কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

মোবাইল ফোনেই চালু আর বন্ধ হচ্ছে সেচ পাম্প, কৃষকের হাসি



 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ২৬ মার্চ ২০১৮, সোমবার, ৪:০২ | কৃষি 


প্রতিনিয়তই প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে উঠছে সবকিছু। তার ধারাহিকতায় পিছিয়ে নেই কৃষি বিভাগও। কৃষি বিভাগকেই বর্তমানে সবচেয়ে বেশি প্রযুক্তির ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। উদ্ভাবন করছেন নতুন নতুন কৃষি প্রযুক্তি ও কৃষি কাজের সহজ উপায়।

এবার প্রযুক্তির মাধ্যমে পাকুন্দিয়ায় চালু হয়েছে সেচ পাম্প চালু-বন্ধের কার্যক্রম। মোবাইল ফোন ডিভাইসের মাধ্যমে দেশের যেকোন প্রান্ত থেকে একটি কলেই খুব সহজে সেচ পাম্প চালু ও বন্ধ করা যাবে।

কিছুদিন পূর্বেও যেখানে জমিতে সেচ দেওয়ার জন্য লোকজন লাইনে দাড়িয়ে থেকে একজনের পর একজনকে পালা করে জমিতে সেচ দিতে হতো। সে জায়গায় এখন মোবাইল কলের মাধ্যমে সেচ পাম্পের সুবিধা পাচ্ছেন সেই কৃষকেরা।

সরেজমিনে উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকের আদিত্যপাশা বাগানবাড়ীতে গিয়ে দেখা যায়, মোবাইল কলের সাহায্যে সেচ পাম্প চালু ও বন্ধ করার বিষয়টি। জানতে চাইলে বাগান বাড়ী সেচ পাম্প কমিটির সভাপতি ও আদিত্যপাশা বাগানবাড়ী সিআইজির সভাপতি আতিকুর রহমান বলেন, পাকুন্দিয়া উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকের আদিত্যপাশা গ্রামে আমরা সিআইজিভুক্ত ও ননসিআইজিভুক্ত কৃষকরা মিলিত ভাবে একটি গভীর নলকূপ পরিচালনা করে আসছি। যা বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন এর সহযোগিতায় বাস্তবায়িত হয়েছে। এই সেচ পাম্পে সেচের পানি অপচয় রোধ করার জন্য বারিক পাইপের মাধ্যমে সেচ প্রদান করা হয়ে থাকে। সেচ পাম্প হতে প্রায় ১৮০০ফুট দূর পর্যন্ত জমিতে বারিক পাইপের মাধ্যমে সেচ দেওয়া হয়ে থাকে।

সম্প্রতি আমাদের সিআইজির মাসিক সভায় কৃষি বিষয়ক আলোচনায় জানতে পারি যে, সেচ পাম্প চালু ও বন্ধের জন্য আবিস্কার করা হয়েছে মোবাইল ডিভাইস। যা দিয়ে কল করেই সেচ পাম্প চালু ও বন্ধ করা যায়। তারপর আমরা বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন মাধ্যমে ডিভাইসটি সংগ্রহ করে সেচ পাম্পের সাথে সংযুক্ত করি। এখন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তা চালু ও বন্ধ করি।

আদিত্যপাশা বাগান বাড়ী সিআইজির সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম বলেন, পূর্বে সেচ মৌসুমে লোডশেডিং হলে প্রায় ১৮০০ফুট দূর থেকে গিয়ে সেচ পাম্প চালু ও বন্ধ করতে হতো। আর এখন দেশের যে কোন প্রান্তেই থাকিনা কেন সেখান থেকে যদি পাম্প চালানোর প্রয়োজন হয়, তা হলে পাম্প চালানোর জন্য মোবাইলের একটি কলই যথেষ্ট।

উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, মোবাইলের মাধ্যমে কৃষি সেবা প্রদানের জন্য বেশ কিছু বিষয় যুক্ত করা হয়েছে। তার মধ্যে এটিও অন্যতম। এই পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে জমির পানির প্রয়োজন অনুসারে সেচ দেওয়া যায়। পানির পরিমাণ কম লাগে, আর মালিক বা ম্যানেজার যে কোন জায়গা থেকে সেচ পাম্প পরিচালনা করতে পারবেন। শ্রমিকের খরচও কম লাগবে। যার দরুণ কৃষকের উৎপাদন খরচ কম হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, এ পদ্ধতিতে সেচ পাম্প পরিচালনা করলে কৃষকের শ্রম, সময় ও খরচ কম হবে এবং সঠিক সময়ে পরিমাণমত পানি দেয়া যাবে। যার ফলে ফসলের উৎপাদন বেড়ে যাবে। এর সফলতা দেখে উপজেলার সকল সেচ পাম্পেই কৃষকেরা এই প্রযুক্তি ব্যবহার করবেন বলে তিনি মনে করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ