কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাজিতপুরে হতদরিদ্র, প্রতিবন্ধী ও তৃতীয় লিঙ্গদের মাঝে খাদ্য উপহার বিতরণ


 স্টাফ রিপোর্টার | ২০ এপ্রিল ২০২০, সোমবার, ১:৪৮ | বাজিতপুর 


বাবা এইডা (খাদ্য সামগ্রী) না পাইলে কালহা (আগামীকাল) কাউনের (খাওয়ার) কোন বাও (ব্যবস্থা) ছিল না, আল্লা হেরারে হায়াত দিক রোজগার বাইরা দিক” কান্না জড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন খাদ্য উপহার পাওয়া কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার উলকান্দি গ্রামের মনোয়ারা বেগম (৬৫)।

হতদরিদ্র মনোয়ারর মতো রস্তমপুরের শুক্কর আলী (৭১), উলুকান্দির খান্দা পাড়ার পছন্দআলী (৭০), গোথালিয়া গ্রামের প্রতিবন্ধী মো. দুলাল মিয়া (৫৮), তৃতীয় লিঙ্গধারী রুমা আক্তার (৪২)-সহ  পার্শ্ববর্তী ৩টি গ্রামের মোট ৪৫টি পরিবারের মধ্যে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা কামাল উদ্দিন মাস্টার মিমোরিয়াল ফাউন্ডেশন-এর সহায়তায় মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন-এর উদ্যোগে এডভোকেট মোজাম্মেল হক ভূইঁয়া ও তাঁর স্বেচ্ছাসেবকগণ সোমবার (২০ এপ্রিল) সকালে কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের গোথালিয়া প্রাইমারী স্কুল মাঠ প্রাঙ্গণে এলাকার খেটে-খাওয়া হতদরিদ্র পরিবার ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে করোনার ক্রান্তিকালে দুর্যোগকালীন প্রতি পরিবার প্রতি প্রায় ১৭ কেজির বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী উপহার স্বরূপ প্রদান করেন।

উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাউল, ডাল, পেঁয়াজ, আটা, লবণ, তৈল, চিনি, ছোলা বুট, আলু ও লবণ।

সরকারি বিধি-বিধান ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খাদ্য উপহার বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন বাজিতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য ও সাবেক মেম্বার এমরান উদ্দিন ভূঁইয়া (এংরাজ), মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন-এর সাধারণ সম্পাদক ঢাকা জজ কোটের এপিপি এডভোকেট মোজাম্মেল হক ভূইয়া, মিজাজ উদ্দিন মাস্টার, মো. বলো মিয়া, মাজহারুল হক ভূঁইয়া পল্লব, ইউনিয়ন যুবলীগের ওয়ার্ড সভাপতি সোহাগ ভূইয়া প্রমুখ।

এই বিষয়ে কামাল মাস্টার মিমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধার কানাডা প্রবাসী সন্তান এ্যারোনেটিক ইঞ্জিনিয়ার আবু সাঈদ খান সুমন বলেন, মোজাম্মেলসহ এই যুবকরাই সমাজের প্রাণ। তারা করোনার ঝুঁকি নিয়ে গ্রামের অতিদরিদ্র মানুষের জন্য আজ যে কাজটি করেছে তা মানবিকতার এক উজ্জ্বল দৃষ্ঠান্ত। আজ আবারও প্রমাণ হলো মানুষ মানুষের জন্য।

স্বেচ্ছাসেবক দলে ছিলেন মো. ফয়সাল মিয়া, মো. ইয়ামিন ভূঁইয়া, শয়াল চক্রবর্তী, আনোয়ার হোসেন, মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালার সহকারী শিক্ষক জনাব আতাউর রহমান ভূঁইয়া (আতিক), অফিস সহকারী  অখিল চন্দ্র নমদাস, শিক্ষা সহায়ক মো. মামুন ভূঁইয়া, ভ্যান চালক আব্দুল মান্নান ও মো. বাবুল মিয়া।

এই বিষয়ে বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাস্কৃতিক কর্মী নাসরুল আনোয়ার বলেন, মানুষের এই চরম দুর্দিনে অসহায় মানুষের পাশে যারা দাঁড়ায় তারাই সত্যিকারের মানুষ। আমি এই ধরণের উদ্যোক্তা এবং বাস্তবায়নকারীসহ মৃত্তিকাকে ধন্যবাদ জানাই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর