কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনায় করণীয় কী, করছি কী


 মোশারফ হোসেন | ২৬ মার্চ ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১:৫৪ | মত-দ্বিমত 


নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) নিয়ে ভূমিকার কিছু আছে বলে মনে করি না। সারা বিশ্বের প্রায় প্রতিটি মানুষই নিশ্চয় এই করোনাভাইরাস নিয়ে শুনছে, কথা বলছে, কী করা উচিত, কী করা অনুচিত, কীভাবে প্রতিরোধ করা যায়, কী ওষুধ, কী প্রতিষেধক, কীভাবে বাঁচা যায়- এসব ভাবছে।

২৫ মার্চ দিবাগত রাত একটা পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্য মতে, বাংলাদেশসহ বিশ্বের ১৭২ দেশ ও এলাকায় এই সংক্রামক ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। সারা বিশ্বে ১৭২ টি দেশ ও এলাকায় ৪ লক্ষ ৫৪ হাজার ৩৯৮ জন মানুষ এই অতিমারীতে আক্রান্ত হয়েছে, মারা গিয়েছে ২০ হাজার ৫৫০ জন (সূত্রঃ জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটি, লিংকঃ https://coronavirus.jhu.edu/map.html)।

অন্যদিকে আমাদের দেশিয় 'রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)' এর ২৫ মার্চ পর্যন্ত হালনাগাদ তথ্যমতে বাংলাদেশে আক্রান্ত হয়েছে ৩৯ জন, মারা গেছে ৫ জন।

চিকিৎসা নয়, সচেতনতার মাধ্যমে প্রতিরোধকেই মহামারীর চেয়ে ভয়াবহ এই অতিমারীর (প্যানডেমিক) সবচেয়ে বড় ওষুধ হিসেবে বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ বিশ্বের বড় বড় দেশ ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তবে কতটা প্রস্তুত বাংলাদেশ? সচেতনতা, প্রতিরোধ, প্রতিকার ও পূর্বপ্রস্তুতির প্রশ্নে কেমন ভূমিকা পালন করছি আমরা?

করোনা প্রতিরোধে অনেক করণীয় সংবলিত প্রেসক্রিপশনই পত্রপত্রিকা, টেলিমিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সয়লাব হয়ে গেছে। তাই সে বিষয়ে আর আলোকপাত করতে চাচ্ছি না। তবে লেখার বিষয়বস্তুর প্রাসঙ্গিকতায় কিছু করণীয়র কথা হয়ত বলতেই হবে।

যেমন, করোনা প্রতিরোধের বড় উপায় হিসেবে বলা হচ্ছে, পরস্পরের মধ্যে সামাজিক ব্যবধান বাড়াতে। এরই অংশ হিসেবে করমর্দন থেকে বিরত থাকার জন্য বলা হচ্ছে। কিন্তু গত শুক্রবার বিকেলে জরুরি কাজে শ্বশুর বাড়ি হতে পায়ে হেঁটে পাশের গ্রামে নিজের বাড়িতে যাওয়ার পথে চারজন প্রবাসীর সামনে পড়লাম, যাদের দুইজন শ্বশুরবাড়ির প্রতিবেশী এবং দুইজন আমারই হাই স্কুল জীবনের সহপাঠী।

সবার সাথে কয়েক বছর পর দেখা। তাই কুশল বিনিময়ের সাথে সাথে একযোগে চারটি হাত এগিয়ে এলো আমার দিকে--করমর্দন করার জন্য! শ্বশুরবাড়ির লোক, তাই করমর্দন না করলে জামাইয়ের গায়ে 'অসামাজিক' তকমা লেগে যেতে পারে ভয়ে হাত না বাড়িয়ে আমারও যেন উপায় ছিল না। করমর্দন করতেই হল। ভাগ্যিস সাথেই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের একটি বোতল ছিল। তাই করমর্দন শেষে তাদের অগোচরে হাতে স্যানিটাইজার লাগিয়ে নিলাম এবং হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম।

আরেকটু পথ যেতেই গ্রামের আরেক ছোট ভাই সালাম দিয়ে করমর্দনের উদ্দেশ্যে হাত বাড়িয়ে দিল। আমি হাত গুটিয়ে নিতেই বলে ওঠল, 'ও আচ্ছা করোনাভাইরাস, তাই হাত মেলানো যাবে না!' বাড়ির কাছে যেতেই নিজের ভগ্নিপতির ছোট ভাইয়ের সাথে দেখা। হাত মেলানোর জন্য একেবারে মুখের সামনে এসে দাড়ালেন। কিন্তু এবার আমি নাছোড়বান্দা-- পিছনে হাত গুটিয়ে রেখে বললাম, 'না এই সময় হাত মেলানো যাবে না।' কিন্তু সে কিছুটা রাগের সুরেই বললো, 'কে বলছে তোমারে হাত মিলালে করোনা হয়? করোনা হলে এমনিই হবে, হাত মেলানোর সাথে করোনার কোনো সম্পর্ক নাই।'

রবিবার সকালে অফিসে যাওয়ার জন্য দাঁড়িয়ে রিকশার জন্য অপেক্ষা করছি। আমার সামনেই মাস্ক পরা এক ব্যক্তি দাঁড়িয়ে। দেখে খুবই স্বাস্থ্য তথা করোনাসচেতন মনে হলো। হঠাৎ মাস্ক সরিয়ে আমার ঠিক পায়ের সামনেই পক করে থুতুর একটি বিরাট দলা ফেলে দিলেন। বিরক্তিতে তাকালাম তার দিকে। আমার বিরক্তি বুঝতে পেরে একটু দূরে সরে গিয়ে আরেক দলা থুতু ফেললেন, তবে সেটাও থুতুর শিষ্টাচার বহির্ভূত প্রক্রিয়ায়।

একই দিনে দুপুরে আমি আমার অফিস কক্ষে (চেম্বারে) অবস্থান করছিলাম। হঠাৎ দেখি, এক ভদ্রলোক হাতে একটি ভিজিটিং কার্ড নিয়ে আমার কক্ষে আসার অনুমতি চাইছেন। আমি তখন ল্যান্ড ফোনে কথা বলছিলাম। তাই তাকে আমার কক্ষে আসতে অনুরোধ করলাম এবং হাতের ইশারায় চেয়ারে বসতে বললাম।

আমার কথা শেষে ভদ্রলোক তার হাতে থাকা ভিজিটিং কার্ডটি আমার হাতে দিতে উদ্যত হলেন এবং পাশাপাশি সে তার পরিচয় বলতে লাগলেন, তিনি একটি বেসরকারি বীমা কোম্পানিতে কর্মরত, ময়মনসিংহ থেকে এসেছেন।

আমি অবাক বিস্ময়ে তার দিকে তাকিয়ে বললাম, 'ভাই, ভিজিটিং কার্ডটি আপনার কাছে রেখে দিন, এটি আপাতত আমি নিতে পারছি না। আর আমরা ব্যাংকাররাও তো মার্কেটিং করি, কিন্তু এই সময়ে স্থানীয় বাজারেই আমরা মার্কেটিং করার সাহস পাচ্ছি না, আপনি ময়মনসিংহ থেকে আরেক জেলায় চলে এসেছেন মার্কেটিং করার জন্য! দশটা দিন পরে আসলে কি সমস্যা হত, ভাই?’

সে তখন পাশ কাটিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে বললো, 'না, এইতো পাশেই এক আত্মীয়ের বাসায় এসেছিলাম, তাই ভাবলাম- আপনাকে একটা সালাম দিয়ে যাই।'

কিছুক্ষণ পরেই পরিচিত এক গ্রাহকের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছেলে দুইশত টাকার কিছু নতুন নোট নিতে আমার কাছে আসলেন। তার সাথেও কথা হচ্ছিল করোনাভাইরাস প্রসঙ্গে। তিনি বললেন, কয়েকদিন আগেই তিনি একটি ধর্মীয় সংগঠনের অধীন তিন দিনের একটি ধর্মীয় শিক্ষামূলক জমায়েতে গিয়েছিলেন।

সেখানে গিয়ে তিনি করোনাভাইরাস বিষয়ে যে যুক্তিটা পেলেন, তা হলো- করোনার বিরুদ্ধে সকল প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হচ্ছে মুনাফেকি লক্ষণ, ঈমানি দুর্বলতার পরিচয়। কারণ, করোনাকে ভয় পাওয়ার অর্থ হচ্ছে- আল্লাহর শক্তির উপরে করোনাকে স্থান দিয়ে দেওয়া। তাই তাদের পরামর্শ হচ্ছে, করোনাকে গুরুত্ব না দিয়ে, কেবল আল্লাহকেই ভরসা করে নিশ্চিন্তে দিনাতিপাত করা। কোনো কোনো ইসলামি বক্তা তো এমনটাও বলছেন যে, করোনা বলে কিছু নেই, কিংবা তাঁরা করোনাতে বিশ্বাস করেন না ইত্যাদি।

আরেক বাবাকে দেখলাম, তার ৫ বছর বয়সী বাচ্চাকে নিয়ে ব্যাংকে আসলেন। আমি চেম্বার থেকে বেরিয়ে একটু রেগে গিয়েই বললাম, 'এই বাচ্চাটাকে নিয়ে এসময়ে কেন বের হলেন? বাসায় রেখে আসতে পারেন নি বাচ্চাটাকে? বাসায় কি ওর মা নেই? ওর জীবনের জন্য কি আপনার কোনো মায়া নেই?' দায়িত্বশীল বাবা জবাব দিলেন, 'বাসায় বাচ্চার মা আছে। আমি বাচ্চার জামার মাপ দিতে বাচ্চাকে সাথে নিয়ে আসছি। আর, আমার বাচ্চার জন্য আমার চাইতে আপনার বেশি মায়া দেখাতে হবে না!'

আসলে আমরা একটি মৃত্যুকে ‘একটি জীবনের অবসান’ হিসেবে না দেখে কেবল একটি সংখ্যা হিসেবে গণনা  করছি। তাই করোনার মত অতিমারীতেও আমরা যেন ভয়ডরহীন, ভাবলেশহীন ভোঁতা অনুভুতিপূর্ণ আচরণ করছি। বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে রাখার প্রতিবাদে প্রবাসী এক ব্যক্তিকে দেখলাম মাতৃতুল্য দেশকে নিয়ে অশ্রাব্য শব্দ ব্যবহার করছে। আরেকজন প্রবাসী দেশের সিস্টেম নিয়েই প্রশ্ন তুলেছে।

আসলে কোয়ারেন্টাইন, আইসোলেশন- এই শব্দগুলোর সাথে আমাদের অনেকেরই পরিচয় নেই। আর এগুলোর শাব্দিক অর্থ জানলেও মহামারী বা অতিমারীর ক্ষেত্রে এগুলোর তাৎপর্য বা প্রয়োগ কী তা আমরা অনেকেই বুঝি না। তাই বিদেশ ফেরতদের ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হলেও তারা তা মানছেন না। বিমান থেকে নেমে স্বজনদের সাথে কোলাকুলি করছেন, বাড়ি যাচ্ছেন একই গাড়িতে করে, বাড়ি গিয়ে কোয়ারেন্টাইন তো দূরে থাক- দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন সর্বত্র, স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ফেলছেন তার পরিবারকে, গোটা এলাকা তথা পুরো দেশকেই। সরকার এবং দায়িত্বশীলরা তাদেরকে বুঝিয়ে বশে আনতে পারেনি, জোরও খাটাতে পারেনি। তাই ধারণা করা হচ্ছে তাদের মাধ্যমেই দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছে।

তাই প্রবাসীসহ দেশের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরিতে সরকার এবং সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত দপ্তর, মন্ত্রণালয়, প্রশাসন, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ব্যাপকভাবে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা দরকার ছিল। সংক্রামক ব্যধি করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত দেশের সরকারি প্রতিষ্ঠান 'রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)' এর ওয়েবসাইটে ঢুকে এর লক্ষণ, প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে অনেক স্বাস্থ্যবার্তা পেয়েছি।

কিন্তু সাধারণ মানুষের সচেতনতা বাড়াতে সক্ষম এমন একটি ভিডিও পেলাম না। ওয়েবসাইটে ঢুকে জানার আগ্রহ বা জ্ঞান ক’জনের আছে। বাংলায় ভিডিও বার্তা থাকলে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছানো সহজ ও অধিক বোধগম্য হত।

আমেরিকাভিত্তিক রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি), বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, গুগল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) এর উপর সচেতনতামূলক অসংখ্য ভিডিও আপলোড করেছে তাদের ওয়েবসাইটে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বদৌলতে এগুলো প্রচারও পাচ্ছে। তবে সেগুলো ইংরেজি ভাষার বার্তা হওয়ায় ৭ কোটি দিনমজুরের আমাদের দেশে ফলপ্রসু নয়।

ফলে দেশে পর্যাপ্ত সমন্বিত ও বোধগম্য প্রচারের অভাবে করোনা প্রসঙ্গে মানুষের মধ্যে জানার যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে। অজ্ঞতার কারণে আতঙ্ক ছড়ানোর পাশাপাশি ডালপালা মেলছে নানা গুজব। অনেকেই নিজের মত করে বিভিন্ন রকম প্রতিরোধমূলক পরামর্শ দিচ্ছেন, নিজেদের মতো করে চিকিৎসাও দিচ্ছেন কেও কেও।

করোনাভাইরাসের মত মারণব্যাধির কোনো পরীক্ষীত প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় প্রতিরোধ হিসেবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং নিজেদের মধ্যে পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক সচেতনতা বৃদ্ধিকেই একমাত্র উপায় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

করোনা আতঙ্কে ভারতে যেখানে জনতার কারফিউ চলছে, একাধিক দেশে জরুরি অবস্থা ও লকডাউন বিরাজমান, সেখানে আমরা যেন আগের মতই। আমার অফিসে যাওয়ার পথে এবং ফেরার পথে যতটুকু দেখতে পাচ্ছি এবং অফিসে সেবাপ্রত্যাশী মানুষদের মধ্যেও যা দেখছি, এতে করে মানুষের কর্মকাণ্ডে সচেতনতামূলক কোনো পরিবর্তন দৃষ্টিগোচর হচ্ছে না। বরং যে যার মত করে চষে বেড়াচ্ছেন- এ বাড়ি থেকে ও বাড়ি, এক এলাকা থেকে আরেক এলাকা।

মৃত্যুকে সামনে রেখেও আমাদের নৈতিকতায় পরিবর্তনের কোনো আভাস যেন নেই। ভোক্তারা লকডাউন সঙ্কট আসন্ন মনে করে হুড়োহুড়ি করে কয়েক মাসের বাজার-সদাই করে নিচ্ছেন। এ সুযোগে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীরাও জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন কয়েক গুণ। ফলে করোনাসঙ্কটের মধ্যে এরা যেন ঘি ঢেলে তা আরও ঘনীভূত করে ফেলছে।

এক টিভি প্রতিবেদনে দেখলাম, অধপতনের চূড়ায় গিয়ে হাসপাতালের ব্যবহার করা সার্জিক্যাল মাস্ক শ্যাম্পু দিয়ে ধোয়ে বিক্রি করা হচ্ছে করোনার প্রতিরোধক হিসেবে! করোনার ওষুধ, প্রতিষেধক বা প্রতিরোধক হিসেবে যে নামটাই শুনা যাচ্ছে, বাজার থেকে সেটাই উধাও হয়ে যাচ্ছে। দোকান ও ফার্মেসিগুলোতে এখন স্যানিটাইজার, হ্যান্ডওয়াশ, ব্লিচিং পাউডার এমনকি সাধারণ সর্দি, কাশি ও জ্বরের ওষুধও পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে সামনে দেখা যাবে করোনা রোগী ওষুধ পাচ্ছে না, সুস্থ মানুষ করোনার ওষুধ নিয়ে ঘরে বসে আছে!

এ সময়ে অতিপ্রয়োজনীয় হ্যান্ডওয়াশ থেকে শুরু করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার কয়েকদিনের মধ্যেই বাজার থেকে উধাও হয়ে গেছে। আবার কোথাও কোথাও একজনের কাছেই পাওয়া গেছে ১০ হাজার পিস। জীবন বাঁচাতে কেও কেও ব্যক্তি উদ্যোগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করছেন। কিন্তু স্যানিটাইজারের পর্যাপ্ততা কিংবা সরবরাহ বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। বাসায় যারা বানাচ্ছেন সেটা নিরাপদ কিনা, আর নিরাপদ হলেও সেটার উপাদান ও সঠিক মাত্রা কী হবে এ বিষয়েও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, আইইডিসিআর-এর বক্তব্য বা নির্দেশনা  চোখে পড়েনি।

নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও অনেকেই দলবেধে পূণ্যস্নান করেছেন, কেওবা আবার করোনাবালাই দূর করতে সমারোহ করে আয়োজন করেছেন করোনাভোজ, হচ্ছে গণজমায়েতের মাধ্যমে বিশেষ দোয়া। একজন সিভিল সার্জন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ঘটা করে দিয়েছেন তার মেয়ের বিয়ে। চিকিৎসা ও প্রযুক্তিতে শীর্ষে অবস্থান করা দেশগুলো অসহায় হয়ে গেছে, একের পর এক কারফিউ ও লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

কিন্তু আমাদের দেশের উচ্চ পর্যায় থেকে শুরুর দিকে করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা স্বীকার করা তো হয়নি-ই, বরং এখানে ভোটের উৎসব পালন করা হয়েছে। মানুষকে করোনাভাইরাস ও কোয়ারেন্টাইনের শিক্ষা দিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী  সংবাদ সম্মেলন করতে আসেন দুই কুঁড়ি মানুষের দল নিয়ে, পাশাপাশি বসেন গাদাগাদি করে।

এছাড়াও ক্ষমতাসীন দলের একাধিক নেতার বক্তব্যে করোনাভাইরাস সম্পর্কে সংবাদসম্মেলনগুলোতে যে আস্ফালন দেখানো হয়েছে, তাতে করোনা নিয়ে জনগণের থোড়াই কেয়ার করা অস্বাভাবিক নয়। তাই করোনা নিয়ে কেও কেও ঠাট্টা-মশকরাও করছেন, খাদ্য হিসেবে 'করোনাভাজি'র ছবিও ফেসবুকে ঘুরছে।

যাই হোক, শেষ পর্যন্ত সরকারিভাবে টানা দশ দিনের ছুটির ব্যবস্থা করা হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় স্থানীয়ভাবে প্রশাসনিক কর্মকর্তারাও বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। কিন্তু পরিতাপ ও লজ্জার বিষয়- মানুষকে ছুটি দেওয়া হয়েছে নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করার জন্য; কিন্তু দেখলাম কমলাপুর রেল স্টেশনে ঈদের ছুটির মত মানুষের ভীড় লেগে গেছে টিকিট কেটে বাড়ি যাওয়ার জন্য। একই অবস্থা সড়ক ও নৌপথে। কী জাতি আমরা!

যদিও পুলিশ, সেনাবাহিনী, র‍্যাব, ফায়ার সার্ভিসসহ সরকারি সশস্ত্রবাহিনী ইতোমধ্যে মাঠে নেমেছে, তবুও মানুষকে ঘরবন্দী করতে সরকারের কঠোর হওয়ার পাশাপাশি আরও বেশ কিছু করণীয় আছে। এ দুর্যোগে মহান আল্লাহর পর সরকার, ডাক্তার, নার্স, হাসপাতাল আর ফার্মেসিগুলোই মানুষের ভরসা।

তাই ডাক্তার ও নার্সদের সেবা না পেয়ে যেন কেও না মরে, মৃতের স্বজনরা যেন জানতে পারে কী অসুখে তার প্রিয় মানুষটি মারা গেল। এজন্য সবার আগে করোনা চিকিৎসায় এবং করোনায় মৃতের সৎকারে নিয়োজিত ডাক্তার, নার্স, পুলিশ, প্রশাসন ও সেনাবাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের জন্য পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) সরবরাহ নিশ্চিত করে তাদের প্রত্যেকের জন্য বিশেষ প্রণোদনা ঘোষণা করা উচিত। এ প্রক্রিয়ায় তাদের কেউ মৃত্যুবরণ করলে তাদের পরিবারের সুরক্ষার জন্য সরকার কী ভূমিকা নিবে তাও স্পষ্ট করা প্রয়োজন।

করোনার চিকিৎসা ও এতদসংশ্লিষ্ট দায়িত্ব বণ্টন করে ডাক্তার, নার্স ও সহযোগীদের তালিকা দ্রুত প্রণয়ন করে দিতে হবে এখনি। পাশাপাশি সরকারি-বেসরকারি আরও হাসপাতালকে যুক্ত করে করোনা সনাক্তকরণ ও চিকিৎসা সেন্টার বাড়ানো, পর্যাপ্ত টেস্ট কিটের ব্যবস্থা রাখা জরুরি।

ব্যক্তি পর্যায়ে ব্যবহারের পাশাপাশি বাসা-বাড়িতে এবং সরকারি উদ্যোগে বাজার, ড্রেন, আবাসিক এলাকায় জীবাণুনাশক ছিটানোর কার্যক্রম বেগবান করতে হবে। সেলিব্রেটি, ইসলামিক স্কলার, হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ, ডাক্তার এবং সরকারি দপ্তরসহ বেসরকারি সব করপোরেট প্রতিষ্ঠান তাদের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে সচেতনতামূলক প্রচার কার্যক্রম চালাতে পারেন। গ্রামে গ্রামে বিশেষ টিম গঠন করে প্রচার এবং শতভাগ সচেতনতা, খাদ্য সহায়তা, সেবা ও চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। মোবাইল অপারেটরগুলোর মত টিভি চ্যানেলগুলো চালু করা মাত্রই এক-দুই মিনিটের  সচেতনতামূলক স্বয়ংক্রিয় ভিডিও প্রদর্শন করা যেতে পারে।

সরকারি এবং বেসরকারি উভয় পর্যায় থেকে ইতিমধ্যে বেশকিছু ভালো উদ্যোগও গ্রহণ করা হয়েছে। গণসাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত চিকিৎসা বিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীল করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের কিট উদ্ভাবন করেছেন। কিট উৎপাদনের কাঁচামাল আমদানির অনুমতিও দেওয়া হয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে। আশা করা যাচ্ছে, আমাদের দেশেই উৎপাদন হবে এই কিট।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন, বুয়েট অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, রোটারি ক্লাব ঢাকা নর্থ ওয়েস্ট এর সম্মিলিত উদ্যোগে জরুরি ভিত্তিতে ডাক্তার এবং নার্সদের প্রয়োজনীয় সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) তৈরির পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের একদল গবেষক হ্যান্ড স্যানিটাইজার উদ্ভাবন করেছেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ডিস্টিলারি 'কেরু এন্ড কোং (বাংলাদেশ) লিমিটেড' এর উৎপাদিত হ্যান্ড স্যানিটাইজারও বাজারে আসছে। গ্যাস এবং বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের সময়সীমা বাড়িয়ে দিয়েছেন সরকার।

করোনাভাইরাস নিয়ে সরকারি ওওয়েবসাইট (http://corona.gov.bd/) চালু করা হয়েছে। রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন পরিশোধ করতে পাঁচ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কেন্দ্রীয় ব্যাংক আগামী জুন মাস পর্যন্ত কোন গ্রাহককে ঋণ খেলাপি না করার ঘোষণা দিয়েছে। একইভাবে এনজিওর কিস্তি আদায়ও স্থগিত করা হয়েছে জুন পর্যন্ত। তিন হাসপাতালকে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েছে প্রাণ-আরএফএল।

ব্যক্তি পর্যায়েও একাধিক বাড়ির মালিক তাদের ভাড়াটিয়াদের কয়েক মাসের বাড়ি ভাড়া মওকুফের ঘোষণা দিয়েছেন। সাহায্য ও মানবিকতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন অনেক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। দেশের প্রত্যেক ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি হাসপাতাল, বহুজাতিক ও করপোরেট প্রতিষ্ঠান এবং ধনবান ব্যক্তিরাও এ দুর্যোগ মোকাবেলায় এগিয়ে আসবে বলেই আশা করছি।

আমার পরিবার ও অফিসে ব্যক্তিগতভাবে কিছু ক্ষুদ্র পদক্ষেপ আমিও  নিয়েছি।

এক. নিজে পরিচ্ছন্ন থাকার পাশাপাশি অফিসের   প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হ্যান্ড গ্লাবস সরবরাহ করা হয়েছে;

দুই. আমার ব্যাংকে আসা গ্রাহকদের জন্য স্বাস্থ্যসম্মতভাবে হাত ধোয়া-মুছার ব্যবস্থা করা হয়েছে;

তিন. হাত ধোয়ার পাশাপাশি স্যানিটাইজার স্প্রে করে গ্রাহকদের  জীবাণুমুক্তকরণ করা হচ্ছে;

চার. অফিসে আসা গ্রাহকদের জন্য সচেতনতামূলক অডিও  বার্তা প্রচার করা হচ্ছে নিয়মিত;

পাঁচ. পরিবারে সবাইকে করোনা প্রতিরোধমূলক করণীয় বিষয়ে বার বার বলা হচ্ছে এবং তারা তা পরিপালন করছে কিনা তা নিয়মিত তদারকি করা হচ্ছে;

ছয়. অফিসে সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়ে একাধিকবার মিটিং করা হয়েছে এবং মিটিংয়ে করোনা বিষয়ে বিশদ আলোচনার পাশাপাশি সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে তাদের পরিবারের সবাইকে এ বিষয়ে সচেতন করার জন্য আহবান করা হয়েছে;

সাত. নিজের ফেসবুকে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বিভিন্ন করণীয় পোস্ট করে প্রচার করা হচ্ছে;

আট. পত্রিকার হকারকে বলে দিয়েছি মার্চ মাসে কোনো পত্রিকা ডেলিভারি না দেওয়ার জন্য। তবে তাকে বলে দিয়েছি, পত্রিকা না দিলেও তাকে পুরো মার্চ মাসেরই বিল প্রদান করা হবে। বাসার কাজের বুয়াকেও পুরো মাসের বেতনের আশ্বাস দিয়ে ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়েছে;

নয়. অফিসের সব কর্মীকে খাদ্যসামগ্রী কিংবা করোনার প্রাথমিক ওষুধ মজুদ না করতে কড়া নির্দেশনা দিয়েছি;

দশ. এছাড়াও ২৬ মার্চ হতে শুরু হওয়া ১০ দিনের টানা ছুটিতে এবং পরবর্তী সরকারি নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত  বাসায় অবস্থান করব।

আমার নিজের কর্মকাণ্ড বলাটা হয়ত প্রাসঙ্গিক নয়। তবুও বলেছি এই কারণে যে, আমি আমারটা, আপনি আপনার ভুমিকাটা পালন করলেই তো সারা বাংলাদেশ কার্যকর ভূমিকা দেখতে পাবে। এই করোনা আমাদের জন্য শুধু ভয়ই নয়, অনেক মঙ্গলময় ও ভালো কিছু চর্চার অভ্যাসও গড়ে দিয়ে যাচ্ছে। মানুষে মানুষে সাময়িক দুরত্ব বাড়ালেও দীর্ঘমেয়াদে কাছে আসার এবং মানবিক হওয়ার  শিক্ষাও দিচ্ছে।

তাই কয়েক যুগ বা কয়েক দশক বেঁচে থাকার জন্য আমরা মাত্র কয়েকটি দিন কি নিজেদেরকে গৃহবন্দি রাখতে পারিনা? একটু সচেতন হতে পারি না? আমরা আর কালক্ষেপণ না করি। আজ এক্ষুনি সবাই যার যার অবস্থান থেকে করুণা প্রতিরোধে যার যার ভূমিকা পালন করি। আসুন, সুস্থ থাকি, সুস্থ রাখি -- সবাই মিলে একসাথে বাঁচি।

# মোশারফ হোসেন, ব্যবস্থাপক, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, পাকুন্দিয়া শাখা, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ
মোবাইলঃ ০১৭১৯-৬০৫২৭০
ইমেইলঃ mosharafmau.200117@gmail.com




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর