কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফেসবুক স্ট্যাটাসে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কথা জানালেন অধ্যক্ষ শরীফ সাদী


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১৯ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:২৩ | রকমারি 


এক আবেগঘন ফেসবুক স্ট্যটাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছেন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ডের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদী।

মঙ্গলবার (১৯ মে) বিকালে অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদী তাঁর ফেসবুক আইডিতে এই স্ট্যাটাসটি দেন।

তিনি স্ট্যাটাসটির শিরোনাম দিয়েছেন ‘৩৬০ ঘন্টার আঁধারভেদী শ্বাপদসংকুল কফিন ভ্রমণ’।

স্ট্যাটাসে অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদী লিখেছেন, “বেদনার বর্ণ নাকি গভীর নীল। সেদিন ১৩ মে ২০২০। একটা লেখা পোস্ট করেছিলাম। ইংরেজি পোস্ট। একটু এসথেটিক ফর্মে। গভীরভাবে ক'জন লেখাটা দেখবে কিংবা পড়বে? সর্বসাধারণের জন্যে কিছুটা দুর্বোধ্য রেখেই লেখাটা ছেড়েছি। যদি ফাইনাল হয়ে যাই, তখন হয়তো অনেকেই লেখাটা পড়বে। তখন হয়তো বুঝবে। কী বলতে চেয়েছিলাম?

আকাশ এবং সাগরের গভীর থেকে নীল বর্ণের নির্যাস নিয়ে লিখেছিলাম, "everything is uncertain but one thing is certain that is to drop of a leaf from a tree."

হ্যাঁ, ঠিক এক বছর আগের ঘটনা। ২০১৯ এর ৯ মে সারাবিকেল পাগলাকান্দা গ্রামে বিলালের খেতে বোরো ধান কেটে সন্ধায় ওয়াহাব ভাই'র বাড়িতে ইফতার করি। অনিয়মের চূড়ান্ত করি। একটু বিশ্রাম নয়,ঘুম নয়। সারারাত আড্ডা,ভাজি-ভুজি খাওয়া, নির্ঘুম ১০ মে ২০১৯ সেহেরি খাওয়ার পর বিছানায় গড়াতে যাবো অমনি মাথায় চক্কর,মনে হলো হৃদযন্ত্রের উপর প্রচন্ড ধাক্কা। 'হুমায়ূন ভাই তাড়াতাড়ি রেডি হন। হাসপাতালে যেতে হবে'। দ্রুত কাপড় চেঞ্জ করে বাসা থেকে হাসপাতালের উদ্দেশ্যে বের হয়ে খুব ধীরে হাঁটতে শুরু করি। সাথে ভায়রা ভাই হুমায়ূন সাহেবকে এক হাতে ধরে এগুতে থাকি। এই সমস্ত বিষয়ে কখনো হৈচৈ পছন্দ করিনা। উপজেলা চেয়ারম্যান মামুনকে শুধু বললাম, তাড়াতাড়ি হাসপাতালে আয়।

আস্তে আস্তে হাঁটছি। রিকসা পাওয়া যায় কিনা। ৫০গজ হাঁটার পর মাথায় আবারও চক্কর। বসে পড়লাম রাস্তার কিনারে। ৫ মিনিট পর উঠে দাঁড়ালাম। আবার ধীর পায়ে শুরু করলাম। কোনরকমে গিয়ে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে পৌঁছেছি।

সেদিনই সকালে এম্বুলেন্সে ঢাকায়। অতঃপর অপারেশন। রিং লাগানো,৫ দিন পর সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে আসা।

এক বছর আগের ঐ দিনগুলো।

একটা পোস্ট দিয়ে স্মরণ করা। অনেকটা বার্ষিকী উদযাপনের মতো। এ বছর ঠিক যেন পুণরাবৃত্তি। আবার এক কঠিন,নষ্ট সময় আরো কঠিনভাবে ফিরে এলো।

সেই যে ৯ থেকে ১৮ মে ২০১৯ হাসপাতালের কঠিন সময়টাকে স্মরণ করছিলাম। সে সময়েও কাউকে জানাইনি। সফল চিকিৎসা সম্পন্ন করে বাসায় চলে এসেছি।

এবারও ৩৬০ ঘন্টার এক দুঃসহ জার্ণি।

এখনো জানাতে ইচ্ছে হয়নি। কিন্তু একা একা মৃত্যু-ভাবনায় তাড়িত হয়েছি।

৩০ এপ্রিল কিশোরগঞ্জ গিয়েছি। একমাত্র কন্যা অনাদিকে নিয়ে আসি ৩ মে। ৪ তারিখ অফিসে যাই। বন্ধের মধ্যে কিছু কাজ করবো। ৪,৫,৬,৭ মে চারদিন অফিসে বসে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফাইল ওয়ার্ক হাতে নেই।

৬ তারিখ থেকেই শরীরটা ব্যথা করছিলো। কিন্তু বুঝে উঠতে পারছিলাম না। ৭ মে বৃহস্পতিবার সারাদেহে প্রচণ্ড ব্যথা নিয়ে বাসায় ফিরে আসি। ইফতারির পর শরীরে জ্বর অনুভূত হয়। নিশ্চিত হয়ে যাই, আমাকে ধরে ফেলেছে। ৮ মে শুক্রবার আইসোলেশনের কথা স্ত্রীকে বলি।

তখনো কোন ডাক্তার না, কোন পরামর্শ না। অবশ্য আগে থেকে বাসায় সবাই কুসুম গরম লেবু পানি এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ পানি খাচ্ছি। কিন্তু আক্রান্ত হয়ে গেছি।

তখন মনোরাজ্যে তোলপাড়।

অন্তঃস্থলের অন্তরভূমিতে প্রচুর ভাংচুর ওলট-পালট শুরু হয়েছে।

রবি ঠাকুরের সাহসে উচ্চারণ করেছি ---

"মৃত্যু অজ্ঞাত মোর

আজি তার তরে

ক্ষণে ক্ষণে শিহরিয়া

কাঁপিতেছে ডরে

এত ভালোবাসি বলে

হয়েছে প্রত্যয়

মৃত্যুরে আমি ভালো

বাসিবো নিশ্চয়"

---- মৃত্যু এমনই এক বাস্তব সত্য যে, মৃত্যু সম্পর্কে বিশ্বাসের প্রয়োজন পড়ে না। স্বাভাবিক চিন্তা ও মননের মানুষ সবচাইতে বেশী ভয় করে মৃত্যুকে। তাই সবসময় মৃত্যুকে এড়িয়ে পালিয়ে বেড়াতে চায়। তবু মৃত্যুকে আলিঙ্গন না করে কোনও উপায় নেই মানুষের।

মনে হয়েছে মৃত্যুর বি-শা-ল কালো অন্ধকার পর্দাটা ঘিরে ধরতে ক্রমশঃ এগিয়ে আসছে আমার দিকে, আমি মৃত্যুর হিমশীতল পরশের ভিতর দিয়ে ধীরে ধীরে হাঁটছি। ফিরে আসার এমন ভাগ্য সবার জোটে না, যাদেরবা জোটে তারা সম্ভবত আরো কিছু সদগুণ ও সৎকর্মের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়।

আমারও তাই হচ্ছিলো। এখানেই মৃত্যু-চেতনার সৌন্দর্যবোধ, জানিনা এই চেতনাবোধ কখনো শিথিল হয়ে যায় কিনা। অন্ততঃ নিজের বেলায় বলতে পারি, মানুষ দেশ সমাজ জাগতিক পরিবেশের কল্যাণ কাজে সবসময়ই নিয়োজিত ছিলাম। এই মুহূর্তে মনে হচ্ছে আরও কিছু কল্যাণ কাজ অনিষ্পন্ন রয়ে গেছে। সুকৃতি অপূর্ণ রেখেই কি নিঃশেষ হয়ে যাবো? কিন্তু পরক্ষণেই মনে হয়েছে, না-তো? নিঃশেষ বা সমাপ্তি তো কিছু নেই। সবকিছু তো গতিশীল চলমান। বিজ্ঞান ও দর্শন তো এক জায়গায় অন্তরঙ্গে অন্তমিলে সাক্ষাৎ করেছে। বিজ্ঞানী আইনস্টাইন ও দার্শনিক রবীন্দ্রনাথ তো এক জায়গায় মিলেছেন। আইনস্টাইনী অবিনশ্বরতা, আপেক্ষিকতা কিংবা রাবিন্দ্রিক মহাকালের কাছে, অনন্ত অসীমতার কাছে বস্তুজগতের নিঃশেষিত হওয়ার অনন্ত প্রশ্নের সঠিক উত্তর নেই, চূড়ান্ত সমাপ্তি নেই। অমৃত সত্তার থমকে যাওয়া বা শেষ পরিণতি কী? নেই তো। এ তো অসীম অনন্ত প্রবহমান। জীবণপ্রবাহ তাই মৃত্যুহীন। বস্তু অবিনশ্বর কেবল রূপান্তর ঘটে। আমি তো মহাকালের এক ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অস্তিত্ব। ভয় কীসের? রূপান্তরিত সত্তা আরো প্রবলবেগে প্রবল সৌন্দর্যের মানবকল্যাণবোধে এগিয়ে যাবো। আর এখানেই মৃত্যু ভয়কে তুচ্ছ করে দুরন্ত সাহসী হয়ে এগিয়ে গেছি। মৃত্যু-আঁধার পর্বত শৃঙ্গ ডিঙিয়ে একা একা ঐ পারে তুষার ধবল আলোকিত আনন্দময় লোকালয়ের পানে ৩৬০ ঘন্টা ছুটে চলেছি।

রবির ভাষায় বলেছি,"ইচ্ছে করে জীবণের প্রত্যেক সূর্যোদয়কে সজ্ঞানভাবে অভিবাদন করি এবং প্রত্যেক সূর্যাস্তকে পরিচিত বন্ধুর মতো বিদায় দিই"।

আমার এই সুকঠিন যাত্রাপথে মানসিক সাহস সহধর্মিণী, নিজের ৩ জৈব উত্তরাধিকার। ডা. হান্নান ভাই(রেজিস্ট্রার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়) সার্বক্ষণিক সাহস, চিকিৎসা পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন ডা. শামসুল হক মিলন।

মানসিক শক্তি দিয়েছেন মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিক্ষা সচিব মহোদয় মাহবুব হোসেন, মহাপরিচালক ড. গোলাম ফারুক সাহেব। কৃষিবিদ মশিউর রহমান হুমায়ূন ও আওয়ামী লীগ অফিস ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, দুজন সহকর্মী সাজু ভাই ও নাজিম তালুকদারকে জানিয়ে রেখেছিলাম।

অন্য সবাইকে আড়ালে রেখেছি। হৈ চৈ হবে, হা-হুতাশ হবে। ফোনের যন্ত্রণা বাড়বে। বউ-বাচ্চারা আরো বেশী কষ্ট পাবে। তাই বলিনি।

"কেমন আছেন" প্রশ্নের উত্তর দিয়েছি এভাবে, "মোটামুটি"। ৭/৮ জন ছাড়া কাউকে পূর্ণাঙ্গ সত্য 'কভিড ১৯ পজিটিভ' কথাটি বলা হয়নি।

এর মধ্যে মোবাইলে যারা যে বিষয়ে কথা বলেছেন, সবার সাথে প্রাসঙ্গিক কথা বলেছি। দেশে-বিদেশে সবার সাথে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা-পর্যালোচনা কথা-বার্তা হয়েছে। ভাই-বোন, আত্মীয়-পরিজন কেউ টের পায়নি, আমি ভয়ংকর জীবাণুর সাথে যুদ্ধে রত।

এখন মনে হচ্ছে, আনন্দলোকে সূর্যোদয়ের সাথে সাক্ষাৎ হতে পারে। হয়তোবা বলতে পারি, হে নতুন ভোর তোমাকে অভিবাদন।

তথাপি যেতে তো হবেই একদিন। তবে এই কঠিন সময়ে বেশ কিছু কবি দার্শনিক বিজ্ঞানীর সাথে ক্ষণিকের সৌজন্য সাক্ষাৎ হয়েছে। সেখান থেকেও সাহস সঞ্চয় করতে সক্ষম হয়েছি।

Emily Dickinson বলেছেন, "Because I could not stop for death".

কবি Henry Scott Holland বলেছেন, "Death is nothing at all.

I have only slipped away into the next room.

Call me by the old familiar name."

KHODA HAFEJ.”




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর