কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় বর্ষার শুরুতেই ব্যস্ত ছাতা মেরামতকারীরা


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ১৭ জুন ২০২০, বুধবার, ১০:৫১ | ছবির খবর  


এখন আষাঢ় মাস। শুরু হয়েছে বর্ষাকাল। কখনো থেমে থেমে, আবার কখনো একটানা মুষলধারে ভারী বর্ষণ। এ সময়ে ছাতা ছাড়া ঘরের বাইরে বেরুনো মুশকিল। আর সে ছাতা’য় যদি ফুটো কিংবা ভাঙা থাকে তবেই বিপত্তি।

আর এই বিপত্তির কবল থেকে পরিত্রাণ পেতে ছুটে যেতে হয় ছাতা মেরামত কারিগরদের কাছে। আর তাই বর্ষায় ভরসা এসব কারিগররা।

বছরের অন্য সময়গুলোতে ছাতা মেরামতের কাজ না থাকলেও বর্ষার এ মৌসুমে পুরোদস্তুর কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন তারা। রোজ ৮০০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা পর্যন্ত উপার্জন করে থাকেন একেকজন কারিগর।

তবে বছরের অন্য সময়ে অনেক কারিগরই ছাতা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানে চুক্তিভিত্তিক হারে ছাতা তৈরির কাজে নিয়োজিত থাকেন।

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার পৌরসদর বাজারে ছাতা মেরামতের কাজে ব্যস্ত থাকা কয়েকজন কারিগরের সাথে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

পৌরসদরের ন্যাশনাল ব্যাংকের নিচে বসে ছাতা মেরামত করছেন আবদুল কাদির নামের একজন। তাঁর বাড়ি কিশোরগঞ্জ সদরের মতলবপুর নান্দলা গ্রামে। ২৫-৩০ বছর ধরে তিনি এ কাজের সাথে জড়িত।

আবদুল কাদির জানান, এখন ছাতা মেরামতের ভরা মৌসুম। কিন্তু কি রোগ আইলো, মানুষজন ঘর থেকে বাইরে বের হয় না। কাজ-কাম কম হচ্ছে। এ মৌসুমে তেমন একটা কাজ পাবেন না বলে চিন্তায় আছেন তিনি।

একই জায়গায় বসা আরেক কারিগর অমরপুর গ্রামের চাঁন মিয়া। তিনিও দুই যুগ ধরে এ কাজ করে আসছেন। আজ এ বাজার, কাল ও বাজারে ছাতা মেরামত করে সংসার চলে তার।

কিন্তু এসময়ে বেশি কাজ-কামের সময় থাকলেও করোনার কারণে ব্যবসা তেমন ভালো যাচ্ছে না বলে জানান চাঁন মিয়া।

তাঁরা জানান, এক সময় বর্ষা মৌসুমে প্রচুর কাজ থাকতো। অন্য মৌসুমে কৃষিকাজ কিংবা ছাতা কোম্পানিতে চুক্তিভিত্তিক কাজ করে জীবিকা চলতো।

কিন্তু কালের বিবর্তনে পেশা পরিবর্তন করতে হচ্ছে। অনেকেই এ পেশা ছেড়ে অন্য পেশা বেছে নিয়েছেন। তারা বয়োবৃদ্ধ হয়েছেন, অন্য কাজ করা তাদের পক্ষে সম্ভব না। তাই বাধ্য হয়ে এ পেশাতেই পড়ে রয়েছেন তারা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর