কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনাকালীন একাডেমিক পরীক্ষা নিয়ে ভাবনা ও শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতি


 বদরুল হুদা সোহেল | ২১ জুন ২০২০, রবিবার, ২:২১ | মত-দ্বিমত 


পরীক্ষা পেছালে সাধারণত শিক্ষার্থীরা খুশিই হয়। হরতাল বা যে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে পরীক্ষা পেছানোর দৃষ্টান্ত অতীতে অনেক রয়েছে। বিগত বছরগুলোতে কোন কোন সময় এ পরীক্ষা সাপ্তাহিক বন্ধের  দিন অর্থাৎ শুক্রবার নিয়ে নিয়ে শেষ করা হয়েছে। আর এতে করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা দুই পরীক্ষার মাঝে পড়াশুনার জন্য পর্যাপ্ত সময় ও সুযোগ পেয়ে খুশি হয়েছে।

কিন্তু বৈশ্বিক করোনা দুর্যোগের এই  মুহূর্তে সরকার বা শিক্ষা মন্ত্রণালয় এই বিকল্প পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারছে না। যার ফলে এইচএসসি (যা চলতি বছরের এপ্রিলে হওয়ার কথা ছিলো) পরীক্ষা পেছানো হয়েছে। এই পেছানোতে শিক্ষার্থীরা পূর্বেকার বছরগুলোর মতো আনন্দিত না হয়ে বরং সময় কাটাচ্ছে উদ্বেগ আর উৎকন্ঠায়।

অর্থনীতির গতিকে চাঙ্গা রাখার জন্য সরকার অবশ্য ১ জুন থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্যতিত সরকারি বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার শর্তে করোনা প্রকোপের মাত্রা পর্যবেক্ষণের অংশ হিসেবে ১৫ জুন পর্যন্ত খোলা রাখার সিন্ধান্ত নিয়েছিলো। কিন্তু জুনের শেষ দশকেও এর প্রকোপ কমছে না বলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত ফের বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

এহেন পরিস্থিতিতে সরকার বিভিন্ন এলাকাকে এলার্ট জোন হিসেবে বিভিন্ন রং এ চিহ্নিত করছেন। প্রায় সাড়ে তিন মাসেরও বেশি সময় আগে বন্ধ হওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কবে খোলা হবে এ মুহূর্তে তার উত্তর পাওয়া কঠিন। ফলে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবক মহলে উদ্বেগ বেড়েই চলেছে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. জিয়াউল হক অবশ্য ক্ষয়ক্ষতি বিবেচনা করে কয়েকটি প্রস্তাবের কথা বলেছেন। এক্ষেত্রে বার্ষিক পরীক্ষাগুলো তিনি নভেম্বরের পরিবর্তে ডিসেম্বরে নেয়ার পক্ষপাতী। তিনি জেএসসি, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা পেছানোর পক্ষে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বিভাগ শিক্ষাবর্ষকে ২ মাস বাড়িয়ে সিলেবাস শেষ করে তবেই বার্ষিক পরীক্ষা নেওয়ার কথা ভাবছে বলেও জানা গেছে। সে অনুযায়ী পরবর্তী বছরের ফ্রেরুয়ারি পর্যন্ত পাঠদান করার বিষয় চলে এসেছে। তবে অনেকেই এ প্রস্তাবে দ্বিমত পোষণ করেছেন।

এদিকে গত ৩১ মে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর কলেজগুলো একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির প্রক্রিয়া নিয়ে ভাবছে। হয়তো মাস দেড়েকের মধ্যে এ প্রক্রিয়া শেষ হবে, কিন্তু ওদিকে পূর্ববর্তী ব্যাচ এখনো দ্বাদশ শ্রেণিতে উঠতে পারেনি। এক্ষেত্রে সেশন জটের কবলে উচ্চমাধ্যমিক স্তর বাধাগ্রস্ত হবে বলে অনেকের ধারণা।

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষাও কবে হবে তা নিয়ে পর্যালোচনা হচ্ছে, যেহেতু প্রাথমিক স্কুলগুলো খোলা হবে সবার পরে। ক্লাসে সিলেবাস সম্পন্ন ব্যাতিরেকে কোমলমতি বাচ্চাদের পরীক্ষার দ্বারে ঠেলে দেয়া হবে নিতান্তই অবিবেচনাপ্রসূত। কোন কোন শিক্ষাবিদ পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষা বরাবরই বাতিলের পক্ষে। ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে ১৯৭১ এর পরীক্ষা ১৯৭২ এ নেয়া হয়েছিল। সে ধারণা কাজে লাগিয়ে এই পরীক্ষাগুলো কেউ কেউ পরবর্তী বছরে নেয়ার পক্ষে।

সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করে পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারেও প্রস্তাবনা রয়েছে। প্রস্তাবনাগুলোর বেশির ভাগই যৌক্তিক; তবে কবে নাগাদ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে তা না জানলে এখনই কোন কংক্রিট সিদ্ধান্তে পৌঁছানো ঠিক হবে না। কারণ সব প্রতিষ্ঠানে মার্চের মাঝামাঝি পর্যন্ত ক্লাস রুমেই পাঠদান হয়েছে। তাই সিলেবাসের কতটুকু শেষ হয়েছে বা কতটুকু বাকি রয়েছে তারও বিশ্লেষণের প্রয়োজন রয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললে সময় বলে দিবে কী কী করতে হবে। তখন উল্লিখিত প্রস্তাবনাসমূহ মাথায় রেখে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া কিছুটা সহজ হবে।

তবে এ মুহুর্তে যে পাবলিক পরীক্ষাটি সবচেয়ে বেশি আলোচনায় রয়েছে তা হলো এইচএসসি। কারণ এ পরীক্ষাটি প্রলম্বিত হলে তার প্রভাব পড়বে উচ্চ শিক্ষায়। এইচএসসি রেজাল্ট এর পর পরই বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির একটি তোড়জোড় শুরু হয়। মোটামুটি সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ভর্তি পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু করে থাকে।

গত বছর এইচএসসি রেজাল্ট প্রকাশিত হয়েছিল জুলাই এর মাঝামাঝি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছিল সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি। যার ফলে শিক্ষার্থীরা তিন মাস সময় পেয়েছিল ভর্তি যুদ্ধে নিজেকে প্রস্তুত করার।

এ বছর বড় কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া বাকি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সমন্বিত পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। তাই অনেকের ধারণা রেজাল্ট এর পর শিক্ষার্থীরা হয়তো আগেকার বছরের  মতো বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি প্রস্তুতির পড়াশোনার জন্য তিন মাস সময় নাও পেতে পারে।

এক্ষেত্রে অগ্রসর শিক্ষার্থীরা এখন থেকে প্রতিদিন নিয়মিত ঘন্টা দেড়েক বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল ভর্তির জন্য পড়াটা মূল পড়ার পাশাপাশি চালিয়ে যেতে পারে। এর জন্য পাঠ্যবই পড়ার বিকল্প নেই। তার পাশাপাশি প্রশ্নের প্যাটার্ন বুঝার জন্য শিক্ষার্থীরা মেডিকেল বা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিগত বছরের প্রশ্নব্যাংক দেখতে পারে।

আরেকটি বিষয় হলো, পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের জন্য এইচএসসি পরীক্ষা পেছানোর বিষয়টি একটি ভালো সুযোগ। বিগত কয়েক বছরের এইচএসসি ইংরেজি এবং আইসিটি বিষয়ের ফলাফলে ধ্বস পরিলক্ষিত হয়। এক্ষেত্রে তারা ইংরেজি ও আইসিটি বিষয়ে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে অন্তত আগামী এক-দেড় মাসের জন্য পড়াশোনার একটি রুটিন বানাতে পারে। শিক্ষার্থীদের তাদের বৈষয়িক দুর্বলতা উপলব্ধি করে প্রতিদিন ৮ থেকে ১০ ঘন্টা রুটিন মাফিক পড়ার টেবিলে সময় দেওয়া উচিত। যেহেতু এখন জরুরি কাজ ছাড়া বাইরে যাওয়া নিরুৎসাহিত করা হয়েছে, সেহেতু বিনোদনের জন্য তারা বাসায় বসে টেলিভিশন বা পরিবারের সদস্যদের সাথে বাকি সময় দিতে পারে।

পরীক্ষা প্রলম্বিত হওয়ায় অনেকেই পড়াশোনা থেকে বিচ্যুত হতে পারে। এজন্য অভিভাবকদের নজরদারি বেশি জরুরি। অনেকের দীর্ঘদিন ক্লাস থেকে দূরে থাকার কারণে আগ্রহ হারিয়ে ফেলতে পারে বা সিলেবাসের অন্তর্ভুক্ত কোন টপিক ভুলে যেতে পারে বা বুঝতে সমস্যা হতে পারে। সেক্ষেত্রে বাসায় থেকেও ক্লাস করা যেতে পারে। যেমন সংসদ টেলিভিশনে নিয়মিত সকাল সকাল রুটিন মাফিক ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা প্রয়োজন অনুযায়ী তার ক্লাস করে নিতে পারে।

দ্বিতীয়ত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি নির্দেশ মোতাবেক অনলাইনে ক্লাসের ব্যবস্থা ইতোমধ্যে করেছে। স্ব স্ব কলেজের শ্রেণি শিক্ষকের সাথে ফোনে যোগাযোগ করে রুটিন মাফিক অনলাইন ক্লাসে যোগদান করা যেতে পারে।

তৃতীয়ত, বিষয় ভিত্তিক টপিক লিখে ইউটিউব এ সার্চ দিলে চোখের পলকে ক্লাস চলে আসছে। এ সুযোগটিও তারা গ্রহণ করতে পারে।

সর্বোপরি দৈনিক পত্রিকায় শিক্ষা পাতা দেখেও তারা তাদের কাঙ্খিত সমস্যার সমাধান পেতে পারে। মোট কথা করোনাকালে তাদের পড়াশোনায়  অমনোযোগী হলে চলবে না।

‘স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল’- এ সত্যটি এখন সবাই হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন। সকলকে স্বাস্থ্যের প্রতি যত্নবান হতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঘোষিত নির্দেশনাবলী অনুসরণ করে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদের প্রত্যাশা একদিন করোনার ভয়াল কালো থাবাকে পরাজিত করে নতুন সূর্য আসবেই।

# বদরুল হুদা সোহেল, পিএইচডি গবেষক (জাবি), সহকারী অধ্যাপক, ইংরেজি বিভাগ, ঈশা খাঁ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ফোন: ০১৮১৪-১৪০৯৪০, ই-মেইল: soheleng83@gmail.com.




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর