কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা পরিস্থিতিতেও প্রসব সেবায় অনন্য আচমিতার পরিবার পরিকল্পনা কর্মীদল


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৬ জুন ২০২০, শনিবার, ৯:২৯ | স্বাস্থ্য 


গর্ভবতী স্ত্রী তামান্নাকে নিয়ে খুব একটা চিন্তিত ছিলেন না স্বামী মাসুদ রানা। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকার কারণে প্রসব সেবা নেয়ার জন্য যে কোন পরিস্থতি মোকাবেলা করার মত সুযোগ ছিল। তবে বাঁধ সাধে করোনা পরিস্থিতি।

মধ্যরাতে যখন প্রসব ব্যথা উঠে তখন বেশ ঘাবড়ে যান মাসুদ রানা। রাত্রিবেলায় কোথায় পাবেন প্রসব সেবা, এনিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন তিনি। শুরু হয় বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ।

এক বন্ধুর মাধ্যমে জানতে পারেন, নিয়মিত স্বাভাবিক প্রসব সেবা দেয়া হয় আচমিতা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে। আর বন্ধু সেবা কেন্দ্রের বিষয়ে জেনেছেন ফেসবুকের মাধ্যমে।

ভোর ৫টার দিকে আচমিতা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয় তামান্নাকে। পরে সকাল ৯টার দিকে স্বাভাবিক প্রসবে এক কন্যা সন্তানের জন্ম হয়।

বলছিলাম কটিয়াদী উপজেলার চান্দপুর ইউনিয়নের বাট্টা গ্রামের বাসিন্দা তামান্না ও মাসুদ রানা দম্পতির কথা। এমন অনেক প্রতিকূল পরিবেশে থেকে পার্শ্ববর্তী উপজেলাসহ অনেক সেবাগ্রহণকারীদের নির্ভরযোগ্য সেবা কেন্দ্র হয়ে উঠেছে আচমিতা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি।

ঠিক এমন করেই নিয়মিত প্রসব সেবাসহ, স্বাস্থ্য এবং পরিবার পরিকল্পনা সেবা দিয়ে আসছে প্রতিদিন। কেন্দ্রটিতে প্রসবসেবা দেয়া হচ্ছে নিয়মিত ২৪ ঘন্টা ৭ দিন।

ফলে কিশোরগঞ্জ জেলার মধ্যে ইউনিয়ন পর্যায়ে একটি অনন্য ইউনিয়ন স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র হয়ে উঠেছে আচমিতা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র।

বর্তমান করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও স্বাভাবিক প্রসবসেবা কার্যক্রম অব্যহত রেখেছেন কেন্দ্রটি। নির্বিঘ্নে সেবা দিচ্ছেন কেন্দ্রটিতে কর্মরত কয়েকজন পরিবার পরিকল্পনা সহকারীসহ ১০জন কর্মী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৩১ মে পর্যন্ত গত ২ মাসে এই কেন্দ্রটিতে ৬৩ জন প্রসব সেবা নিতে এসেছেন। যেখানে স্বাভাবিক প্রসব সেবা দেয়া হয়েছে ৪৩ জনকে। বাকিদের নানান জটিলতার কারণে রেফার করা হয়েছে।

গত ২৮ এপ্রিল সকাল ৭টায় কটিয়াদী উপজেলার জালালপুর গ্রামের বাসিন্দা চম্পা ও রতন মিয়া দম্পতির স্বাভাবিক প্রসবে কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। চম্পা পরিবার জানান, তারা এই সেবায় অনেক সন্তুষ্ট।

গত ২৮ মে ভোর বেলা প্রসব ব্যথা নিয়ে আসেন বানিয়াগ্রামের বাসিন্দা মোছা. তাছলিমা বেগম। সকাল ১১টায় জমজ সন্তানের জন্ম হয়।

সেবা দানকারীর একজন পরিবার কল্যাণ সহকারী সুরাইয়া আক্তার খানম জানান, এই প্রথম এখানে জমজ সন্তানের জন্ম হলো। প্রথমে পুত্র এবং পরে কন্যা সন্তানের জন্ম হলো। এটি আমাদের জন্য একটা অভিজ্ঞতা। মা ও নবজাতক ভালো এবং সুস্থ রয়েছে। এতে বেশ আনন্দিত নবজাতকের বাবা মো. শাহজালাল।

সেবা কেন্দ্রে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করে থাকেন সিএসবিএ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত পরিবার কল্যাণ সহকারী সুরাইয়া আক্তার খানম, মিনারা খাতুন, খালেদা পারভীন এবং পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা মোছা. ফাতেমা ইয়াসমীন।

এছাড়া উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (এসএসিএমও) আজহারুল হক নিয়মিত চিকিৎসা সেবা এবং পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক রাজীব কুমার সরকার নিয়মিত তদারকি করে আসছেন।

এই কেন্দ্রটিতে ৭ জন পরিবার কল্যাণ সহকারীর মধ্যে ৫ জন, একজন আয়া ও একজন নৈশ প্রহরী রয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর