কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা পরিস্থিতিতেও জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা অব্যাহত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৬ জুন ২০২০, শনিবার, ৬:৫০ | স্বাস্থ্য 


সারা দেশে কোভিড-১৯ সংক্রমণের ফলে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলেছে। এই কঠিন পরিস্থিতিতে নানা ধরণের রোগব্যাধিতে আক্রান্ত মানুষ স্বাভাবিক চিকিৎসা সেবা পেতে যখন দিশেহারা, তখনও বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের সকল নিয়মিত চিকিৎসা সেবা অব্যাহত রেখেছে।

সরজমিনে দেখা যায়, হাসপাতালের বহির্বিভাগে প্রতিদিন অসংখ্য রোগী দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে  চিকিৎসা সেবা নিতে আসছেন এবং হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণ নিয়মিত বহির্বিভাগে রোগী দেখছেন।

বহির্বিভাগ ছাড়াও সকল অন্তঃবিভাগ/ওয়ার্ড, ডায়ালাইসিস, ইসিজি, ইকো, ইটিটি, সিসিইউ, এইচডিইউ, আইসিইউ, প্রি মেচিওর তথা অপরিপক্ষ বয়সে জন্ম নেয়া  বাচ্চাদের বিশেষ যতেœর জন্য এনআইসিইউ, সকল ধরণের অপারেশন, নরমাল ডেলিভারি, ফিজিওথেরাপি কার্যক্রম আব্যাহত রয়েছে।

পাশাপাশি যে সকল বিভাগে ২৪/৭ সার্ভিস অব্যাহত রয়েছে সেগুলো হলো হাসপাতালের জরুরী বিভাগ, প্যাথলজি বিভাগ, এক্স-রে, আলট্রাসনোগ্রাফি, সিটিস্ক্যান, ব্লাডব্যাংক এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অ্যাম্বুলেন্স।

এর ফলে বর্তমান এই কঠিন সময়ে দেশের নানা প্রান্তে নিয়মিত চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হওয়ার কথা উঠলেও জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ব্যতিক্রম এবং সাধারণ মানুষের আস্থা আর বিশ্বাস নিয়ে নিয়মিত তাদের সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

হাসপাতালে আসা রোগীদের করোনা সংক্রমণ মুক্ত রাখতে এ বছরের শুরু থেকেই নানা ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করে রাখে হাসপাতাল প্রশাসন।

করোনা মোকাবেলায় প্রস্তুতির অংশ হিসেবে হাসপাতাল প্রশাসন, ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্যদের সমন্বয়ে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট র‌্যাপিড রেসপন্স টিম গঠনসহ হাসপাতালের প্রবেশ পথে জীবাণুমুক্ত ফগিং শাওয়ার টানেল, ফুটবাথ, প্রবেশ পথ সহ হাসপাতালের নানা স্থানে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছে।

হাসপাতালের অভ্যন্তরে সকলের মাস্ক পরিধান বাধ্যতামুলক করা ছাড়াও হাসপাতালে প্রবেশ পথে সকলের শরীরের তাপমাত্রা মেপে হাসপাতালে প্রবেশের অনুমতি দিচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালের বহির্বিভাগের টিকিট কাউন্টারের সামনে সামাজিক দূরত্ব  বজায় রেখে গোলবৃত্ত এঁকে দেওয়া হয়েছে, ডাক্তারদের চেম্বারের সামনে প্রত্যকটি বেঞ্চের মাঝে সামাজিক দূরত্ব রাখাহয়েছে। এতে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক সুপারিশকৃত সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকছে।

একই সঙ্গে হাসপাতালে আগত সবাই যেন এসব বিষয় মেনে চলেন সে জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিরলস পরিশ্রম এর পাশাপাশি নানা ধরণের সচেতনতামূলক পোস্টার এর মাধ্যমে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

সর্দি, কাশি, জ্বর, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে আসা রোগীদের আলাদাভাবে স্ক্রিনিং ও চিকিৎসা সেবা দেওয়ার জন্য তৈরি করা হয়েছে ফ্লুকর্ণার।

এছাড়া জরুরি স্বাস্থ্য সমস্যায় সেবা নিশ্চিত করতে হটলাইনের মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা টেলিমেডিসিন সার্ভিস খোলা রাখা হয়েছে।

বর্তমানের এই সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক বাহার উদ্দীন ভূঁইয়া বলেন, সার্বিক ঝুঁকি মোকাবিলায় একাধিক সতর্কতা গ্রহণ করে আমরা সবোর্চ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি সকলকে যথাযথ চিকিৎসা সেবা দিতে। আমাদের হাসপাতালের বর্হিবিভাগ খোলা রাখা হয়েছে, বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণ প্রতিদিন নিয়মিত বহির্বিভাগে রোগী দেখছেন, নিয়মিতভাবে অসংখ্য রোগীরা তাদের চিকিৎসা নিয়ে যাচ্ছেন।

আমরা করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকেই সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে আমাদের চিকিৎসা সেবা অব্যাহত রাখায় বর্তমানের দেশের দুরবর্তী জায়গা থেকেও এসে আমাদের এখানে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন।

হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক বাহার উদ্দীন ভূঁইয়া হাসপাতালে আগত প্রত্যেক ব্যক্তিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নির্দেশনা মেনে চলতেও অনুরোধ করেন।

এছাড়া সম্ভাব্য যে কোনো জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় হাসপাতালকে সংক্রমণ মুক্ত রেখে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক বাহার উদ্দিন ভূঁইয়া।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর