কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ২৪ ঘন্টার মধ্যে বিদেশ ফেরতদের সনাক্ত করে সপরিবারে স্বাস্থ্য পরীক্ষার সিদ্ধান্ত


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২১ মার্চ ২০২০, শনিবার, ৬:০৪ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ক উদ্যোগ বাস্তবায়ন ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে শনিবার (২১ মার্চ) জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক উচ্চ পর্যায়ের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় জেলার ১৩টি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ১৩টি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), ১৩টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), জেলা পর্যায়ের সকল বিভাগীয় কর্মকর্তাসহ জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সভাকক্ষে প্রবেশের আগে সবাই হাত ও মুখে মাক্স পরে প্রাথমিক প্রতিরোধের জানান দেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের উপ-পরিচালক ডা. হেলাল উদ্দিন, পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সুলতানা রাজিয়া, জেলা বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ ওয়াহাব বাদল, ভৈরব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সায়েদুল্লাহ মিয়া. অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস,  জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মো. কামরুজ্জামান প্রমুখ।

সভায় আলোচনা করে বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এর মধ্যে গত ১৭ই ডিসেম্বর থেকে ১৮ই মার্চ পর্যন্ত সারা জেলায় বিদেশ থেকে যারা দেশে ফিরেছেন এবং এ জেলার বাসিন্দা তাদেরকে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে সনাক্ত করে তাদের এবং পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা নেওয়া।

গত ১৫ দিনের মধ্যে যারা এ জেলায় এসেছেন তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে নিয়ে যাওয়া, তিন মাসে আগে যারা এসেছেন তারাসহ তাদের পরিবারের সদস্যদের তালিকা তৈরি করে হাসপাতালে এনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা, প্রতিটি গ্রামে, ওয়ার্ডে, ইউনিয়ন ও পৌরসভায় কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

ইতোমধ্যে কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে সভায় জানানো হয়। যেসব এলাকায় এখনও কমিটি হয়নি তা আগামী দুইদিনের মধ্যে কমিটি গঠন করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ওসিদের নির্দেশনা দেওয়া হয়। প্রতিটি কমিটিতে স্বাস্থ্য বিভাগ, পুলিশ ও জন-প্রতিনিধি থাকতে হবে।

চিকিৎসকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ও ঝুঁকি এড়াতে স্থানীয়ভাবে তহবিল গঠন করে পোশাক ও সরঞ্জাম কেনার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়।

পাঁচজনের বেশি  মানুষের চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া বিদেশ থেকে আগতদের বিষয়ে প্রশাসন, পুলিশ ও জন-প্রতিনিধিদের অবহিত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এছাড়া শুধুমাত্র করোনা আক্রান্ত রোগীর জন্য দুইটি অ্যাম্বুলেন্স সার্বক্ষণিক প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে সভায় জানানো হয়।

জেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভা, জেলা উন্নয়ন সমম্বয় কমিটির সভাসহ সকল সভা বাতিল ঘোষণা করা হয়েঠে। এছাড়া সভায় উপস্থিত সকল সদস্যদের সারা জেলায় ব্যাপক প্রচারাভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত হয়।

জেলার বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক সচেতনেতামূলক লিফলেট বিতরণ করার কথাও সভায় বলা হয়।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, এনএসআই এর ডিডি নুসরাত ইসলাম, ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশাসক ডা. বুলবুল আহমেদ প্রমুখ।

পরে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধের লক্ষ্যে কিশোরগঞ্জে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১২ ধরণের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়ে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। সভায় জেলা প্রশাসক উপস্থিত সবাইকে তা অবহিত করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর