কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মাদকের আগ্রাসন রুখতে মিয়ানমারমুখী সিংহদ্বার বন্ধ করতে হবে


 মোঃ জসিম উদ্দিন | ২৬ জুন ২০২০, শুক্রবার, ৫:৪৩ | মত-দ্বিমত 


আজ ২৬ জুন ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ রোজ শুক্রবার। বিশ্ব মাদক সেবন ও অবৈধ পাচার বিরোধী দিবস এবং এর নির্যাতনের শিকারদের জন্য আন্তর্জাতিক সহায়তা দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

মহান মুক্তিযুদ্ধ ও তিরিশ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের প্রিয় স্বাধীন সার্বভৌম জন্মভূমি। বিগত কয়েক দশক ধরেই মাদকের বিস্তার এখানে এক ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

নির্ভরযোগ্য তথ্যানুসারে জানা যায়, ২০১৫ সালে চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরে একটি তরল কোকেনের চালান ধরা পড়ে। বলিভিয়া থেকে আসা একটি কন্টেইনারে ১০৭ ড্রাম সানফ্লাওয়ার তেলের মধ্যে দুই ড্রাম তরল কোকেন পাওয়া যায়।

এই ঘটনার পর প্রভাবশালী বৃটিশ গণমাধ্যম "দ্য গার্ডিয়ান" বাংলাদেশে মাদক চোরাচালান ও ব্যবসা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিবেদনটিতে বাংলাদেশকে মাদক চোরাচালানের নিরাপদ রুট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দক্ষিণ এশিয়া এবং এশিয়ার বাজারে বিভিন্ন ধরনের মাদক নিয়ে যাওয়ার জন্য নিরাপদ রুট হিসেবে চোরাকারবারিরা বাংলাদেশকে ব্যবহার করছে। এতে আরো বলা হয়, এ অঞ্চলের বন্দর গুলোর দুর্বল নিরাপত্তা ব্যবস্থার কারণেই চোরাচালানের রুট হিসেবে এ পথ মাদক পাচারকারীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

মূলত ভৌগোলিক কারণে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মাফিয়া চক্র এবং মাদক কারবারিরা বাংলাদেশকে তাদের মাদকদ্রব্য পাচারে ট্রানজিটে পরিণত করছে। দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গবেষণা সংস্থার তথ্যানুসারে, প্রতি বছর এ অঞ্চল দিয়ে প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা মূল্যের মাদকদ্রব্য পাচার হয়। ইয়াবাসহ এর মধ্যে কোকেন, হেরোইন, মরফিন ছাড়াও আরো নানা রকম মাদকদ্রব্য রয়েছে।

মাদকদ্রব্য পাচার, বহন, বিতরণ ও বিপননের জন্য দেশের ভেতরও তৈরি হয়েছে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক। এ নেটওয়ার্কের সাথে জড়িত আছে সমাজের নিম্ন শ্রেণী থেকে শুরু করে উচ্চ শ্রেনীর লোকজন। মরণ নেশা মাদক ব্যবসার সাথে শত শত তরুণ -তরুণী, সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তি, ক্ষমতাবান পেশাজীবী গোষ্ঠীর কতিপয় সদস্য সহ হাজার হাজার মানুষ এখন এ নেশাযুক্ত পেশার সাথে জড়িত। ফলে বাংলাদেশ যে একটি মাদকের উর্বর বাজার, একথা অস্বীকার করার সুযোগ নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বর্তমানে বাংলাদেশে সমাজ ও রাষ্ট্রে ভয়াল রূপে মাদক ছড়িয়ে পড়েছে। কোথায় নেই মাদক! দেশের প্রত্যেকটি শহরের অলিতে-গলিতে মাদক। হাত বাড়ালেই মাদক। না চাইতেই মাদক! মাদক এখন শহর ও নগর পেরিয়ে নিভৃত পল্লীর পাড়া-মহল্লায় প্রবেশ করছে। মরণ নেশা মাদক এখন শহরের বস্তি পেরিয়ে গ্রামের ছোট্ট চায়ের স্টলে, খোপড়ি ঘরে। মূলত মাদক এখন আমাদের অন্দরমহলে ঢুকে পড়েছে! বিশেষ করে পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমার থেকে আসা ইয়াবা ট্যাবলেটে দেশ সয়লাব।

ফলে প্রতিনিয়ত নেশার নীল ছোবলে দংশিত হচ্ছে অসংখ্য তরুণ, যুবক-যুবতী। মাদকাসক্তির সংখ্যা বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বের মধ্যে সপ্তম।

বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত ও গবেষণায় দেখা যায়, বাংলাদেশে প্রায় ৭০ লাখ মাদকাসক্ত রয়েছে। এদের অধিকাংশই তরুণ, যুবক- যুবতী। এর মধ্যে নারীর সংখ্যা ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। আসক্তির ৯১ শতাংশই যুবক ও তরুণ।

আগে ভারতের উৎপাদিত ফেনসিডিল মাদকের মধ্যে বহুল প্রচলিত ছিল। বর্তমানে এই জায়গা দখল করে নিয়েছে মিয়ানমারের উৎপাদিত ড্রাগ, নেশার ট্যাবলেট বাবা নামে পরিচিত ইয়াবা। জানা যায়, দেশের প্রায় ৯০ শতাংশ মাদকসেবী নেশার এই ট্যাবলেটটির দিকে ঝুঁকে পড়েছে। বিষয় গুলো খুবই খোলামেলা ব্যাপারে পরিণত হয়েছে |

অবস্থা এমন যে, বাংলাদেশের মাদকসেবীদের মধ্যে ইয়াবার প্রচুর চাহিদা থাকায় প্রতিনিয়ত লক্ষ লক্ষ পিস ইয়াবা মিয়ানমার থেকে দেশে প্রবেশ করছে। জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী বছরে প্রায় ৪০ কোটি পিস ইয়াবা ট্যাবলেট মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করে থাকে। ফলে নেশাগ্রস্থের সংখ্যা দিন দিন বৃ্দ্ধি পাচ্ছে।

নেশাখোর, মাদকাসক্তদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যাচ্ছে। সমাজে অস্থিরতা সৃষ্টি হচ্ছে। নেশার টাকার যোগান না দিতে পাড়ায় মাদকাসক্ত সন্তানের হাতে খুন হচ্ছে পিতা-মাতা। স্বামীর হাতে স্ত্রী, কিশোর মাদকসেবী বন্ধুর হাতে বন্ধু।

শহরের অলি-গলি সন্ধ্যার পর এখন মাদকাসক্তদের দখলে থাকে। তারা নেশা করে অবাধে ঘুরে বেড়ায়। পাড়ার বয়স্ক মুরব্বীরা সম্মান বাঁচাতে মুখ লুকায়! হাফ প্যান্ট পার্টি ও কিশোর গ্যাং এর অশোভন আচরণ, কথায় কথায় মারপিট, খুনাখুনি এসব এখন সমাজের নিত্যকার বিষয়। বোনের ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে নেশাখোর ইভটিজারের হাতে খুন হয় ভাই। ফলে সমাজে বিপথগামীদের রাজত্ব কায়েম হচ্ছে। ছিনতাই, খুন, রাহাজানি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

নেশা ও মাদকের এই ভয়াবহ ছোবল থেকে আমাদের যুব সমাজকে কিভাবে মুক্ত করা যায় এর সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়া খুবই জরুরী। এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন। বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও সমাজ থেকে চিরতরে সমূলে মাদক উৎপাটনে কঠোর হুঁশিয়ারি ও পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। যথাযথ কর্তৃপক্ষের উচিত সরকার প্রধানের ঘোষণার দ্রুত বাস্তবায়ন করা।

এ বিষয়ে আমাদের জাতীয় সংসদে মাদক নিয়ন্ত্রণে কঠোর আইন পাশ হয়েছে। উক্ত আইনে বলা হয়, মাদকদ্রব্য বহন, কেনাবেচা, কারবার, সংরক্ষণ, উৎপাদন, হস্তান্তর, সরবরাহ ইত্যাদি অপরাধের জন্য সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। সুতরাং মাদক নির্মূলে এই আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।

প্রতিনিয়ত বিশ্ব বদলাচ্ছে, কাজের ধরণের পরিবর্তন হচ্ছে। কাজের দরকারে ছেলে-মেয়েরা বাইরে যাবে। তারপরও সকল অভিভাবকদেরকে খেয়াল রাখতে হবে তাদের ছেলে-মেয়েরা কোথায় যাচ্ছে, কি করছে, কার সাথে মেলামেশা ও বন্ধুত্ব গড়ে তুলছে। এ ব্যাপারে সতর্ক ও সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে মাদক বিরোধী কার্যক্রম অব্যাহত আছে। তবে তা আরো জোরদার করতে হবে।

বিশেষ করে দেশে মাদকের বিস্তার, পাচার, কারবার, সরবরাহ বন্ধ করতে এর সাথে জড়িত বড় বড় রাঘববোয়াল ও মাদকের গডফাদারদের বিরুদ্ধ কঠোর আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে।

জনসচেতনতার জন্য মাদক বিরোধী সামাজিক আন্দোলন আরো গতিশীল করতে হবে। দেশের ভেতর অবস্থিত মাদকসেবীদের আস্তানা চিহ্নিত করে তাদের আড্ডাস্থল ভেঙে দিতে হবে। দেশের সকল বর্ডারগুলোতে সতর্ক পাহারা থাকতে হবে।

বিশেষ করে মাদকের মাদারল্যান্ড নামে খ্যাত মিয়ানমারমুখী আমাদের সকল সিংহ দরজাগুলো বন্ধ করে দিতে হবে যাতে কোন ভাবেই এই মরণ নেশা ইয়াবা ট্যাবলেট নামক মাদকটি আমাদের প্রিয় মাতৃভূমিতে প্রবেশ করতে না পারে।

পরিশেষে বলবো, বাংলাদেশ বর্তমানে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে। এই লক্ষ্যকে সামনে নিয়ে বর্তমান সরকার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। কাজেই এই পরিকল্পনার সঠিক বাস্তবায়ন করতে হলে আমাদের কর্মক্ষম, সুদক্ষ তরুণ ও যুব সমাজকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে।

তাই যে কোন মূল্যে আমাদের যুব সমাজকে নেশার ভয়াল থাবা থেকে মুক্ত করতে হবে যাতে তারা একটি উন্নত সমৃদ্ধ মানবিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারে।

# মোঃ জসিম উদ্দিন, লেকচারার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সরকারি কলেজ, ইটনা, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর