কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

এগিয়ে চলছেন সানজিদা



 ডেস্ক রিপোর্ট | ২৬ মার্চ ২০১৮, সোমবার, ১২:৪৮ | নারী 


সকল দেশেই নারীরা দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছেন। থেমে নেই বাংলাদেশের নারীরাও। কর্মস্থল থেকে শুরু করে সামাজিক পর্যায়েও পুরুষের পাশে নারীদের অবস্থান এখন বেশ শক্ত। নারীরা এখন আর ঘরে বসে নেই। পড়াশুনা করে তারা স্বনির্ভর হচ্ছেন নিজ প্রচেষ্টায়। অনেক বাঁধাবিপত্তি থাকা সত্ত্বেও তারা থেমে নেই। স্বপ্ন দেখছেন নতুন কিছু করার। নিজের জন্য, পরিবারের জন্য, দেশের জন্য অবদান রাখার। শুধু চাকরীই নয়- নারীরা এখন ব্যবসাকে পেশা হিসেবেও বেছে নিচ্ছেন। নিচ্ছেন নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ। নিজেকে গড়ে তুলছেন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে। এমনই একজন সানজিদা। পুরো নাম সানজিদা আক্তার নিতু। বাবা মায়ের এক মাত্র মেয়ে। জন্ম পটুয়াখালিতে। সানজিদার পড়াশোনা ম্যানেজমেন্ট, অনার্স ফাইনাল ইয়ার। ঢাকায় ইডেন কলেজে।

সানজিদা ছোট বেলায় স্বপ্ন দেখতেন বড় হয়ে চিত্র নায়িকা হওয়ার। দিন গড়াতে থাকে। সেদিকে যাওয়া না হলেও স্বপ্নে তৈরি হয় তার নতুন মাত্রা, নতুন দিক। ফ্যাশান ডিজাইনে পড়ার প্রবল ইচ্ছে জাগে তার মধ্যে। যদিও এই বিষয়ে তার বিস্তর পড়াশোনার সুযোগ মেলেনি। কিন্তু কথায় আছে- স্বপ্ন এমনই। গাছের মতই। সুযোগ পেলেই বড় হতে শুরু করে। নিজেকে মেলে ধরে। বর্তমানে সানজিদা একজন একজন সফল উদ্যোক্তাই বলা যায়। কাজ করছেন পোশাক বিপণনে। গড়েছেন নিজের প্রতিষ্ঠানও। শুধু পোশাকই নয়। তিনি ক্রেতাদের পছন্দের অনেক পণ্যই সরবরাহ করে থাকেন।

২০১১ সালে জামায় ব্লকের কাজ করে তার পথ চলা শুরু। কিন্তু এতোদূর আসাটা মোটেও তার জন্য সহজ ছিলো না। হাতে কোন নগদ পুঁজি ছিলোনা। আবদার করেন বাবার কাছে টাকার জন্য। কিন্তু না পেয়ে দুই হাজার টাকায় সানজিদা তার মোবাইলটি বিক্রি করে দেন। বলা যায় ব্যবসায় এটাই তার প্রথম বিনিয়োগ। কিন্তু এতো অল্প পুঁজিতে কি আর ব্যবসা সম্ভব! তাছাড়া প্রতিযোগিতার এ শহরে তাকে টিকতে হলে জানতে হবে অনেক কিছুই।

শিখতে হবে বাজার চাহিদা। সানজিদা ফ্যাশান ডিজাইনের উপর হাতে কলমে শিক্ষা নেন অনেকের কাছ থেকে। বাস্তবিক জ্ঞান অর্জন করেন অনেক প্রতিষ্ঠান থেকে। তার অন্য সহপাঠীরা অবসরের যে মুহূর্তটা গল্প গুঁজব করে কাটিয়ে দেয় সানজিদা তখন দৌড়ে বেড়ায় এ শহরের জামা কাপড়ের পাইকারি মার্কেটগুলোতে। কাপড়ের কোয়ালিটি, কোথায় তৈরি হয়, নতুন নকশা, সুতার মান, বাজারে কিভাবে বিক্রি হয়, অনলাইনে কেমন চাহিদা এসবের উপর জানার চেষ্টা করেন। শুরুটা হয় তার অনলাইনেই। ফেসবুকের মাধ্যমে। সানজিদা ‘লাইফস্টাইল’ নামের একটি ফেসবুক পেইজও খুলেন। সেখানে নতুন ডিজাইনের পোশাক বিশেষ করে মেয়েদের পোশাকের পোস্ট দেন।

ব্যাস এভাবেই তার পথ চলায় একটি গতি আসে। আরও একটু একটু করে মসৃণ হতে থাকে। কিন্তু এভাবে আর কতোদূর! বুঝতে হবে ক্রেতাদের চাহিদা ও রুচি। যেকোনো ব্যবসার প্রচারে তাই ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন প্রধান বিষয়। সানজিদা তার ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ান। কখনো সরাসরি কখনো ফোনে কখনো চ্যাটিংয়ে ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেন। তাদের পছন্দ মত পোশাক ডিজাইন করে তা সরবরাহ করেন। আরও কিছু টাকা জমিয়ে তিনি মিরপুর- ১ এ একটা দোকানও নিয়ে ফেলেন ইতিমধ্যে। সেখানে নিয়োগ দেন সেলাই এর কারিগর।

বেড়ে যায় তার পরিশ্রমের মাত্রা। এদিকে ক্রেতাদের কাছ থেকেও আসে বেশ সন্তোষজনক সাড়া। বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে আটজন কর্মচারী নিয়মিত কাজ করছে। রয়েছে সাজানো গোছানো একটি অফিসও।

জানতে চাওয়া হয় তার কাছে- কখনো বাধার সন্মুখিন হোন নি?

তিনি বলেন- বাধার সন্মুখিন হই নিয়মিতই। কিন্তু আমি যদি থেমে যাই তাহলে স্বপ্নের কি হবে? আমার সঙ্গে যুক্ত কর্মচারীদের কি হবে? আমার একটা দায়বদ্ধতা আছে। আর সফলতা পেতে চাইলে আমাকে থামলেতো চলবে না।

আপনার এ ব্যবসার প্রসারে কি ধরণের সহযোগিতা পেলে আপনি আরও সফল হতে পারবেন বলে মনে করেন?

জবাবে তিনি হাস্যজ্জল মুখে বলেন, আসলে শুধু টাকা থাকলেই এ পেশায় সফল হওয়া যায়না। ক্রেতাদের পছন্দ ও চাহিদাকে দিতে হবে অধিক গুরুত্ব। পণ্যর মান ভাল না হলে কখনোই ব্যবসাকে এগিয়ে নেয়া যাবেনা। তবে হ্যাঁ আমি চাইলেও অনেক কিছু করতে পারছিনা। তার পেছনে আর্থিক দিকটাও বড় একটা ভূমিকা রাখে। যদিও আমার মা আমাকে অনেক বেশী সাপোর্ট দেন। তবে বন্ধুদের কাছ থেকেও বেশ সহযোগিতা পাই। নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য আর্থিক লোনের পর্যাপ্ততা থাকাটাও জরুরী। সানজিদা তার সুখ দুঃখ ভাগাভাগি করেন তার প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী, কর্মকর্তাদের সঙ্গে। অবসর পেলেই তিনি ছবি আঁকেন। স্বপ্ন দেখেন তার মত অন্য নারীরাও নিজেকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলুক। নারীরা স্বাবলম্বী হোক। বাঁধাবিপত্তিকে জয় করুক।

এভাবেই নিজ উদ্যোগে এগিয়ে চলছেন সানজিদা আক্তার নিতু।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর
















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ