কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হাওরের কৃষক চায় আর্থিক সুরক্ষা


 রফিকুল ইসলাম | ১৩ এপ্রিল ২০২০, সোমবার, ১:২৬ | মত-দ্বিমত 


খাদ্যভাণ্ডারখ্যাত বিশাল হাওরে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। ফসল উৎপাদনে দেশের পাঁচ ভাগের একভাগ উৎপাদনকারী অর্থাৎ খাদ্য জোগানদাতা এলাকা এটি। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ করোনার বৈশ্বিক মহামারিতে মানুষ ঘরে আবদ্ধ হয়ে পড়ায় ফসল নির্বিঘ্নে ঘরে তোলা নিয়ে সংশয় যেমন, তেমনি ফসলের ন্যায্যমূল্য না প্রাপ্তির শঙ্কাও তাড়া করছে কৃষকদের।

বিস্তীর্ণ হাওর অঞ্চল খাদ্যে উদ্বৃত্ত একফসলি বোরোপ্রধান এলাকা। বোরো ধান কাটা বা 'দাওয়া' শুরু হলেও করোনায় বিশ্বজুড়ে মানুষ গৃহবন্দিত্বে ধান কাটার শ্রমিক বা 'দাওয়ালের' অভাবে দাওয়া কার্যক্রম অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এর জেরে হাওর শুধু নয়, দেশের আগামী খাদ্যনিরাপত্তা সংকটের আশঙ্কাও তীব্র। এছাড়া ফসলি মাঠে রয়েছে বিশেষ করে ভূট্টা, আলু, বাদামও।

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ৭টি জেলা কিশোরগঞ্জসহ সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা, মৌলভীবাজার ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হাওর অধ্যুষিত ৩২টি উপজেলায় আবাদি জমি রয়েছে ২২ লাখ একরের মতো আর দেশে মোট ৪৮ লাখ হেক্টর, যা হাওরে দেশের মোট আবাদি জমির পরিমাণের এক-পঞ্চমাংশ প্রায়। উৎপাদনেও শতকরা ২০ ভাগ।

উৎপাদিত প্রায় ৬০ লাখ টন ধান এলাকার ২ কোটি মানুষের খাদ্য জোগান দিয়ে দেশের খাদ্য চাহিদা মিটানোর গর্বিত অংশীদারও।

কয়েক বছর ফসলের ন্যায্যমূল্যের অভাবে প্রান্তিক কৃষক নিরুৎসাহিত হয়ে বিরাট পরিমাণে জমি পতিত রাখায় এবার ওই লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছা না গেলেও খরার মাঝে ফলন ভালোই হয়েছে। এখন ভালোয় ভালোয় ঘরে তোলা নিয়ে যত দুশ্চিন্তা।

এক তো অকাল বন্যাসহ অতিবৃষ্টি, শিলাবৃষ্টি, ঝড়-তুফান, ঘূর্ণিঝড়; তার ওপর দাওয়ালের অভাব সংকটের নতুনমাত্রা যোগ করেছে।

বোরো মৌসুমের এ সময়টাতে প্রতিবছরই স্থানীয় ছাড়াও দেশের অন্যত্র থেকে বহিরাগত দাওয়ালরা ধান কাটতে বা দাইতে আসলেও এবার করোনায় লকডাউনে সে পথ রুদ্ধপ্রায়। একইভাবে বেকারত্বে শহরমুখী হওয়া স্থানীয় দাওয়ালরাও অসহায়।

এ অবস্থায় কৃষি মন্ত্রণালয় জরুরি ভিত্তিতে ধান কাটার যন্ত্র এবার নতুন করে বরাদ্দ দিয়েছে ১৮০টি কম্বাইন হারভেস্টার ও ১৩৭টি রিপার। আগেরগুলো মিলিয়ে বর্তমানে মোট ৩৬২টি কম্বাইন হারবেস্টার ও ১ হাজার ৫৬টি রিপার সচলের তথ্য মিলেছে। আর বিকল হয়ে পড়ে থাকা আরও ২২০টি কম্বাইন হারবেস্টার ও ৪৮৭টি রিপার মেরামত করে সচল করার প্রক্রিয়ায়। এতে বর্ধিষ্ণু পৌনে ৪শ হাওরে দাওয়ালের ঘাটতি মিটানোও দুরুহ। এছাড়া, মাঠে রয়েছে অন্যসব ফসলও।

একদিকে লকডাউন আরেকদিকে দাওয়াল সংকট- এই দ্বিমুখী সংকটের ফাঁড়ায় দিশেহারা কৃষকের পাশে দাঁড়িয়েছেন বাংলাদেশ কৃষক লীগের উপদেষ্টা রাষ্ট্রপতিপুত্র কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম)আসনের মাননীয় সাংসদ প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে কৃষকের পাকা ধান কেটে দিচ্ছেন এক থেকে আরেক হাওরে গিয়ে। রয়েছে অব্যাহত থাকার প্রত্যয়ও।

প্রশংসায় মানবসত্তার এ সত্ত্বাটি লোক মুখে ফিরছে। সোশ্যাল ও স্ট্রিমমিডিয়াতেও। উদ্যোগটি স্মল হলেও ওয়ান্ডারফুল হবে, যদি তিনি দৈব পরিস্থিতির সম্ভাব্য ক্ষতি সরকারপ্রধানের কাছে উপস্থাপন করে কৃষকের আর্থিক সুরক্ষার বিষয়টি সুরাহা করার বিহিত করেন।

ভাবাবেগ ও আইওয়াশ রেখে প্রয়াসটি মাত্রা পেয়ে পুরো স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশাল হাওরের ১৫ হাজার ৪শ’ গ্রাম মাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়ুক সারা বাংলার ৮৮ হাজার গ্রামে। আপদকালীন মুহূর্তে এ সহযোগিতা হতে পারে 'উইন উইন' সমাধান। এই কনসেপ্টটি হচ্ছে, 'তোমারও জয় আমারও জয়'।

তবুও আস্থার জায়গা থেকে বলতেই হয়, কৃষকের মুখে হাসি ধরে রাখতে দাওয়ালদের সম্পৃক্ততার চিন্তা কিন্তু বাদ দেয়া যায় না। শেষ মুহূর্ত পাওয়া খবরে বহিরাগত দাওয়ালরা আসাতে বাঁধা নেই বলা হলেও লকডাউন ও সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব আসলেই বাঁধা। নিরাপত্তা বলয় ভাঙাও বিপদ।

ফলে ফসল পেকে জমিতে বিনষ্টের আগেই কৃষি মাঠের কঠোর তদারকি অবশ্যম্ভাবী। ধান কাটা, মাড়াই, সিদ্ধ, শুকানো, উড়ানো তথা প্রক্রিয়াজাতকরণের বন্ধুর পাড়ি। বিফলে আগামী খাদ্যনিরাপত্তার অভাব হবে ভয়াবহ। কৃষি অর্থনীতিও। সামনে কঠিন সময়। মানুষ না খেয়ে মরতে চায় না। চায় স্বাস্থ্যের সুরক্ষার ব্যবস্থাও।

লকডাউন ও খাদ্যনিরাপত্তার দ্বন্দ্বে দেশ। কৃষকও বাঁচতে চায়। সবকিছু ঠিকঠাক চললেই মঙ্গল। কৃষিতে অন্যসব সুবিধাসহ উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তির বিষয়টিও জোরালোভাবে ভাবা দরকার। কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি, পত্তন-লিজ, সেচ, ধানকাটা, মাড়াই ইত্যাদি খরচ মিলে উৎপাদন খরচই ওঠে আসে না।

সরকারের সংগ্রহ হিসেব থেকে জানা যায়, সংগ্রহমূল্য থাকবে গতবারের মতোই। কৃষকের কাছ থেকে কিনবে ধান ৬ লাখ টন এবং চাল ১১ লাখ টন। বোরো উৎপাদনের মাত্র ৫-৬ ভাগ। এ ক্ষেত্রে সংগ্রহ পরিমাণ ও সংগ্রহ মূল্য কাঙ্খিত পর্যায়ে নির্ধারণ করা না গেলে কৃষক আগামী বোরো উৎপাদনে লোকসানের হিসেব গুণতে আর নাও এগোতে পারে। তা শুধু বিশাল হাওরে নয়, সারা বাংলায়ও।

কৃষক খাদ্যনিরাপত্তার পাহারাদার। সেই পাহারাদারই অরক্ষিত। কৃষক চায় সার্বিক আর্থিক সুরক্ষার গ্যারান্টি। যা সরকারের হাতে। সুরক্ষা নিশ্চিত করা অপরিহার্য্ই কেননা জাদুর চেরাগবাতি কৃষকেরই হাতে।

# রফিকুল ইসলাম: সাংবাদিক-কলামিস্ট, সহযোগী সম্পাদক, ‘আজকের সূর্যোদয়', ঢাকা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর