কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বর্ণবাদ: মানব সভ্যতার লজ্জা!


 মো. জসিম উদ্দিন | ১৯ জুন ২০২০, শুক্রবার, ১১:০২ | মত-দ্বিমত 


সম্প্রতি আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গ এথলেট জর্জ ফ্রয়েডকে সে দেশের একজন শ্বেতাঙ্গ পুলিশ অফিসার নির্মমভাবে হত্যা করে। ফলে আমেরিকা ছাড়াও যুক্তরাজ্যের লন্ডন, ফ্রান্সের প্যারিস, গ্রীকের এথেন্স, জাপানের টোকিও শহর সহ বিশ্বের সর্বত্র বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

এ ঘটনার কিছুদিন পর গত ১৪ জুন আমেরিকার আটলান্টা শহরে আরেক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ অফিসার একজন কৃষ্ণাঙ্গকে দিবালোকে গুলি করে হত্যা করে। এ হত্যাকাণ্ড সারা বিশ্বে বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভে ‘আগুনে ঘি ঢেলে দেয়া’র মত পরিস্থিতি তৈরি করে। ফলে বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভে বর্তমানে উত্তাল সারা বিশ্ব।

সারা পৃথিবীতে কালো আর সাদা মানুষে বৈষম্য শত শত বছর যাবত বিদ্যমান। এ বৈষম্য একে অপরের প্রতি ঘৃণা আর হিংসাকে চরমভাবে ছড়িয়ে দিচ্ছে। আমেরিকা সহ পৃথিবীর সর্বত্র বর্ণবাদ এখন পাশবিক, ঘৃণ্য ও পৈশাচিক রূপ নিয়েছে।

কোথায় নেই বর্ণবাদ! মানুষের খাবার টেবিল থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস, ক্লাসরুম, অফিস-আদালত, হোটেল-মোটেল, বিমান, বিমান বন্দরের লাউঞ্জে পর্যন্ত বর্ণবাদ অনুপ্রবেশ করেছে। এমনকি সারা বিশ্বের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ রাখার মাধ্যম যে ক্রিড়াঙ্গন, সে প্রিয় ক্রিড়াঙ্গনের সবুজ চত্বরে, ড্রেসিং রুমে পর্যন্ত বিষাক্ত বর্ণবাদী ছোঁয়া লেগেছে।

মানবাধিকার, গণতন্ত্র, মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন সুষম সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রবর্তনের মূর্ত প্রতীক বলে যারা নিজেদের দাবি করেন সেই আমেরিকান সমাজ ও রাষ্ট্রের কতটা গভীরে বর্ণবাদের শিকড় প্রোথিত ‘ফ্রয়েড হত্যাকাণ্ড’ দেখে তা অনুধাবন করা কঠিন নয়!

মূলত শত শত বছর যাবত সেখানে ‘কালো আর সাদা’ মানুষের মধ্যে বৈষম্য বিরাজমান যা বিভিন্ন ঐতিহাসিক তথ্য-উপাত্ত দ্বারা প্রমাণিত।

অথচ শত শত বছর ধরে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও আদর্শ সমাজ বিনির্মাণে সেখানকার কৃষ্ণাঙ্গদের অবদান অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই। ক্ষুদ্র থেকে বৃহত্তর পর্যায়ে বিভিন্ন স্তরে কৃষ্ণাঙ্গরা নিগৃহীত হচ্ছে। শ্বেতাঙ্গদের বর্ণবাদী আচরণ কালো মানুষদের জীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলছে।

বিশ্বব্যাপী এ বর্ণ বৈষম্যের শেষ কোথায়? সময় এখনই এর উত্তর ও সমাধান খোঁজার। যুগে যুগে মানুষে-মানুষে এ বৈষম্যের আধার দূর করতে নির্যাতিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ক্ষণজন্মা অনেক মনিষী ও মহান নেতৃবৃন্দ।

এসব মহান মনিষীর মধ্যে অন্যতম হলেন, বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মদ (সঃ)। মূলত ইসলাম ধর্ম প্রচারের পাশাপাশি সাম্যের ভিত্তিতে একটি শ্রেণী-বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠাই ছিল মহানবীর অন্যতম লক্ষ্য। দশম হিজরীতে বিদায় হজ্জের ভাষণ তার অন্যতম প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

এ ভাষণে তিনি মানুষের প্রতি মানুষের আচরণ কি হবে, একটি সমাজে কিভাবে বিভিন্ন জাতি, ধর্ম, বর্ণের মানুষ একত্রে বসবাস করবে, কিভাবে সমাজে শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় থাকবে, সেসব সুনিপুণভাবে লক্ষ লক্ষ মানুষের সামনে তুলে ধরেন। মহানবীর দেয়া এ ভাষণ ‘বিশ্ব মানবতার মুক্তির সনদ’ হিসাবে আখ্যায়িত। তিনি যে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ সমাজ সংস্কারক এ কথা সমাজ বিজ্ঞানীরা অকপটে স্বীকার করেন।

সারা বিশ্ব তথা ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যতম আরেক মনিষী মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী। তাঁর মতবাদের নাম ‘অহিংস মতবাদ’। এ অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমে তিনি ভাষা, ধর্ম, বর্ণ ও জাতি গোষ্ঠীর বিভক্তি থাকা সত্ত্বেও সকল ভারতীয়দের একত্রিত করে একটি বৈষম্যহীন, বর্ণবাদমুক্ত অসাম্প্রদায়িক জাতীয় রাষ্ট্র ও সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন। তাঁর এ ‘অহিংস মতবাদ আন্দোলন’ ছিল ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম চালিকা শক্তি। মূলত এ অহিংস মতবাদই পরবর্তীতে সারা বিশ্বের শোষিত ও বঞ্চিত মানুষের স্বাধীনতা এবং অধিকার পাওয়ার আন্দোলনের অন্যতম প্রেরণার উৎস হয়ে উঠে।

বিশ্বের অধিকার হারা মানুষের আরেক মহান নেতা হলেন নেলসন ম্যান্ডেলা। তিনি বর্ণবাদের বিরুদ্ধে দক্ষিণ আফ্রিকার সংখ্যাগরিষ্ঠ কৃষ্ণাঙ্গ মানুষে অধিকার আদায়ে সোচ্চার ছিলেন। এ জন্য তাঁকে আফ্রিকার তৎকালিন শ্বেতাঙ্গ শাসকগোষ্ঠী শাস্তি দেন। ফলে ১৯৬২ সালের ৭ নভেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত একটানা দীর্ঘ ২৭ বছর তাঁকে কারাগারে জীবন কাটাতে হয়। পরবর্তীতে বর্ণবাদ বিরোধী এ মহান নেতা নোবেল পুরস্কার পান এবং গণতান্ত্রিকভাবে দক্ষিণ আফ্রিকার নির্বাচিত প্রথম রাষ্ট্রপতির পদ অলংকৃত করেন।

বাঙালি জাতির মহান নেতা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন শোষিত ও অধিকার হারা মানুষের কন্ঠস্বর। তাঁর আজীবন লালিত স্বপ্ন ছিল, হাজার বছর ধরে বঞ্চিত বাঙালি জাতির জন্য একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। ১৯৭১ সালে এ মহান নেতার নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাঙালি জাতি স্বাধীনতা লাভ করে। বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বাঙালিরা তাদের অধিকার ফিরে পায়। এজন্য তাঁকে জীবন ও যৌবনের অধিকাংশ সময় অন্ধকার কারা প্রকোষ্ঠে কাটাতে হয়।

আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গ কিংবদন্তি নেতা মার্টিন লুথার কিং ‘নাগরিক অধিকার আন্দোলন’ এর মাধ্যমে আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গদের অধিকার আদায়ে সচেষ্ট হন। ১৯৬৩ সালের ২৩ আগষ্ট আড়াই লক্ষ আমেরিকানের এক সমাবেশে লিংকন মেমোরিয়ালের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি এক ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান করেন।

এ ভাষণের মূলমন্ত্র ছিল, ‘আই হ্যাভ এ ড্রিম’ অর্থাৎ ‘আমি স্বপ্ন দেখি’। -কি ছিল লুথার কিং এর সেই স্বপ্ব? তাঁর স্বপ্ন ছিল, একদিন হয়তো আমেরিকান সমাজ সহ সারা পৃথিবীতে বর্ণবাদ থাকবে না। ভাষণে তিনি বলেছিলেন- আমি স্বপ্ন দেখি, যে স্বপ্ন গাঁথা আছে আমেরিকার অস্তিত্বে। আমি স্বপ্ন দেখি, একদিন এই জাতি জাগ্রত হবে এবং মানুষের এই বিশ্বাসের মূল্যায়ন করবে, সব মানুষ জন্মসূত্রে সমান।

তিনি স্বপ্ন দেখতেন, আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গ ও শ্বেতাঙ্গ জনগোষ্ঠী একে অপরের হাত ধরে দেশকে শক্তি ও সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাবে। সারা বিশ্বে তারা বর্ণবাদের বিরুদ্ধ লড়বে। মানুষের জন্য বর্ণবাদমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দেবে।

কিন্তু আজ এসব মহান নেতাদের বৈষম্যহীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্নের প্রতিফলন বর্তমান বিশ্ব নেতৃবৃন্দ কতটা করতে পেরেছেন তা প্রশ্নবিদ্ধ। আমরা দেখতেই পাচ্ছি, বর্ণবাদের উম্মত্ত বিভীষিকায় কিভাবে চুরমার হচ্ছে এ সব মহান নেতাদের বর্ণবাদহীন, বৈষম্যহীন নিখিল সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন। পৃথিবী যেন আজ সভ্যতার মেকী সাজে সেজেছে। এ মেকী সভ্যতার আড়ালে বর্ণবাদী বর্বরতা যেন প্রতিটি রাষ্ট্রকে কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে।

তবে কি আজকের বিশ্বে মানুষের বর্ণবাদহীন সাম্যের সমাজ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন সুদূর পরাহত! নিশ্চয় এমনটি হতে পারে না।

আশার কথা হলো, জর্জ ফ্রয়েডের হত্যাকাণ্ড সারা দুনিয়ার মানুষের বিবেককে জাগ্রত করেছে। এর ফলে লক্ষ লক্ষ সাদা-কালো মানুষের বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভ আমেরিকার বিভিন্ন শহর পেরিয়ে আটলান্টিক মহাসাগরের উত্তাল জলরাশি অতিক্রম করে ইউরোপের বিভিন্ন নগরে এবং এশিয়া মাইনর হয়ে সারা বিশ্বব্যাপী আজ প্রতিবাদী ঝড় তুলেছে।

এ ছাড়া ফ্রয়েডের মৃত্যুতে সরব হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন ধর্মীয় নেতারা। সেখানে কৃষ্ণাঙ্গ ধর্মীয় নেতাসহ ক্যাথলিক প্রটেস্ট্যান্ট চার্চের যাজক, মুসলিম ইমাম, ইহুদি যাজক ও অন্যান্য ধর্মের নেতারাও প্রতিবাদে যোগ দিয়েছেন। সেই সাথে অনেক ডানপন্থী শ্বেতাঙ্গ নেতারাও বর্ণবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা রেখে চলেছেন। এতেই প্রমাণিত হয় পৃথিবীতে একদিন বর্ণবাদহীন শোষণমুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠত হবে।

আশা করি, বর্তমান বিশ্বের রাষ্ট্রনায়ক ও নেতৃবৃন্দ দ্রুত বিশ্বব্যাপী বর্ণবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিবাদী মানুষের মনোজগতের ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া উপলব্ধি করবেন এবং উল্লেখিত মহান নেতাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে সারা বিশ্বে বর্ণবাদহীন, বৈষম্যহীন শোষণমুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। এর অন্যথা হলে মানব সভ্যতা মানুষের দ্বারাই একদিন ধ্বংস হবে।

ভারতীয় উপমহাদেশ বিখ্যাত গণসংগীত শিল্পী ভূপেন হাজারিকা তার জনপ্রিয় একটি গানে বলেছেন- ‘আমায় একটি সাদা মানুষ দাও যার রক্ত সাদা, আমায় একটি কালো মানুষ দাও যার রক্ত কালো’। এ গানের অন্তঃমূলে নিহিত আছে, মূলত জন্মগত ভাবেই মানুষে-মানুষে কোন পার্থক্য নেই।

ক্ষমতার বিস্তার আর এর স্থায়ীত্বের জন্য যুগে যুগে শক্তিশালী মানুষেরা দূর্বল মানুষের পায়ে বর্ণ বৈষম্যের শিকল পড়িয়ে দিয়েছে। তাই সময় এসেছে এ শিকল ভাঙ্গার।

আর নয় সাদা-কালোর পার্থক্য, নয় কোন ঘৃণা, রক্তপাত ও হিংসা-বিদ্বেষের সশস্ত্র মহড়া। সারা বিশ্বে মানুষের জন্য, মানুষের দ্বারা তৈরি হোক বর্ণবাদহীন মানবতার সমাজ ও মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন রাষ্ট্র ব্যবস্থা, যেখানে সকল মানুষ নিরাপদে বাস করবে।

এ প্রসঙ্গে বাংলার মধ্যযুগের এক কবি বড়ু চণ্ডীদাস উচ্চারণ করেছিলেন মানব-ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠ মানবিক বাণী- ‘সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই’।

# মো. জসিম উদ্দিন, লেকচারার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ, ইটনা, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর