কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় মৌ-চাষে ভাগ্য বদলালেন ছফির উদ্দিন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ১০ জুন ২০২০, বুধবার, ১:৪১ | ফিচার 


ইচ্ছে ছিলো পড়াশোনা শেষ করে চাকরি নেবেন। সংসারের হাল ধরবেন। কিন্তু পড়ালেখার ফাঁকে শখের বসে জড়িয়ে পড়েন মধু ব্যবসায়। কঠোর পরিশ্রম আর ব্যবসা বুঝতে পারায় এখন তিনি সফল মৌ খামারী।

মধু ও মৌমাছি বিক্রি করে আর্থিকভাবেও হয়েছেন সচ্ছল। বেকারত্ব ছুঁতে পারেনি তাকে। মৌ-চাষের মাধ্যমে নিজের বেকারত্ব ঘুচিয়ে স্বাবলম্বী হওয়া এ যুবক হতে পারে অনেক বেকারের প্রেরণা।

কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মরহুম হাবিবুর রহমানের ছেলে মো. ছফির উদ্দিন।

দুই ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে ছফির উদ্দিন ষষ্ঠ। মঙ্গলবাড়িয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে তিনি আলিম পাশ করেছেন।

জানা যায়, ২০১১ সালে আলিম পরীক্ষা দেওয়ার পরে বসে না থেকে মধু বেচাকেনার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। বছর পাঁচেক এভাবে মধু কেনা-বেচা করতে করতে মৌ-চাষ সম্পর্কে ধারণা নিয়ে নেন।

পরে তিনি স্বল্প পরিসরে শুরু করেন মৌ-চাষের। প্রথমে ১০টি বাক্স দিয়ে শুরু করেন। পরবর্তীতে বাড়তে বাড়তে এখন তার ৫০টি বাক্স হয়েছে। প্রতিটি বাক্সে মধু সংগ্রহের জন্য ৮টি করে মৌচাক রয়েছে। আছে একটি করে রাণী মৌমাছি।

মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামে ছফির উদ্দিনের প্রতিষ্ঠিত ‘সহজে বাজার মৌ-খামার’-এ গিয়ে দেখা যায়, ভনভন করে শব্দ করছে অসংখ্য মৌমাছি। সারিবদ্ধভাবে সাজানো মৌমাছির বাক্স।

পাশেই মৌমাছির পরিচর্যায় ব্যস্ত থাকা ছফির উদ্দিনের সঙ্গে কথা হয়। তিনি এ প্রতিবেদককে জানান তাঁর মৌ খামারী হওয়ার কথা।

ছফির উদ্দিন জানান, মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামের লিচুর জন্য দেশজুড়ে খ্যাতি রয়েছে। লিচুর মৌসুমে মৌমাছির মাধ্যমে লিচুর মুকুল থেকে মধু সংগ্রহ করতে সুবিধের কথা চিন্তে করে মৌ-চাষের সিদ্ধান্ত নেন।

তাছাড়া আগে থেকে মধু ও মৌ-চাষ সম্পর্কে ধারণা থাকায় খামার করতে দুবার চিন্তা করতে হয়নি। খামারের মাধ্যমে মধু ও মৌমাছি বিক্রি করে তিনি এখন আর্থিকভাবেও সচ্ছল। লিচু, সরিষা, কালোজিরা, ধনিয়া ইত্যাদি জাতের মধু চাষ হয়ে থাকে তার খামারে।

তিনি আরও বলেন, ১০টি বাক্স দিয়ে শুরু হওয়া তার খামারে এখন মৌমাছি বাক্সের সংখ্যা ৫০টি। প্রতিটি বাক্সে ৮টি করে মৌচাক রয়েছে। এখন অফ-সিজন।

এছাড়া কয়েক মাস ধরে দেশজুড়ে লকডাউন চলায় বেচাকেনা কিছুটা কম। প্রতি কেজি মধু বিক্রি হয় ৬শ’ টাকায়। রাণী মৌমাছিসহ একটি চাকের দাম রয়েছে ৬শ’ টাকা। এর মাধ্যমে বেকারত্ব মোচনের পাশাপাশি আর্থিকভাবেও সচ্ছল হয়েছেন।

ভিডিও:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর