কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে পোল্ট্রি ব্যবসায় ধস ॥ এক লাখ লোক বেকার হওয়ার আশংকা


 সাইফুল হক মোল্লা দুলু | ১৬ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:২৩ | অর্থ-বাণিজ্য 


কিশোরগঞ্জে পোল্ট্রি ব্যবসায় ধস নেমেছে। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে পোল্ট্রি শিল্পের বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি এ ব্যবসার সাথে জড়িত অসংখ্য তরুণ-তরুণী বেকার হয়ে পড়েছে।

সরকারের সহযোগিতা ছাড়া প্রায় সম্পূর্ণ ব্যক্তি মালিকানাধীন এ কৃষি শিল্পটি কিশোরগঞ্জে অর্থনীতির চাকাকে দীর্ঘদিন ধরে সচল করে হাজার হাজার শ্রমিকের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছিল। কিন্তু সারা বিশ্বে আকস্মিক করোনার মতো মরণঘাতি ভাইরাসের কারণে খামার শিল্প বিপর্যয়ের মুখে পড়ে।

জেলা প্রাণিসস্পদ বিভাগ জানান, কিশোরগঞ্জে ছোট-বড় মিলিয়ে পোল্ট্রি ফার্মের সংখ্যা পাঁচ হাজারের মতো। পোল্ট্রি ফার্ম, পোল্ট্রি খাদ্য উৎপাদন ও ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছে এক লাখেরও বেশি মানুষ। কিশোরগঞ্জের পোল্ট্রি ফার্মে উৎপাদিত মাংস ও ডিম রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লf, নরসিংদী, হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ হয়ে থাকে।

পোল্ট্রি ব্যবসায়ীরা জানান, গত দেড় মাসে করোনা ভাইরাসের কারণে তারা তাদের উৎপাদিত মাংশ ও ডিমের বাজার গত দুই দশকে সবচেয়ে কমদামে চলে গেছে। তাছাড়া ডিম ও মাংশ স্বাভাবিকভাবে জেলার বাইরে পাঠাতে পারছেন না।

ফলে খামার মালিকরা ১২০ টাকায় উৎপাদিত মুরগি ৬০ টাকায় বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। ডিম শেষে যে মুরগির ৪০০ টাকায় বিক্রি হতো বর্তমানে তা ১৫০ টাকায় বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন।

১০০টি ডিমের মূল্য নূন্যতম ৭০০ টাকার স্থলে বর্তমানে করোনার কারণে গ্রামের বাজারগুলোতে তা ৪৫০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকায় বিক্রি করে লোকসান গুণছে খামারি ও সাধারণ কৃষক। এ অবস্থায় কিশোরগঞ্জে প্রায় পাঁচ শতাধিক খামার ইতোমধ্যে বন্ধ হয়ে পড়েছে।

সদর উপজেলার হাবিব পোল্ট্রি ফার্মের মালিক মো. হাবিবুর রহমান জানান, কাটাবাড়িয়া এলাকায় অবস্থিত তাঁর ফার্মে ১৫০০ মুরগী ছিল। করোনার কারণে ঢাকায় মাল পাঠাতে না পেরে স্থানীয় বাজারে সমুদয় মুরগী বিক্রি করে ৬০ হাজার টাকা লোকসান দিয়ে খামার বন্ধ করে দিয়েছেন। ব্যবসা বন্ধ থাকায় তিনি চোখে অন্ধকার দেখছেন।

একই কথা বলেন সাদুল্লারচর এলাকার ব্যবসায়ী মো. নজরুল ইসলাম, তমাল মিয়া, খালেদ সাইফুল্লাহসহ ২০ জনের বেশী ব্যবসায়ী।

জেলা পোল্ট্রি ব্যবসায়ী এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. সাদিকুর রহমান জানান, ডিম উৎপাদনের জন্য তাঁর খামারে ৩৫০০ মুরগী ছিল। ডিম দেওয়া মুরগী তৈরী করতে প্রতিটি মুরগী পেছনে ৪০০ টাকা খরচ হয়।

করোনা ভাইরাসে আসার কারণে ডিম বাজারে সরবরাহ করতে না পারায় সাত লাখ টাকা লোকসান দিয়ে সমুদয় মুরগী বিক্রি করে দিয়েছেন। এখন তাঁর ব্যাংকের সিসি ঋণ বন্ধ হয়ে গেছে। তিনি বিকল্প ব্যবসার কথা ভাবছেন।

ব্যবসায়ী ও ভুক্তভোগীরা দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, আশি দশকের শেষদিকে গড়ে উঠা কিশোরগঞ্জে পোল্ট্রি শিল্প বেকার লোকের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে অর্থনীতি ও বেকার সমস্যা ঘোচাতে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছিল।

এ ব্যবসায় যুক্ত ছিল জেলার হাজার হাজার বেকার শিক্ষিত, অর্ধ শিক্ষিত সহ অশিক্ষিত নারী পুরুষ শ্রমিক। এ ব্যবসার মাধ্যমে তারা জীবনের সন্ধান খুঁজে পান। সারা জেলায় এক লাখেরও বেশি মানুষের জীবন-জীবিকা এই ব্যবসার উপর নির্ভরশীল ছিল। করোনা ভাইরাস দিন দিন সবকিছু কেড়ে নিয়ে তাদের বেকার করেছে।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সবচেয়ে বৃহৎ অগ্রণী এগ্রো কমপ্লেক্স মালিক মো. শাহজাহান জানান, করোনার কারণে তার ক্ষতির পরিমাণ প্রায় এক কোটি টাকা। তাছড়া ৪৬ জন দক্ষ কর্মীর মধ্যে ৩০ জনকে বাধ্য হয়ে ছাঁটাই করতে হয়েছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম জানান, করোনার কারণে কয়েকশ’ ফার্ম বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে কিশোরগঞ্জে খামার ব্যবসা অস্তিত্বহীন হয়ে পড়বে। হাজার হাজার মানুষ বেকার হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর