কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ১০ হাজার পরিবারে পৌঁছে যাচ্ছে খাদ্য সহায়তা


 সাইফুল হক মোল্লা দুলু | ২৯ মার্চ ২০২০, রবিবার, ১:০৯ | সম্পাদকের বাছাই  


করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কিশোরগঞ্জ জেলার সার্বিক জীবনচিত্র পাল্টে গেছে। লোকে-লোকারণ্য জেলা শহর, উপজেলা ও পাশ্ববর্তী এলাকায় কোলাহল থেমে গেছে। থমকে গেছে স্বাভাবিক জীবন কিন্তু থেমে থাকছে না জীবন। দরিদ্র ও শ্রমিক শ্রেণির মানুষের জীবন-জীবিকা অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে।

সময় যাচ্ছে আর দিন মজুরের রুজি-রোজগারে অন্ধকার নেমে আসছে। কারণ সরকারের আহ্বানে মানুষ এখন ঘরে অবস্থান করছে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে স্বাস্থ্য বিভাগ, সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে কাজ করছে।

এমন অবস্থায় কাজকর্ম না থাকায় একেবারে গরিব লোকজন বিপাকে পড়েছে। তাদের অনেকে প্রতিদিনের খাবার সংগ্রহ করতে পারছে না।

এ পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসন ১৩টি উপজেলায় যাদের আয় রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে তাদের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জেলার ১০ হাজার হতদরিদ্র মানুষকে  খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে। এর জন্য ১০ লাখ টাকা ও ১০০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী ডিজিটাল পরিমাপ যন্ত্রের মাধ্যমে প্রতিজনের জন্যে ১০ কেজি চাল, ২ কেজি ডাল এবং ৫ কেজি আলু প্যাকেটজাত করে গতকাল শনিবার (২৮ মার্চ) থেকে গরিব নারী-পুরুষের মধ্যে বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

শনিবার (২৮ মার্চ) সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়ন পরিষদে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবদুল্লাহ আল মাসউদ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল কাদির মিয়া, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবদুস সাত্তার ও মাসুমা আক্তার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাওছার আহমেদ প্রমুখ।

সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে পরীক্ষামূলকভাবে শনিবার (২৮ মার্চ) ৫০টি পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়। তাদের প্রত্যেককে একটি মাস্কও প্রদান করা হয়।

তবে স্থানীয় লোকজন জানান, সারা জেলায় ১০ হাজার মানুষের জন্য বরাদ্দ অনেটাই অপ্রতুল। কারণ প্রায় ৩৩ লাখ মানুষের এ জেলায় খাদ্য সহায়তা গ্রহণ করার জন্য ৫০ হাজারের বেশি পরিবার রয়েছে।

তাদের দাবি, সারা জেলায় অন্তত ৫০ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা ও অন্যান্য সহযোগিতার আওতায় আনা প্রয়োজন। উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সহায়তার পরিমাণও  দ্বিগুণ করা প্রয়োজন বলে তারা মনে করেন।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, তালিকাভুক্ত প্রত্যেক পরিবারকে ১০ কেজি চাল, পাঁচ কেজি আলু ও দুই কেজি ডাল দেওয়া হবে। এ খাদ্য সহায়তা সংশ্লিষ্টদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে।

এছাড়া কারো যদি আর্থিক সমস্যা থেকে থাকে তাহলে জেলা প্রশাসন বরাবরে আবেদন করতে বলা হয়েছে। সেই বিষয়গুলোও বিবেচনায় নিয়ে দেখা হবে।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ জানান, করোনা দুর্যোগে যাদের আয়-রোজগার একেবারে বন্ধ হয়ে গেছে তাদের একটি তালিকা করেছে ইউনিয়ন করোনা প্রতিরোধ কমিটি। সেই তালিকা ধরে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। পরবর্তী সময়ে আরও বরাদ্দ পেলে একইভাবে বিতরণ করা হবে।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল কাদির মিয়া বলেন, সদরে ৯০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী এসব খাদ্য সহায়তা সেনাবাহিনী ও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সহযোগিতায় মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেবেন।

করিমগঞ্জ উপেজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তসলিমা নূর হোসেন জানান, এই করোনা দুর্যোগে মানুষকে সাহস জোগানো স্থানীয় প্রশাসনের প্রধান কাজ। প্রতিদিন রোজগেরে মানুষ ঘরে অবস্থান করায় যাদের আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে, তাদের মাঝে খাদ্য পৌঁছে দিতে শুক্রবারই (২৭ মার্চ) প্রস্তুতি পর্ব শেষ করা হযেছে। এখন এগুলো পৌঁছে যাবে মানুষের ঘরে ঘরে।

তিনি জানান, করিমগঞ্জে প্রাথমিকভাবে ৯০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

হোসেনপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন জানান, হোসেনপুরের জন্য সাত হাজার কেজি চাল ও নগদ ৭০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এখানে ৭০০ জন খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

জেলা প্রশাসনের টাকায় ২০০ প্যাকেট আলু ও ডাল কেনা যাবে। বাকি ৫০০ প্যাকেটের খরচ বহন করছে উপজেলা পরিষদ।

জেলার সুশীল সমাজের নেতৃস্থানীয়রা জানান, গরিব মানুষের জন্য সরকারি খাদ্য সহায়তা যথেষ্ট নয়। সরকারে আরো বেশি বরাদ্দ দিতে হবে। যেন বিপদে পড়া লোকজন অসহায় বোধ না করেন। তারা যেন মনে করে সরকার সব সময় তাদের পাশেই রয়েছে।

শুধু চাল-ডাল-আলু নয়, এ তালিকায় তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় আরও পণ্য যুক্ত করা দরকার। তারা এসব সহায়তার কাজ, সিদ্ধান্ত ও বিতরণ দ্রুততার সাথে করারও দাবি জানান।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জেলা প্রশাসকের নির্দেশে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় যেসব লোক করোনা পরিস্থিতির কারণে সত্যিকার অর্থে যারা জীবিকা ও জীবন নির্বাহ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে তাদেরকেই খাবার সামগ্রী পৌছে দেয়া হয়েছে।

প্রতিদিন উপজেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় খাদ্য সামগ্রী প্যাকেটকরণ, পরিমাপ, গুণগতমান ও প্রস্তুতি কার্যক্রম শতভাগ নিশ্চিত করে তা বাড়িতে গিয়ে পৌঁছে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ সম্মিলিত নাগরিক ফোরামের প্রধান সমন্বয়কারী এনায়েত করিম অমি বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সর্তকর্তামূলক ব্যবস্থা সরকারি নির্দেশ মতে সারা জেলায় শতভাগ নিশ্চিত হয়েছে। এ কারণে হত-দরিদ্ররা বিপাকে পড়েছ।

তাদের প্রতিদিনের আহার যোগাড় করা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে- তা অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে। তবে, সাহায্যের পরিমাণ দ্বিগুণ করাসহ পরিমাণ বৃদ্ধির জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর