কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

এবার প্রেমের টানে ফিলিপাইনের তরুণী কুড়িগ্রামে



 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ২৮ মার্চ ২০১৮, বুধবার, ৯:০৯ | সারাদেশ 


প্রেমের টানে নিজ দেশের গণ্ডি পেরিয়ে সুদুর ফিলিপাইন থেকে আকস্মিকভাবে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় প্রেমিকের বাড়িতে ছুটে আসেন তোফাইয়া ইয়াসমিন নামে এক তরুণী। সোমবার (২৬ মার্চ) প্রেমিক রুবেলের বাড়িতে আসেন ফিলিপাইনের ওই তরুণী। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ফুলবাড়ী উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের অনন্তপুর মাঠেরপাড় গ্রামে প্রেমিক রুবেল আহমেদের বাড়িতে বিদেশি ওই তরুণীকে দেখতে শতশত মানুষ ভিড় জমায়।

রুবেল আহমেদ বলেন, গত ১০ বছর ধরে সিঙ্গাপুরে থাকার বদৌলতে একটি গ্লাস কোম্পানিতে কর্মরত থাকা অবস্থায় ফিলিপাইনের ফারান্দ ইসলামের মেয়ে ইয়াসমিনের সঙ্গে পরিচয় হয়। সেই পরিচয় থেকেই হয় পরিণয়।

৫ বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলাকালীন অবস্থায় সম্প্রতি ছুটিতে বাংলাদেশে আসেন রুবেল। দীর্ঘ পাঁচ মাস ধরে তাদের মধ্যে দেখা না হওয়ায় প্রেমের টানে ইয়াসমিন বাংলাদেশে চলে আসেন।

প্রেমিক রুবেল আহমেদ যোগ করেন, ‘সম্পর্কের বিষয়টি পরিবারের লোকজন জানার পর স্বীকৃতি দেয়। রোববার (২৫ মার্চ) ইয়াসমিন বাংলাদেশে আসলে ওইদিনই ঢাকায় একটি আদালতে এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ে করি।’

রুবেলের বাবা বেলাল হোসেন বলেন, ‘আমি একজন কৃষক। ছেলের ভালোই আমার ভালো। তারা যেহেতু একজন আর একজনকে পছন্দ করে, তাই এ সম্পর্ক মেনে নিয়ে কোর্টের মাধ্যমে বিয়ে দিয়েছি। বাড়িতে অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই এলাকাবাসী ও আত্মীয়-স্বজনদের বৌ-ভাত খাওয়ানো হয়েছে। ছেলে-ছেলের বউয়ের জন্য সবার দোয়া কামনা করছি।’

রুবেলের চাচা ও সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল খালেক জানান, রুবেল ও ইয়াসমিনের বিয়ের পর বাড়িতে বৌ-ভাতের আয়োজন করা হয়েছে। এক সপ্তাহ পর নতুন এই দম্পতি আবারও সিঙ্গাপুরে কর্মস্থলে ফিরে যাবে।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার ফুয়াত রুহানী এবং কাশিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ