কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সংবাদ প্রকাশে তিনি মন্তব্যহীন


 খাইরুল মোমেন স্বপন, নিকলী | ১ মে ২০২০, শুক্রবার, ২:১৭ | রাজনীতি 


কোন ছবি তোলাতুলির ব্যাপার নেই। প্রয়োজন মনে করেন না জাতীয় পরিচয়পত্রের। তালিকারও ধার ধারেন না। হতদরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষ থেকে শুরু করে নিম্ন মধ্যবিত্তের যারই খাদ্য সংকট জানতে পারছেন, তার ঘরেই পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্য সামগ্রী।

করোনাযোদ্ধাদের দিচ্ছেন সুরক্ষা সামগ্রী। সেক্ষেত্রেও প্রচার প্রচারণার তোয়াক্কা করেন না। বরঞ্চ কোন মতেই কারও ব্যক্তিগত গোপনীয়তা নষ্ট না করতে সহযোগিদের প্রতি বিনীত সতর্কতা।

দেশে চলমান ক্রান্তিলগ্নে এই নিভৃতচারি ত্রাণদাতা কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ নূরন্নবী বাদল।

জানা যায়, করোনা সংক্রমণ শুরু হলে শহর বন্দর ফেরত মানুষের ভীড় বাড়তে শুরু করে গ্রামে। কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলে দেখা দেয় কর্মহীন মানুষের হাহাকার।

পিপিই সামগ্রীর সংকুলতায় নিকলী-বাজিতপুরে নিয়োজিত চিকিৎসাসেবকদের মধ্যে বিশেষ আতঙ্কের ছাপ পড়ে। পাশে দাঁড়ান কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ নুরন্নবী বাদল।

পুত্র যুক্তরাজ্য ছাত্রলীগের সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক শেখ রফিকুন্নবী সাথীর মাধ্যমে জরুরি খাদ্য সামগ্রী ও চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিতদের জন্য পিপিই সামগ্রী পাঠান ২৯ মার্চ।

নিজ উপজেলা বাজিতপুরের গণ্ডি ছাড়িয়ে নিকলীসহ ৩শ’ নিম্ন আয়ের পরিবারকে চাল, ডাল, আলু, তেল সমৃদ্ধ থলি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দেন। দুই উপজেলার স্বাস্থ্যকর্মিদের ৩৫ সেট ও সংবাদকর্মিদের ৫ সেট উন্নত মানের পিপিই দেন।

দলীয় নেতাকর্মি, স্থানীয় সংবাদকর্মি ও সামাজিক ব্যক্তিবর্গের সহযোগিতায় চালু রাখেন এই কার্যক্রম। নিজের পরিচয় গোপন রাখতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সহযোগিদের মোবাইল নম্বর ব্যবহার করেন।

মুখফুটে বলতে না পারা খাদ্য ঘাটতির পরিবারের খবর পাওয়া মাত্র রাতের আঁধারে পৌঁছে দেন খাদ্যসামগ্রী। সহযোগিদের সতর্ক করে দেন যেন কারও ব্যক্তিগত গোপনীয়তা নষ্ট না হয়।

৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ৭শ’ পরিবারকে সহযোগিতা দিয়েছেন। এই কার্যক্রম চলমান এবং এর সাথে যুক্ত থাকতে পেরে নিজেদের ধন্য মনে করছেন বলে জানান নিকলী উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা জেরিন সহ সংশ্লিষ্টরা।

মুঠোফোনে কথা হলে অ্যাডভোকেট শেখ নুরন্নবী বাদল এ প্রতিবেদককে জানান, যদি নিউজের জন্য জানতে চান তাহলে আমি বক্তব্যহীন। যদি এলাকার স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ব্যাপার থাকে তাহলে কিছু লাগলে বলতে পারেন।

সংবাদ প্রকাশই কারণ জানতে পেরে তিনি বলেন, জানান দিয়ে দান প্রতিদানেরই প্রত্যাশায় হয় বলে মনে করি। দেশের ক্রান্তিলগ্নে অনেক কিছুই করার ছিলো। সামর্থ্য সীমিত।

দেশের ক্রান্তিলগ্নে শেখ হাসিনা সরকারের বিশাল কার্যক্রমে এ আমার সাধ্যমতো অংশগ্রহণ মাত্র। ব্যক্তিগত নাম সুনাম দরকার নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর