কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এমপি তৌফিকের ব্যক্তিগত উদ্যোগে কৃষকের ঘরে যাচ্ছে খাদ্য ও সুরক্ষা সামগ্রী


 স্টাফ রিপোর্টার | ২ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৮:৪৮ | হাওর 


অভাবের দিনে করোনার সংক্রমণ ও আতঙ্কে কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের দরিদ্র জনগোষ্ঠী যখন দিশেহারা, তখন আশার আলোকবর্তিকা হয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।

তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে কৃষকদের ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী। স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিতরণ করছেন হ্যান্ড সেনিটাইজার, থার্মাল গান, মাস্ক, গগলস, হেডক্যাপ, গ্লাভস ও স্যাভলনের মতো জরুরি চিকিৎসা সামগ্রী।

এছাড়া চিকিৎসকদের দিচ্ছেন পিপিই। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌছে দিচ্ছেন থার্মাল স্ক্যানারসহ বিভিন্ন নিরাপত্তা সরঞ্জাম।

এমপি তৌফিকের এই উদ্যোগ বিশেষভাবে প্রশংসিত হচ্ছে। অন্ধকারে আলোর দিশা পাচ্ছেন প্রান্তিক দরিদ্র জনগোষ্ঠী।

এমনিতেই কৃষিজীবী হাওরবাসীর প্রতি বছরের ফাল্গুন-চৈত্র মাসে অভাব থাকে। তার ওপর করোনা ভাইরাসের হানা কৃষকদের মাথায় মরার উপর খাড়ার ঘা হয়েই আতঙ্ক ছড়াচ্ছে।

বুধবার (১ এপ্রিল) ও বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম ঘুরে দেখা যায়, হাওরের যতদূর চোখ যায় দেখা যায় শুধু সবুজ আর সবুজ। এ যেন সবুজের সমারোহ।

আর ১৫-২০ দিন পরেই সবুজের মাঠে দোল খাবে সোনালী ধান এবং শুরু হবে ধান কাটা। কিন্তু সবকিছুই যেন থমকে গেছে করোনা ভাইরাস আতঙ্কে।

কৃষকেরা অনেকটাই ঘরবন্দি। আর ঘরবন্দি মানুষদের বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী হিসেবে চাল, ডাল, আলু, সাবান ও সয়াবিন তেল পাঠাচ্ছেন সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।

দুর্দিনে এমপি তৌফিকের এই মানবিক সহায়তা পেয়ে খুশি হাওরের কৃষক।

মিঠামইনের কামালপুর গ্রামের কৃষক ফজলু মিয়া বলেন, আমি ৪ একর জমিতে ধান চাষ করেছি। এই করোনা ভাইরাসের জন্য এখন ধান কাটা নিয়ে চিন্তায় আছি। এমপি সাহেব আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। আমরা সাহস ফিরে পাচ্ছি।

কৃষকদের সহায়তার পাশাপাশি এমপি তৌফিক ব্যক্তিগত উদ্যোগে অষ্টগ্রাম-ইটনা-মিঠামইন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩টি থার্মাল স্ক্যানার, ১৮০টি পিপিই ও পর্যাপ্ত পরিমাণে হ্যান্ড সেনিটাইজার, থার্মাল গান, মাস্ক, সুকভার, গগলস, হেডক্যাপ, গ্লাভস ও স্যাভলন বিতরণ করেছেন।

এমপি তৌফিকের চিকিৎসা সরঞ্জাম হাতে পেয়ে ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অতিশ দাস রাজীব বলেন, নিরাপত্তা সরঞ্জাম পাওয়ায় হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজের গতি বৃদ্ধি পাবে।

নিজর উদ্যোগ সম্পর্কে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি বলেন, সরকারি সহযোগিতার পাশাপাশি আমি ব্যক্তিগতভাবে দিন মজুর, খেটে খাওয়া মানুষদের বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দেবার ব্যবস্থা করেছি।

এছাড়া তিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পিপিই-থার্মাল গানসহ নিরাপত্তার সরঞ্জাম সরবরাহ করেছি ।

হাওরবাসীর কল্যাণে এমন উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে বলেও রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর