কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সাহস নিয়ে আন্তরিকভাবে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন সৈয়দ নজরুল মেডিকেলের করোনা যোদ্ধারা


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ২৩ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:৪১ | সম্পাদকের বাছাই  


করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ চিকিৎসা সেবা নিয়ে প্রায়শই যেখানে নানা অব্যবস্থাপনা আর ভোগান্তির কথা শোনা যায়, সেখানে একেবারেই ব্যতিক্রম কিশোরগঞ্জের করোনা ডেডিকেটেড শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। কোভিড রোগীদের পাশে এক বুক সাহস নিয়ে দাঁড়াচ্ছেন হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্সরা। তাদের সাহসী ভূমিকা আর আন্তরিক সেবা প্রতিনিয়ত রোগীদের হৃদয় ছুঁয়ে যাছে।

গত ১৪ এপ্রিল ৫শ’ শয্যার শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটিকে করোনা ডেডিকেটেড হিসেবে ঘোষণার পর থেকে আন্তরিকভাবে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন হাসপাতালটিকে কর্মরত চিকিৎসক, নার্স ও আউটসোর্সিং স্টাফরা।

বুকভরা সাহস আর আন্তরিকতা নিয়ে সেবা দিতে গিয়ে করোনাভাইরাসে এরই মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন হাসপাতালটির ৬ জন চিকিৎসক, একজন নার্স এবং দুইজন আউটসোর্সিং স্টাফ।

কিন্তু করোনার এই থাবা চিড় ধরাতে পারেনি সম্মুখসারির এই যোদ্ধাদের মনোবলে। তাদের মধ্যে কয়েকজন করোনার সাথে যুদ্ধ করে আবারও ফিরেছেন রোগীর সেবায়। আর বাকিরা রোগীর সেবায় আত্মনিয়োগ করার দৃপ্ত অঙ্গীকার নিয়ে নিজেরাই যুদ্ধ করছেন করোনার সঙ্গে।

সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত হাসপাতালটিতে করোনা পজেটিভ ও করোনাসন্দেহ নিয়ে ২১৫ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে কোভিড-১৯ পজেটিভ রোগী ছিলেন ১২৫ জন। যাদের মধ্যে ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭১ জন।

সর্বশেষ মঙ্গলবার (২৩ জুন) নেয়া তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে ৫৯ জন রোগী হাসপাতালটিতে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে তিনজন করে আইসিইউ বেডে।

বিভিন্ন ধাপে প্রায় ৬০ জন চিকিৎসক করোনা রোগীদের সেবায় কাজ করছেন। ১৯৬ জন নার্স আর ১৫০ জনের মতো আউটসোর্সিং স্টাফ নিবেদিত রয়েছেন করোনা চিকিৎসা সেবায়।

হাসপাতালটিতে আইসোলেশনের কক্ষ ছাড়াও রয়েছে ১০টি আইসিইউ বেড, ২টি ভেন্টিলেটর, ২০টি এনআরবি মাস্কসহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য যন্ত্রপাতি। নমুনা পরীক্ষার জন্য রয়েছে নিজস্ব আরটিপিসিআর ল্যাব।

রোগী এবং সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিদিন রাউন্ড হয়। করোনা চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা তাদের সমস্যার কথা সহজেই জানাতে পারছেন চিকিৎসক-নার্সদের। চিকিৎসক-নার্সসহ হাসপাতাল স্টাফদের সেবার মনোভাব আর পেশাদারীত্বে স্বস্তিবোধ করেন রোগীরা।

সর্বোপরি রোগীদের শেষ ভরসার জায়গা হিসেবে ইতোমধ্যে আস্থার প্রতিরূপ হয়ে ওঠতে পেরেছেন এই হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্সসহ অন্যান্য স্টাফরা।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এই অনন্য টিমওয়ার্ককে করোনা মোকাবেলায় আরো বেশি সক্ষমতা দানের লক্ষ্যে হাসপাতালের কোভিট ইউনিটকে সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়ন করতে উদ্যোগী হয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। তিনি ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদ এর তহবিল থেকে হাসপাতালে ১৫ লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেছেন। এর মধ্যে ১৪ লাখ টাকা দিয়ে ৪টি high flow nasal canola (hfnc-auto humid-bh) এবং ১ লাখ টাকার অন্যান্য যন্ত্রপাতি ক্রয় করা হবে।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান বলেন, কোভিড চিকিৎসায় শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এ হাসপাতালে কোভিড চিকিৎসার সাথে সংশ্লিষ্টরা অত্যন্ত আন্তরিক ও মানবিকতার জায়গা থেকে রোগীদের দ্রুত চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ে রাখার দিকে অনেক যত্নবান।

ফলে তারা নিজেদের পেশার সম্মানকে আরো উর্ধে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন এবং হচ্ছেন। রোগীদের প্রায় শতভাগ সন্তুষ্টি অর্জন অনেক কঠিন হলেও চিকিৎসক ও নার্সদের সাহসী ভূমিকা আর আন্তরিক সেবা প্রতিনিয়ত রোগীদের হৃদয় ছুঁয়ে যাচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর