কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন করে ছয়জনের করোনা শনাক্ত, মোট আক্রান্ত ২৯০


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৭ মে ২০২০, বুধবার, ৭:৪০ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ জেলায় সর্বশেষ বুধবার (২৭ মে) সন্ধ্যায় পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে নতুন করে আরো ছয়জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯০ জন। বৃহস্পতিবার (২১ মে) জেলায় সংগৃহীত মোট ১০২ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ (আইপিএইচ) এ পাঠানো হয়েছিল।

বুধবার (২৬ মে) সন্ধ্যায় নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়। এই ১০২ জনের নমুনার মধ্যে তাড়াইল উপজেলায় সংগৃহীত ৪৭ টি নমুনা ইনভেলিড বা বাতিল হয়ে যায়। বাকি ৫৫ টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ছয়জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার (২৬ মে) পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ২৮৪ জন।

বুধবার (২৭ মে) নতুন করে আরো ছয়জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯০ জনে।

এদিকে নতুন করে জেলায় দুইজন করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়েছেন। এর আগে জেলায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ছিল ১৮৫ জন। ফলে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮৭ জন।

বর্তমানে জেলায় মোট ১০১ জন করোনা রোগী এবং ছয়জন সাসপেক্টটেড বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন। এর মধ্যে অন্য জেলায় শনাক্তকৃত ৬ জন করোনা পজেটিভ রয়েছেন।

বুধবার (২৭ মে) রাত পৌনে ৮ টার দিকে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে বৃহস্পতিবার (২১ মে) সংগৃহীত ১০২ জনের নমুনার মধ্যে তাড়াইল উপজেলায় সংগৃহীত ৪৭টি নমুনা ইনভেলিড বা বাতিল হয়েছে।

বাকি ৫৫ জনের নমুনার মধ্যে ৪৯ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া ৬ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া এই ৬ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৫ জন এবং হোসেনপুর উপজেলার একজন।

ফলে বুধবার (২৭ মে) রাত পর্যন্ত পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ২৯০ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৩৩ জন, হোসেনপুর উপজেলার ৯ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ২৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩৫ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৭ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১১ জন, ভৈরব উপজেলায় ৮৩ জন, নিকলী উপজেলায় ৫ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ২১ জন, ইটনা উপজেলায় ১২ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২৫ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে ৮ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন। মারা যাওয়া ৮ জন হলো, করিমগঞ্জ উপজেলার জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়া গ্রামের সেলিম মিয়া (৪৬), কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের বড়বাজার টেনু সাহার গলি এলাকার নিতাই (৬০), হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পানান গ্রামের ১০ বছর বয়সী শিশু মিজান, কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের মাতুয়ারকান্দা গ্রামের মোস্তফা মিয়া (৬০), কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের বাট্টা গ্রামের তরুণ ভূইয়া (৪০), বাজিতপুর পৌরসভার চারবাড়িয়া এলাকার মো. আল আমিন মিয়া (৬০), ভৈরব পৌরশহরের চণ্ডিবের দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা মৎস্য ব্যবসায়ী অমিয় দাস (৬০) এবং মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের ঘাগড়া মীরহাটির রফিকুল ইসলাম (২৭)।

এছাড়া রোববার (২৪ মে) ভোরে ঢাকা শিশু হাসপাতালে শনাক্তকৃত ২২ মাস বয়সী কোভিড-১৯ পজেটিভ শিশু কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিকৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

মঙ্গলবার (১৯ মে) সংগৃহীত তার দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। সে অন্যান্য জন্মগত ত্রুটিতে ভুগছিল।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২১ মে) বিকালে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা হুমায়ুন সিদ্দিকী (৫৫) নামে এক করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। মারা যাওয়ার পর ওইদিনই (২১ মে) পাওয়া তার দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর