কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে শহরের চিত্র পাল্টেছে, গ্রামীণ জনপদে লোকজনের ভিড়


 মাজহার মান্না | ৩০ মার্চ ২০২০, সোমবার, ৬:২৯ | বিশেষ সংবাদ 


করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রশাসনের তৎপরতায় কর্মচাঞ্চল্য শহরের সার্বিক জীবনচিত্র পাল্টে গেছে। কিন্তু জেলার ১৩টি উপজেলার গ্রামীণ জনপদ আর হাটবাজারগুলোতে এখন লোকজনের ভিড় যেন লেগেই আছে। তবে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে স্বাস্থ্য বিভাগ, সেনাবাহিনী, পুলিশ-র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

কর্মক্ষমসহ সাধারণ মানুষ এখন পরিবার পরিজন নিয়ে গৃহবন্দী থাকলেও কাজকর্ম না থাকায় একেবারে গরিব লোকজন পড়েছে বিপাকে। তাদের অনেকে প্রতিদিনের খাবার সংগ্রহ করতে পারছে না। এ পরিস্থিতিতে শ্রমজীবী মানুষেরা নিয়ম না মেনে জীবিকার তাগিদে বের হচ্ছে ঘর থেকে।

সরেজমিনে বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, শহরের মানুষজন অনেকটা সচেতন থাকলেও গ্রামের মানুষের অনেকে করোনা রোগের প্রার্দুভাব সম্পর্কে জ্ঞাত নেই। আর তাই শহরের তুলনায় বিভিন্ন উপজেলার গ্রামীণ জনপদ আর হাটবাজারগুলোতে লোকজনের ভিড় লেগেই রয়েছে। তারা কারণে অকারণে দিন-রাত ঘোরাঘুরি করে দিব্যি সময় পার করছেন।

সংস্কৃতিকর্মী ফয়সাল আহমেদ বলেন, মহামারি করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক দিন দিন বাড়ছে। থমকে গেছে মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপন। এরূপ বাস্তবতায় মানুষের কাজ না থাকায় অনেকে অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে পড়ছে। বিভিন্ন স্থানে চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনা পরিকল্পিত হচ্ছে। এ অবস্থায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতার পাশাপাশি এলাকায় সামাজিক নিরাপত্তা পরিবেশ নিশ্চিতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

কাপড় ব্যবসায়ী গাজী মহিবুর রহমান বলেন, শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে এখনো মানুষের ভিড় লেগেই থাকে। তবে ঈদ বা অন্যান্য দিবসে যেভাবে মার্কেট-শপিংমল বন্ধ থাকে বর্তমানে দোকাটপাট বন্ধের চিত্রটা একেবারে ভিন্ন। এ জন্য সবসময় একধরনের আতঙ্ক আর উৎকণ্ঠায় দিনযাপন করতে হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ সদরের সাদুল্লারচরের বীমা কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম মেনু ও মুক্তিযোদ্ধা নূরুল হক বলেন, উৎসবভিত্তিক ছুটির মতো নানা শ্রেণি পেশার মানুষ গ্রামের বাড়িতে এসে হাটবাজার ও চা-স্টলে ছুটিয়ে আড্ডা দিচ্ছে। মানুষজন যেন করোনা রোগ নিয়ে কোনো আমলই নিচ্ছে না। এ বিষয়ে সচেতন করতে প্রশাসনের আরও তৎপর হতে হবে।

কটিয়াদী উপজেলার বানিয়াগ্রাম বাজারের পল্লী চিকিৎসক মো. খালেদুজ্জামান বলেন, এই মৌসুমে সর্দি-জ্বর হওয়াটা স্বাভাবিক। গ্রামের অনেকে এ রোগে আক্রান্ত হয়। এ নিয়ে মানুষের মাঝে আতঙ্ক থাকলেও নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এখনো প্রত্যন্ত গ্রামের রাস্তাঘাটে ও বাজারগুলোতে প্রতিদিন লোকজনের জমাজমাট আড্ডা হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ জজকোর্টের আইনজীবী জাকির হোসেন রাসেল বলেন, বিভিন্ন উপজেলার বাজারগুলোতে রড-সিমেন্ট, হার্ডওয়্যার-প্লাস্টিক সামগ্রির বড় বড় দোকান খোলা রাখার সুযোগে ছুটিতে আসা কর্মক্ষম মানুষ গ্রামে এসে তাদের বাসা-বাড়ির নির্মাণসহ অন্যান্য কাজ করাচ্ছেন। এতে করে সামাজিক দূরত্ব পরিবেশ বিঘ্ন হচ্ছে।

জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনামুল হক জনপ্রতিনিধিদের খেঁটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বিশেষ অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘জাতীয় এই দুর্যোগকালে জনপ্রতিনিধিরা মাঠে থাকবেন এটাইতো প্রত্যাশা ছিল। জনগণের কাছে তাদের কমিটমেন্ট আছে। কিন্তু সংসদীয় আসনের এমপিদের কাজ কী? তারা যদি এই সময়ে পাশে না আসেন তবে তো তাদের রাজনীতি মানুষের জন্য হবে না।’

জানা গেছে, কিশোরগঞ্জে যেসব লোকজন করোনা পরিস্থিতির কারণে সত্যিকার অর্থে জীবিকা ও জীবন নির্বাহ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে তাদেরকে স্থানীয় প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় খাদ্য সামগ্রী প্যাকেটকরণ, পরিমাপ, গুণগতমান ও প্রস্তুতি কার্যক্রম শতভাগ নিশ্চিত করে তা সংশ্লিষ্টদের বাড়িতে গিয়ে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।

তবে স্থানীয়দের মতে, জেলায় ১০ হাজার মানুষের জন্য প্রশাসনের খাদ্য সহায়তা বরাদ্দ অনেটাই অপ্রতুল। কারণ প্রায় ৩৩ লাখ মানুষের এ জেলায় খাদ্য সহায়তা গ্রহণ করার জন্য প্রায় ৫০ হাজারের বেশি পরিবার রয়েছে।

তাদের দাবি, সারা জেলায় অন্তত ৫০ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা ও অন্যান্য সহযোগিতার আওতায় আনা প্রয়োজন। উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সহায়তার পরিমাণও দ্বিগুণ করা প্রয়োজন বলে তারা মনে করেন।

জেলার অভিজ্ঞ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ জানান, সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে-তা অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে। তবে গরিব মানুষের জন্য সরকারি খাদ্য সহায়তা যথেষ্ট নয়। সরকারে আরো বেশি বরাদ্দ দিতে হবে। যেন বিপদে পড়া লোকজন অসহায় বোধ না করেন। তারা যেন মনে করে সরকার সবসময় তাদের পাশেই রয়েছে।

শুধু চাল-ডাল-আলু নয়, এ তালিকায় তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় আরও পণ্য যুক্ত করা দরকার। তারা এসব সহায়তার কাজ, সিদ্ধান্ত ও বিতরণ দ্রুততার সাথে করারও দাবি জানান।

জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, করোনা মোকাবেলায় হতদরিদ্র কাউকে যাতে কষ্ট করতে না হয় সেজন্য সরকারের দেয়া পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য মজুদ রয়েছে। প্রাথমিকভাবে জেলার ১৩ উপজেলার ১০ হাজার পরিবারের নিকট খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়া হবে। পর্যায়ক্রমে পরিস্থিতি ও চাহিদা বিবেচনায় এ সংখ্যা আরো বাড়ানো হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর