কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ১০ হাজার লিটার চোলাই মদ উদ্ধার, ২৪ মাদক ক্রেতা-বিক্রেতার কারাদণ্ড


 স্টাফ রিপোর্টার | ৯ মার্চ ২০২০, সোমবার, ৮:৩৫ | অপরাধ 


কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের মোরগমহাল হরিজন পল্লী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১০ হাজার লিটার দেশীয় চোলাই মদ উদ্ধার এবং মাদক বিক্রি ও সেবনের সময় হাতেনাতে ২৪ জনকে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রোববার (৮ মার্চ) রাত পৌনে ৮টা থেকে রাত ১টা পর্যন্ত জেলা কালেক্টরেটের ৬জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে র‌্যাব-১৪, সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্প এই অভিযান পরিচালনা করে।

অভিযানে আটকদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ শহরের নগুয়া বাস স্ট্যান্ড এলাকার মৃত আবদুল মজিদের ছেলে ইমান আলী (৫৪) কে নিয়মিত মাদক বিক্রিয় অপরাধে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও এক হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো সাত দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

কিশোরগঞ্জ শহরের খরমপট্টি এলাকার জিল্লু মিয়ার ছেলে মাসুদ (৪৫), করিমগঞ্জের জঙ্গলবাড়ির আব্দুল আলীর ছেলে মো. নাজু মিয়া (৩৫), সদরের পাবইকান্দি গ্রামের মৃত চান্দু মিয়ার ছেলে সোহবান মিয়া (৪০), বৌলাই গ্রামের মো. রঞ্জু মিয়ার ছেলে মো. আবু হানিফ (২৪), তালতলা গ্রামের আবছার উদ্দিনের ছেলে মোশারফ হোসেন (৩২) ও তাড়াইলের নগরঞ্জল গ্রামের মৃত অশ্বীনীর ছেলে ক্ষুদিরাম চন্দ্র সরকার (৩৫) কে এক মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০০ টাকা করে অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও সাত দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে মাদক সেবনের অপরাধে সদরের মুন্সিতাশপুর গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের ছেলে মো. শাহীন(২৯), নান্দাইলের তারাঘাট গ্রামের মৃত লাহুর ছেলে লিকু, সদরের চরশোলাকিয়া গ্রামের মৃত নবী নেওয়াজের ছেলে ছিদ্দিক (৬৩), ব্রাক্ষ্মণকান্দি গ্রামের মৃত আব্দুল মোতালিবের ছেলে জালাল (৬৫), বৌলাই গ্রামের মো. দুলাল মিয়ার ছেলে মো. অহেদ (২৫), বত্রিশ নতুন পল্লী এলাকার মৃত ক্ষিতিশ চন্দ্রর ছেলে বিন্দু শাহা (৩৫), নান্দাইলের মসুয়া গ্রামের মৃত শাহেদ আলীর ছেলে নূর ইসলাম (৩০), সদরের ইসলামপাড়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে মো. মাসুদ রানা (৪৮), সদরের তেরহাগিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল কাদিরের ছেলে মো. আল-আমিন (৩০), মানিকগঞ্জের দশছিড়া গ্রামের মো. সিরাজুল ইসলামের ছেলে মো. আকাশ (২৫), সদরের বগাদিয়া গ্রামের মো. সুরুজ মিয়ার ছেলে মো. ইদ্রিশ মিয়া (৩০), রশিদাবাদ গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেনের ছেলে মো. রেনুয়ার হোসেন (৫৪) ও ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার তেলীগ্রামের মৃত শামছুল আলমের ছেলে আবুল কালাম (৫০) কে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ১ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এ ছাড়াও শহরের বয়লা তারাপাশার মৃত আবু ছিদ্দিকের ছেলে মঞ্জিল (২৫), বড়কাপন এলাকার আব্দুল হেকিমের ছেলে মো. আমিনুল ইসলাম (২৮), বগাদিয়া তালতলার আমিনুল ইসলামের ছেলে আল শাহরিয়া ডালিম ও শহরের গাইটাল এলাকার জাহেদ মিয়ার ছেলে মাহাতাব (৪১) কে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ১ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

র‌্যাব-১৪ সিপিসি-২ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার (সিনিয়র এডি) চন্দন দেবনাথ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কিশোরগঞ্জ ক্যাম্প জানতে পারে, ওই এলাকায় অবৈধ মদ বিক্রি হচ্ছে।

উক্ত তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী চক্রের ওপর র‌্যাবের নিরবচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারি চালিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় এ অভিযান চালানো হয়।

অপরাধীদের ধরতে এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার চন্দন দেবনাথ। ভ্রাম্যমাণ আদালতের দায়িত্বে ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাগুফতা হক, গালিব মাহমুদ পাশা, ফজলে রাব্বী, মীর মো. আল কামাহ্ তমাল, উম্মে হাফসা নাদিয়া ও মাহমুদুল হাসান।

র‌্যাব জানায়, উদ্ধারকৃত চোলাই মদের আনুমানিক মূল্য হবে ২০ লাখ টাকা। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের সামনে উদ্ধারকৃত এসব মদ ধ্বংস করা হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর