্য কি করেছেন তখন দেশের আকাশ বাতাস সবকিছুতে তার অবদান ছড়িয়ে রয়েছে।

তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধাদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অসামান্য অবধান রেখেছেন। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে তিনি নৌবাহিনীতে আবারও যোগদান করেন এবং স্বাধীন বাংলাদেশের উপযোগী একটি নৌবাহিনী পুনর্গঠন করেন।

নতুন প্রজন্মের কাছে আব্দুর রউফের মতো ব্যক্তিত্বদের কথা যত আলোচনা করা হবে ততই তরুণ প্রজন্ম অনুপ্রাণিত হবে।

এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, কমান্ডার আব্দুর রউফ স্মৃতি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লেখক গবেষক শরীফ হোসেন, উপদেষ্টা শফিউর রহমান খান বাচ্চু, সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, আজিজুল হক মজনু, অর্থ সম্পাদক রহুল আমিন, বাবর আলী ও ইদ্রিস আলী মাস্টার।

অনুষ্ঠানের সার্বিক সঞ্চালনায় ছিলেন, কমান্ডার আব্দুর রউফ স্মৃতি পরিষদের অন্যতম সদস্য রফিকুল ইসলাম দুলাল।

উল্লেখ্য, কমান্ডার আব্দুর রউফ ৮২ বছর বয়সে ২০১৫ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর