কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সাদা শুভ্র রাজ কন্যা


 ইমরান হোসাইন | ১৯ জুন ২০২০, শুক্রবার, ১১:৫৯ | সাহিত্য 


আমার মনের জানালা থেকে আমি কোন দিন আমার অতীত কে মুছে ফেলতে পারি না। মানুষের জীবনে সবাই অতীত মনে রাখে না। আমার জীবনের সাথে কিছু অতীত কাপ্তাই লেকের স্বচ্ছ জলের মতো মিশে আছে।

ছোট বেলায় আমার নানী জানের কাছে আমি গল্প শুনেছি। নানীর প্রতিটা গল্পে থাকত এক সুন্দর রাজ কন্যা আর রাজপুত্রের গল্প। নানীর সেই গল্পে নিজেকে আমি সব সময় রাজ পুত্রই মনে করতাম। কিন্তু আমার জীবনের রাজ কন্যা সেই রাজ কন্যার চাইতে বেশী শান্ত উর্বশি সুন্দরী ছিল।

কোনো এক শ্রাবণের ভোরে আমি গিয়েছিলাম সত্য এক রাজ বাড়িতে। তবে তাদের এখন রাজ্য নেই। তবে রাজবাড়ী ঠিকেই আছে। সেই রাজ বাড়ির চার পাশে উচু ইটের প্রাচীর। গেইটে সামনে লেখা প্রবেশের পূর্বে অনুমতি আবশ্যক।

বাবার চাকুরী সুবাধে সেই রাজ বাড়ির পাশে আমাদের নতুন বাসা। আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা শেষ। আমার সেই রাজবাড়ি দেখার খুব ইচ্ছা হল। কিন্তু ভিতরে যাব কি ভাবে? রাজবাড়ির মানুষ কে সবাই সাহেব বলে ডাকে।

কথায় আছে না, ঢাল নাই তরবারি নাই নিধিরাম সর্দার। সাহেব বাড়ির মানুষগুলো ঠিক তেমনই। দুনিয়া চলে এসেছে যেই খানে নতুন ধারায় কিন্তু তারা পরে আছে সেই পুরাতন জড়াকে আঁকরে ধরে। তাদের নিয়ে লিখলে একটা নতুন আরব্য রজনী লেখা যাবে।

আমি একদিন খুব ভোরে কাউকে না বলে সেই বাড়িতে প্রবেশ করি। আমার খুব ইচ্ছা দেখি রাজবাড়ির কোন জীন পরী দেখতে পাই কিনা।

ভোরের বৃষ্টি ভেজা সেই বাড়িতে আমি যেন আষাঢ়ের সদ্য ফুটা এক কদম ফুল দেখি। তখনই জীবনানন্দ দাশের "আকাশে কাতর আঁখি তুলি হেরি ঝরাপালকের ছবি'র মতো তাকে দেখতে থাকি। আবার মনে পড়ে তার কবিতা- চুল তার কবেকার অন্ধকার বিদিশার নিশা, মুখ তার শ্রাবস্তীর কারুকার্য।

সেই রাজ কন্যাও আমাকে তার দুই নয়নের সব জ্যোতি দিয়ে অপলকে চেয়ে দেখে। এক তো সাহেব বাড়ির মেয়ে দ্বিতীয় তো সে রাজকন্যা। ধীরে ধীরে কত ভোরে আমাদের দেখা হয়েছিল ঠিক তার হিসাব নিলে লাইলি বা মজনুর মতো উপন্যাস হবে। রাজবাড়ির বাগান আর ভিতরের সানে বাঁধাই পুকুর আমার খুব ভাল লেগেছিল।

একদিন খুব ভোরে রাজবাড়ির পুকুরের ধারে বসে রাজ কন্যা আমার হাত ধরে বলেছিলো- 'আমি তোমাকে ভালোবাসি।' সেদিন সেই মনোরম ভোর রাজ কন্যার কানের কাছে মুখ রেখে ফিস ফিস করে কানে কানে আমিও বলেছিলাম- ' তোমাকেও আমি ভালোবাসি।'

শান্ত পুকুরের এই লাল শাপলার মতো রানী। আমাদের ভালোবাসার কথা শুনে পুকুরের জল রাজবাড়ির বাগান আর সকল ঘাস সেদিন সবুজ হয়ে উঠেছিল। পুকুরের জল হয়ে উঠেছিল চঞ্চল। হাসনা হেনা মালতি জুই আর বেল গাছ থেকে ঝরা পাতাগুলো ঝরে পড়ছিল আমাদের উপর।

তারপর কত বিকেল, কত সন্ধ্যায় আমি আর রাজকন্যা কত যে ভালোবাসা রচনা করেছি, সেকথা জানে পুকুরের জল বাগানের গোলাপ ঘাস আর প্রাচিন ইটের দালান। দিনগুলি আমার কাটছিল ভালোই।

চিঠি লেখা উত্তরের অপেক্ষা করা। কি মধুর দিন গুলো।

হঠাৎ একদিন সব এলোমেলো হয়ে গেল। এক ধূসর সন্ধ্যায় ঘাসে বসে রাজকন্যা আমাাকে বলেছিলো- 'তোমার সাথে আমার ঘর বাঁধা হবে না।'

সেদিন সেই সন্ধ্যায় আমি তার কাছে এর কোনো কারণ জানতে চাইনি। সোজা ঘাসের উপর দিয়ে হেঁটে হেঁটে সাহেব বাড়ির মাঠে এসে ঘাসের উপর ঘুমিয়ে রাত পার করে দিয়েছিলাম। পিছনে আর ফিরেও তাকাইনি।

তারপর অনেক বছর চলে গেছে। একদিন বিকাল বেলা খুব মন খারাপ লাগছিল। ভাবলাম- রাজবাড়িটা একটু দেখি একটু বেড়িয়ে আসি।

আমি বসেছিলাম যেয়ে সেইখানে, যেখানে বসে রাজ কন্যা হাতে হাত রেখে বলেছিলাম- 'ভালোবাসি'। এত বছর পরে আজ নিজেকে খুবই অপরাধি মনে হচ্ছিল, আফসোস করছিলাম- কেন সেদিন রাজ কন্যাকে বলিনি চল অপেক্ষা করি অনন্ত কাল দেয়াল ভাঙ্গার লড়াইয়ে।

পুকুর দেখে কেমন যেন হাঁপিয়ে উঠছিলাম। ঘাসগুলো সেদিনের মতো সবুজ। জল স্বচ্ছ আগের মতো - তবে আমাকে চেয়ে দেখছে। হাসনা হেনা গাছ থেকে মরা পাতাগুলো ঝরে পড়ছিল আজও - আমি খুব নীরবে হেঁটে যাই আর ভাবতে থাকি রাজ কন্যা তো সুখে আছে আমার ভাবনায় কেন তাকে কষ্ট দিব মিছেই মনে করে।

সময়ে মানুষ সব ভুলে যায় তবে মনের গভীরে যে শুদ্ধ নিঃশ্বাসের চাষ হয় তা কি ভুলা যায়! ভালো থেকো রাজ কন্যা সাদা মেঘের শাড়িতে। সাদা শুভ্র রাজ কন্যা।।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর