কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে গণপিটুনিতে গরু চোর নিহত, পিকআপ-অস্ত্রসহ আটক ২


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ২২ মে ২০২০, শুক্রবার, ১:২৩ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে গরু চুরি করতে গিয়ে গণপিটুনিতে রাসেল (২৭) নামে এক চোর নিহত হয়েছে। এছাড়া গরু চুরির কাজে ব্যবহৃত পিকআপ গাড়িসহ দুই চোরকে আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।

শুক্রবার (২২ মে) ভোর রাতে কটিয়াদী উপজেলার বনগ্রাম  ইউনিয়নের বনগ্রাম পশ্চিমপাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

গণপিটুনিতে নিহত রাসেল কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার চৌদ্দশত ইউনিয়নের জালুয়াপাড়া গ্রামের রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, একদল চোর হুমায়ুন কবীর বাদলের বড় তিনটি গরু চুরি করে নিয়ে যাওয়ার জন্য গোয়াল ঘর থেকে বের করে পাশে একটু দূরে জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখান থেকে পিকআপে উঠানোর সময় পাশের লিচু বাগানের পাহারাদারের চোখে পড়ে।

পাহারাদার গরুর মালিক বাদল মিয়াকে ডেকে বিষয়টি জানালে বাদল মিয়া তার গোয়ালঘরে গরু না পেয়ে ডাকচিৎকার শুরু করেন এবং পাশর্^বর্তী মসজিদের মাইক থেকে এলাকাবাসীকে সহযোগিতার আহ্বান জানান।

মাইকিং শুনে চোরদল গাড়ি নিয়ে পুরাতন রেললাইনের পাশ দিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এদিকে এলাকাবাসী গ্রামের সকল রাস্তায় জড়ো হয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।

পরে একই গ্রামের লতিফ মাস্টারের বাড়ির পাশে পিকআপ গাড়িসহ তাদের আটক করে গণপিটুনি দেয়। গণপিটুনি খেয়ে পালানোর সময় রাসেল ব্রীজের নিচে পানিতে পড়ে যায়। শুক্রবার (২২ মে) ভোরে ব্রীজের নিচে পানিতে তার লাশ পাওয়া যায়।

এছাড়া শাহীন (২৩) ও আনান (৩৫) নামে দুইজনকে আটক করে গণধোলাই দেয়। এ সময় অন্যরা পালিয়ে যায়।

আটক দুইজনের মধ্যে শাহীন সদরের জালুয়াপাড়া গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে ও আনান নোহার গ্রামের মৃত নূর ইসলামের ছেলে।

খবর পেয়ে গচিহাটা তদন্ত কেন্দ্র ও কটিয়াদী মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চোরাই কাজে ব্যবহৃত একটি পিকআপ ও পিকআপে থাকা দেশীয় ধারালো অস্ত্র ও নিহতের লাশ উদ্ধার করে।

গরুর মালিক হুমায়ুন কবীর বাদল জানান, তার গরু তিনটির আনুমানিক মূল্য দুই লাখ টাকা হবে।

বনগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মশিউর রহমান রিটন বলেন, ঘটনার সংবাদ পেয়ে গ্রামবাসীকে নিয়ে চোরদলকে তাড়া করে তিনজনকে আটক করি। এরমধ্যে একজন পালাতে গিয়ে পানিতে পড়ে মারা যায়। অন্যদেরকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করি।

কটিয়াদী মডেল থানার ওসি এমএ জলিল বলেন, আটককৃতদের গাড়ি থেকে ধারলো দেশীয় অস্ত্র (চাপাতি, ছোরা) উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

গণপিটুনিতে নিহতের ঘটনায় একটি এবং চুরির ঘটনায় একটিসহ মোট দু’টি মামলার প্রস্তুতি চলছে। এছাড়া এ ঘটনায় জড়িত পালিয়ে যাওয়াদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর