কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে ৩ বছরেই সড়ক ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ২৭ জুন ২০২০, শনিবার, ১:৫৪ | ভৈরব 


কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ঠিকাদারের নিম্নমানের কাজের ফলে সড়ক ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের গকুলনগর বাজার থেকে কালিকাপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষের চলাচলে একমাত্র সড়কটি নির্মাণের ৩ বছর না যেতেই ভেঙ্গে পড়েছে। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছে শতশত মানুষজন।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ঠিকাদার নিম্নমানের কাজ করায় সড়কটি এই ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে। সড়কটি নির্মাণের সময় ঠিকাদার প্রভাব খাটিয়ে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি করেছে।

তারা আরও জানান, সিডিউল অনুযায়ী নির্মাণ সামগ্রী অর্থাৎ রড ও সিমেন্ট ব্যবহার করেনি ঠিকাদার। ফলে ৩ বছর না যেতেই সড়কটি ভেঙ্গে পড়েছে।

জানা গেছে, ঠিকাদার পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন শিমুলকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান জুবায়ের আলম দানিছ। তিনি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের একজন নেতা ও দলীয় মনোনীত চেয়ারম্যান। ফলে তিনি প্রভাব খাটিয়ে এবং উপজেলা প্রকৌশলী আবু ইউসুফকে ম্যানেজ করে এই নিম্নমানের কাজ করেছেন।

আগানগর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. গোলাপ মিয়া জানান, বৃষ্টির কারণে সড়কটির দু’টি স্থান ভেঙ্গে গেছে। ভাঙ্গা অংশে বা ভেতরে কোনো রড দেখা যাচ্ছে না। ইটের কংক্রিটের সাথে সিমেন্টের পরিমাণও কম মনে হচ্ছে। যার ফলে এতো অল্প সময়ে সড়কটি ভেঙ্গে পড়েছে।

তার মতে, নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে। এমন কি সড়কটি সিডিউল অনুযায়ী রড ও সিমেন্ট ব্যবহার করা হয়নি। ঠিকাদার জুবায়ের আলম দানিছ প্রভাবশালী হওয়ায় সড়ক নির্মাণের সময় কেউ তার সামনে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি।

অভিযোগ অস্বীকার করে শিমুলকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান ও ঠিকাদার জুবায়ের আলম দানিছ বলেন, চার বছর আগে কাজ করেছি। এছাড়া প্রবল বৃষ্টিতে পানির চাপে ভেঙ্গে যায়।

তিনি আরও জানান, যে স্থানটি ভেঙ্গে পড়েছে, সেখানে ৩ ফুটের একটি সরু ড্রেন করা হয়েছিল। যদি সেখানে ড্রেনের বদলে একটি কালভার্ট নির্মাণ করা হতো, তাহলে আর বৃষ্টির পানি নামতে গিয়ে কোন সমস্যা হত না।

এদিকে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গেল ২০১৬-১৭ইং অর্থ বছরে আগানগর ইউনিয়নের গকুলনগর থেকে কালিকাপুর পর্যন্ত এক কিলোমিটার সড়কটি নির্মাণ করা হয়। যার নির্মাণ ব্যয় ছিল ৮০ লক্ষ টাকা।

এলজিডিই বিভাগ থেকে গ্রামীণ জনপদের উন্নয়নে সড়কটি নির্মাণ করে। ইভান এন্টারপ্রাইজ নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এই সড়কটি নির্মাণ করে। ২০১৭ সালের জুনের দিকে কাজ শেষ হয়।

এছাড়া খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের তেয়ারীরচরে নদীর পাড় দিয়ে সড়ক নির্মাণেও অনিয়ম এবং দুর্নীতি হয়েছে। একই ইউনিয়নের বধূনগর থেকে ভবানীপুর সড়কের কাজেও ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠেছে। আর এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি উপজেলা প্রকৌশলী আবু ইউসুফের যোগসাজসে হয়েছে বলে স্থানীয় লোকজনের দাবি।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ভৈরব উপজেলা প্রকৌশলী আবু ইউসুফ অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, এখনও পর্যন্ত এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। মানুষের মনগড়া কথায় তো আর হবে না।

এছাড়া আগানগর ইউনিয়নের গকুলনগর থেকে কালিকাপুর পর্যন্ত সড়ক ভেঙ্গে যাওয়া প্রসঙ্গে বলেন, প্রবল বৃষ্টির পানি নামতে গিয়ে সড়কটি ভেঙ্গে গেছে। অচিরেই মাটি ভরাট করে সড়কটি পুনরায় মেরামত করা হবে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বা ঠিকাদার নিম্নমানের কাজ করেছে কি-না জানতে চাইলে তিনি অস্বীকার করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর