কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা: দুর্দিনে মানবিক হই, মানবিকতা জাগ্রত হোক


 মাজহার মান্না | ১৮ এপ্রিল ২০২০, শনিবার, ৪:৪১ | মত-দ্বিমত 


নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। বর্তমানে এটি মহামারী আকার ধারণ করেছে। প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে এবং মারাও যাচ্ছে। বাংলাদেশ এই পৃথিবীর মানচিত্রের বাইরে নয়। বাংলাদেশেও বাড়ছে এ সৃষ্ট মহামারীর প্রাদুর্ভাব। এই দুর্যোগ মোকাবেলায় আমাদের একহয়ে কাজ করতে হবে। তবে এ কথা সত্যি, এই মহামারীতে কারো হাত ছিল না যে এটা লুকোনোর কোনো বিষয়। বরং প্রথম থেকেই কার্যকর ব্যবস্থা নিলে হয়তোবা এই ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হতো না।

বৈশ্বিক চলমান মহামারীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ চলছে। চলছে কর্মহীন মানুষের জীবিকা চলার বন্দোবস্ত। কিন্তু এর মাঝেও যেন মানুষের শান্তি মিলে না। সবার মাঝে বিরাজ করছে একধরনের নীরব হাহাকার। যেন কিছুতেই সামগ্রিক বিষয় তাদের পূরণ হবার নয়। উন্নত বিশ্বের মানবিক রাজনীতি আর আমাদের স্বার্থান্বেষী রাজনীতির মধ্যে অনেক তফাৎ, অনেক ফারাক আছে। রাজনীতি হতে হবে দেশের জন্য, মানুষের জন্য। কিন্তু সে রাজনীতি কি আমাদের দেশে আছে?

বৈশ্বিক সমস্যায় প্রতিদিন মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। এতে করে নতুন আঙ্গিকে প্রত্যেহ ধরা দিচ্ছে প্রকৃতির রূহ আচরণ। যা মানুষের দীর্ঘশ্বাসকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে অতল গহ্বরে। এই ক্রান্তিকালে সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবান ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যেখানে একহয়ে অসহায় মানুষের পাশে এসে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে। সেখানে কতিপয় রাজনীতিবিদের বক্তৃতা-বিবৃতিতে অনৈক্যের সুর বাজে।

মানুষের কল্যাণে যদি রাজনীতি হয় তাহলে কেন এই সংকটকালে আমরা একহতে পারছি না। রাজনীতির ঘেরাটোপ থেকে বোধহয় আর কোনদিন বের হতে পারব না। অথচ এই দুযোর্গকালে দলমত নির্বিশেষে সবাই কাধে কাধ মিলিয়ে একে অপরের সহযোগিতা করার কথা। কিন্তু দুঃখজনক যে, অনেক ক্ষেত্রে তা পরিকল্পিত হচ্ছে না। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য।

মহামারী করোনা মোকাবেলায় বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। উন্নত প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার করেও যেন মৃত্যুর মিছিল থামাতে পারছে না। বিশ্বের অনেক সরকার প্রধান তাদের জনগণের জীবন বাঁচানোর জন্য প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের সরকার প্রধানও জনগণের দুঃখ দুর্দশা লাঘবে আন্তরিকতায় কাজ করছেন। কিন্তু যাদের চরিত্রই আজন্ম লোভ-লালসায় ভরপুর সেখানে মানুষের অসহায়ত্ব কি আসে-যায়। এ কথা বলার যথেষ্ট কারণও রয়েছে। কেননা আজ এই সংকটের মধ্যেও হতদরিদ্র মানুষের ত্রাণের চাল-ডাল লুটপাট করতে মত্ত রয়েছে এক শ্রেণির ব্যক্তি চরিত্রার্থ মানুষ।

ইতিহাসের মহানায়ক শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন স্বাধীন দেশকে উন্নতি শিখড়ে পৌঁছে দিতে প্রাণপণ লড়াই করে গেছেন। তিনি এ বাংলার মাটি ও মানুষকে প্রচন্ড ভালোবাসতেন বলেই নিজেকে গর্ববোধ করতেন। এ জন্য তিনি বাঙালি মানুষ ভুল করলেও ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টি দেখতেন। বাংলার জনগণের জন্য রাজনীতির অভিজ্ঞতা থেকে বঙ্গবন্ধু একদিন বলেছিলেন ‘মানুষ পায় দেশ স্বাধীন করে সোনার খনি আর আমি পেলাম চুরের খুনি’।

বর্তমান দুর্যোগ পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতির মন্দাভাব ও মানুষের কষ্ট লাঘবে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। এ সময়ে সরকারদলীয় কিছু অর্থলোভী মানুষ অসহায় মানুষের খাবার লুটপাটে নিমোজ্জিত হওয়ায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। বারবার দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। এরপরও ত্রাণের চাল-ডাল চুরি বন্ধ হচ্ছিল না। নিরুপায় হয়ে সারাদেশে ওএমএস’র চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করে বলেছেন, ‘বাবা কম্বল চোরদের ক্ষমা করেছেন, আমি চাল চোরদের ক্ষমা করবো না’।

স্বার্থপরদের উদ্দেশ্যে বলা জাতির এ কলঙ্ক মুছতে দিন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নে ঘেরা সোনার বাংলাকে স্বার্থক হতে দিন। তার জন্য দরকার স্বার্থপরতা পরিহার করে সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া। সামর্থ্যবান ব্যক্তি এ সময়ে অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান। এখন দলমত নির্বিশেষে সব ভুলে এক হওয়ার উপযুক্ত সময়।

জাতির এ সংকটকালে এখন প্রয়োজন আত্মশুদ্ধি। আমাদের মাঝে ফিরে আসুক সুস্থ রাজনীতি। সকলের শুভবুদ্ধির উদয় হোক। হিংসা-বিদ্বেষ, দলাদলি ভুলে হয়ে উঠি মানবিক। সব রং মিশিয়ে আমরা একটা রঙে রঙিন হই-মানবিক রঙে। সবার মাঝে জাগ্রত হোক মানবিকতা। তবেই না আমরা বলতে পারব ‘মানুষ মানুষের জন্য’।

# মাজহার মান্না: সাংবাদিক-লেখক ও কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর