kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

বেগুনের কেজি তিন টাকা, বাম্পার ফলনেও কৃষকের হতাশা



 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ২৯ মার্চ ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৭:৫৫ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় পানির দরে বিক্রি হচ্ছে লম্বা জাতের বেগুন। তিন থেকে চার টাকা কেজিতে উপজেলার তারাকান্দি, জাঙ্গালিয়া, নতুন বাজার ও মির্জাপুর বাজারে পাইকারিভাবে বিক্রি হচ্ছে বিটি জাতের বেগুন।

গত বছর ফলন অনুযায়ী ভালো মূল্য পেয়ে এ বছর অধিক লাভের আশায় বেশি পরিমাণ জমিতে বেগুনের চাষ করেছিলেন এখানকার কৃষকেরা। এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বেগুনের বাম্পার ফলনও হয়। উপজেলার পৌরসদরসহ জাঙ্গালিয়া, চরফরাদী, এগারসিন্দুর ও চণ্ডিপাশা ইউনিয়নে ব্যাপক পরিমাণে বেগুন চাষ হয়েছে। এছাড়াও অন্যান্য ইউনিয়নগুলোতেও কমবেশি বেগুন চাষাবাদ হয়েছে।

কিন্তু বেগুনের এমন বাম্পার ফলনেও হাসি নেই কৃষকের মুখে। কাঙ্ক্ষিত বাজার মূল্য না পেয়ে চরম হতাশ তারা। বেগুন চাষাবাদে যে খরচ হয়েছে তা তুলে আনাও কষ্টকর ব্যাপার হয়ে পড়ছে। এ পরিস্থিতিতে অনেক বেগুন চাষিই হতাশ হয়ে বেগুন জমির পরিচর্যা ছেড়ে দিয়েছেন। রাগ-ক্ষোভ- হতাশায় অনেকে আবার কষ্ট করে ফলানো বেগুন ফেলে দিচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত মৌসুমে এ উপজেলায় বেগুন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ ছিলো ৬৫ হেক্টর জমি। আবাদ হয়েছিল লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২০ হেক্টর বেশি অর্থাৎ ৮৫ হেক্টর জমিতে। এই মৌসুমে আবাদ হয়েছে গতবারের চেয়েও পাঁচ হেক্টর বেশি অর্থাৎ ৯০ হেক্টর জমিতে।

পৌরসদরের চরপাকুন্দিয়া গ্রামের বেগুন চাষি মহব্বত মিয়া জানান, এবছর তিনি এক কানি (৩৫শতাংশ) জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। এতে শ্রমিক খরচ বাদে তার খরচ হয়ে ২০হাজার টাকা। কিন্তু বর্তমান বাজার দরে লাভ তো দূরের কথা চালান ওঠোনোই দায় হয়ে পড়েছে বলে তিনি জানান। এসময় তিনি গত বছরে ২০শতাংশ জমিতে বেগুন চাষ করে ১লাখ ২০হাজার টাকা বিক্রি করতে পারলেও এবছর বেগুন চাষ করে তিনি লোকসানের মুখে পড়েছেন বলে হতাশা প্রকাশ করেন।

একই সুরে কথা বলেন বেগুন চাষি সুরুজ মিয়া, দুদু মিয়া, দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া ও শফিকুল ইসলাম মেম্বার।

বেগুন চাষি মো. সুরুজ মিয়া জানান, বাজারে বেগুনের দামে তিনি খুবই হতাশ। এবছর তিনি এক কানি (৩৫ শতাংশ) জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। তিনি হতাশার সুরে বলেন, চরম লোকসানের কারণে রাগে বেগুন জমিতে পরিচর্যা ছেড়ে দিয়েছি। গত বছর বাজার ভালো ছিলো, লাভও হয়েছিল। কিন্তু এ বছর গত বছরের তুলনায় ভালো ফলন ফলিয়েও দাম পাওয়া যাচ্ছে না।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, রোগবালাই হয় না এমন জাতের বেগুন চাষের জন্য কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। এছাড়া এবছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বেগুনের ভাল ফলন হয়েছে। কৃষকদের সমন্বয় করে বাজার ব্যবস্থা গঠন করা হলে ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত হতো। এছাড়াও সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে উপজলার জাঙ্গালিয়া ও হোসেন্দি ইউনিয়নে সবজি সংরক্ষণের জন্য কোল্ড স্টোরেজ নির্মাণের চিন্তা করা হচ্ছে। এতে করে মৌসুমে সবজি সংরক্ষণ করে পরে সুবিধা মতো সময়ে বাজারে বিক্রি করলে কৃষকরা ন্যায্য মূল্য পাবেন বলে আশা প্রকাশ করেন এই কৃষিবিদ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ