কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আল কুরআন বোঝার কোনো চেষ্টা না করে শুধু উচ্চারণ করতে থাকলে সোয়াব হবে কিনা?


 রিয়াদ আহমেদ তুষার | ২৭ জুন ২০২০, শনিবার, ১০:৪৬ | ইসলাম 


বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম। ২১-০৫-২০২০ তারিখের পোষ্টে জানতে চেয়েছিলাম, কোনো রকম বোঝার চেষ্টা না করে কুরআন খতম করার পিছনে কোনো হাদিস আছে কিনা?

এরকম কোনো হাদিস কেউ উপস্থাপন না করে শুধু আলিফ লাম মিম সমান ৩০ নেকির হাদিসটিই বার বার দেখিয়ে অনেকেই দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেছেন। দুঃখের বিষয় হল আমার প্রশ্নটাই ভাল করে কেউ পড়েননি বা বুঝতে পারেননি। বুঝলে বার বার আলিফ লাম মীম এর হাদিসটি উপস্থাপন করতেন না। যে কারণে বাধ্য হয়েই এই বিষয়ে লিখতে হলো।

মনোযোগ সহকারে কথা শুনে বা পড়ার চেষ্টা করে এই ধরণের মানুষের সংখ্যা খুবই কম। এই লেখাটি পড়ার সাথে সাথে আমার লেখা “ইকরা তেলাওয়াত ও উচ্চারণ” বইটি পড়তে পারলে বুঝতে আরো সাহায্য করবে ইনশা আল্লাহ। বোঝার কোনো রকম চেষ্টা না করে কুরআন উচ্চারণ করতে থাকলে কোনো নেকি হবে কিনা বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা বেশ জটিল। তাছাড়া আমাদের সমাজসহ সারা পৃথিবীতে বহুল প্রচলিত থাকার কারণে আমার কথা অনেকেই বুঝতে চেষ্টা করবে কিনা তা আল্লাহই ভাল জানেন।

মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে। আমারও বোঝার ভুল হতে পারে। তবে চিন্তাভাবনা না করাটা আমার কাছে অন্যায় বলে মনে হয়। আমি আমার মতামত উপস্থাপন করছি, যদি কারো এর বিপরীত কোনো প্রমাণ অথবা যুক্তি থাকে তবে তা এখানে উপস্থাপন করার জন্য অনুরোধ করছি। কারো প্রমাণ এবং যুক্তি যদি আমার প্রমাণ এবং যুক্তি থেকে অধিক সঠিক বলে বিবেচিত হয় তবে আমি তা মেনে নিবো ইনশা আল্লাহ।

তবে লেখাটি মনোযোগের সাথে দুইবার পড়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ করছি। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সিরাতুল মুস্তাকিমে চলার তৌফিক দান করুন। আমিন।

ইসলাম একটি কল্যাণকর পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থার নাম। জীবন ব্যবস্থা মানেই হচ্ছে কতিপয় হালাল হারাম অর্থাৎ বৈধ অবৈধের সমষ্টি। ইসলামে নাবি (আ) গণের দ্বারা দেখানো মুজিজা এবং আল্লাহর উপাসনা করার বর্ণিত পদ্ধতি অনেক সময় আমাদের বুঝে নাও আসতে পারে। এছাড়া সকল আদেশ নিষেধ, আচার ব্যবহার, লেনদেন ইত্যাদি বিষয়ে বর্ণিত আল্লাহর আদেশ এবং উপদেশগুলো খুবই প্রেক্টিক্যাল অর্থাৎ খুবই বাস্তবসম্মত। যেমনঃ কাউকে টাকা ধার দিবার সময় সে যত কাছের লোকই হোক বা যত অল্প টাকাই হোকনা না কেন তা লিখে রাখতে আদেশ করা হয়েছে। এই লিখে না রাখার কারণে পরবর্তীতে মনমালিন্যের সূচনা হয়। এই কারণেই আল্লাহ লিখে রাখার প্রতি গুরুত্ব দিয়েছেন। ছোট্ট এই আদেশটি পালন না করার কারণে টাকা নিয়ে অনেক কাছের মানুষের সাথেও সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যেতে দেখা গিয়েছে। আমার কথাগুলো বাস্তবতার নিরিখে চিন্তাভাবনা করার জন্য সকলকে আহবান করছি। তাহলে উক্ত বিষয়ের তাৎপর্য উপলদ্ধি করা আমাদের পক্ষে সহজ হবে ইনশা আল্লাহ।

এই আলোচনা করার জন্য আমি বিভিন্ন পয়েন্ট আকারে উপস্থাপন করবো ইনশা আল্লাহ। কিন্তু কোনো একটি পয়েন্টকে স্বতন্ত্রভাবে ধরে সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে না। বরং, প্রতিটি পয়েন্ট ভালোভাবে বুঝে সামগ্রিকভাবে পর্যালোচনা করার পর সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এই লেখাটি পড়ার সময় কয়েকটি শব্দের প্রতি গভীরভাবে লক্ষ্য রাখতে অনুরোধ করছি। নইলে লেখাটি বুঝতে সমস্যা হবে। যথাঃ (ক) পড়া (খ) উচ্চারণ করা (গ) জানা (ঘ) বুঝা।

(১) ভাষা কাকে বলে?

উত্তরঃ মনের ভাব প্রকাশ করাকে ভাষা বলে। সুতরাং, ‘ভাষা’ তখনই ‘ভাষা’ যখন মনের ভাব প্রকাশ করা যায়। দুজনের মধ্যে মনের ভাব প্রকাশ করতে হলে তাদের দুজনকেই একই ভাষায় কথা বলতে হবে। জন্মের পর থেকে মানুষ সাধারণত তার মায়ের কাছ থেকে যে ভাষার মাধ্যমে ভাব আদান প্রদান করে, তাকে তার মাতৃভাষা বলে। জানা থাকা দরকার বাংলা ভাষাসহ পৃথিবীতে যত ভাষা আছে সবই আল্লাহর সৃষ্টি। (সুরা রুম, ৩০:২২)। মুহাম্মাদ (সা)সহ সকল সাহাবি (রা)গণের মাতৃভাষা ছিল আরবি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যাকে নাবি হিসেবে মনোনীত করেন তাঁর ভাষাতেই কিতাব নাযিল করেন। কুরআন আরবি ভাষায় নাযিল হবার এটাই একমাত্র কারণ। আমাদের মাতৃভাষা বাংলা। কোনো আরবি এবং বাংলা ভাষাভাষী মানুষের মধ্যে মনের ভাব আদান প্রদানের জন্য দুজনকে যে কোনো একটি ভাষা ব্যবহার করতে হবে। অর্থাৎ, দুজনের একজনকে অবশ্যই অন্য ভাষাটি শিখতে হবে। কুরআনে আরবি ভাষা এবং আজমি (অনারব) ভাষার কথা উল্লেখ করা আছে।

(২) লেখা পড়া শেখার গুরুত্বঃ

রাসুলুল্লাহ (সা) যখন নাবি হিসেবে মনোনীত হন তখন লিখতে এবং পড়তে পারার মতো মানুষের সংখ্যা ছিল হাতে গোনা কয়েকজন। আমরা জানি বদরের যুদ্ধের পর যারা মুসলিমদের হাতে বন্দি হয় তাদেরকে শুধু লেখা পড়া শেখানোর বিনিময়ে মুক্তি দান করা হয়। চিন্তা করে দেখুন, যারা সম্মুখ যুদ্ধে নাবি (সা)সহ সকল মুসলিমদেরকে হত্যা করতে চেয়েছিল তাদের অনেককেই মাত্র কয়েকজনকে লেখা পড়া শেখানোর বিনিময়ে মুক্তি দেয়া হয়। তারা কি শিখিয়ে ছিল? আলিফ বা তা ছা এই সকল অক্ষরগুলো (হরফগুলো) এবং অক্ষরগুলো দিয়ে কিভাবে শব্দ গঠন করতে হয় তাই নয়কি? একটি বিষয় সব সময় মনে রাখতে হবে যে, তাঁদের মাতৃভাষা ছিল আরবি।

(৩) কথ্য ভাষা এবং লিখিত ভাষাঃ

একজন মানুষ যে ভাষায় কথা বলে সে ভাষার একটি অক্ষর না জেনেও কোনো সমস্যা ছাড়াই পুরো জীবন কাটিয়ে দেয়া সম্ভব। ছোটো বেলায় আমরা যখন অ আ ক খ শিখেছি তার বহু আগেই মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য ভাষার ব্যবহার শিখে ছিলাম। তাই যখন আমরা বাংলা অক্ষর (হরফ) শেখা শুরু করি এবং বাংলা অক্ষর ব্যবহার করে যখন মা, বাবা, কলা, ভাত, পানি ইত্যাদি শব্দগুলো পড়তে ও লিখতে শিখি তখন সাথে সাথে বুঝতে পেরেছিলাম কলা, ভাত, পানি শব্দগুলো দিয়ে আসলে কি বোঝায়। আরবরাও যখন আলিফ বা তা সা শিখে তখন আরবি অক্ষর দিয়ে গঠিত তাদের পরিচিত কোনো শব্দ সাথে সাথে বুঝতে পারে।

(৪) অক্ষরজ্ঞান শেখার উদ্দেশ্য কি?

আমরা যখন আমাদের মাতৃভাষায় লিখতে পড়তে শেখার জন্য অক্ষর দিয়ে শুরু করি তখন শুধু অক্ষর শেখার মধ্যেই একে সীমাবদ্ধ রাখি না বরং এর ব্যবহারও শিখি। কোনো একটি শব্দ দিয়ে কি বোঝায় তা হয়ত আমরা আগেই জানি। অক্ষরজ্ঞান অর্জন করার পর সেসব শব্দের লিখিত ব্যবহার শিখি। এভাবে লিখিত আকারে কোনো বইয়ে (কিতাবে) কি আছে জানার জন্য চেষ্টা করতে থাকি। আরবরাও যখন অক্ষরজ্ঞান অর্জন করে তখন তারাও তাদের ভাষায় লিখিত কোনো কিতাবে কি লিখা আছে তা জানার জন্যই অক্ষরজ্ঞান অর্জন করে। চলুন একটি বাস্তবসম্মত উদাহরণ দেখি। ইংরেজি আমাদের নিকট একটি ভিনদেশি ভাষা। আমরা যারা ছোটবেলা থেকে ইংরেজি শিখে আসছি তখন থেকে এর উচ্চারণ ও ব্যকরণ শিখে এক একটি শব্দ কিভাবে উচ্চারণ করতে হয় শুধু তাই শেখার চেষ্টা করিনা! বরং, শব্দটির অর্থ কি এবং এর ব্যবহারও শিখি। এটাই কোনো ভাষার অক্ষরজ্ঞান অর্জন করার মূল উদ্দেশ্য।

(৫) রাসুলুল্লাহ (সা) জ্ঞান অর্জন করা ফরজ বলেছেন।

জ্ঞান দিয়ে কি বোঝায়? জ্ঞান দিয়ে বোঝায় কোনো একটি বিষয় সম্পর্কে সম্যক ধারনা থাকা। যা অর্জন করার মাধ্যমে ওই বিষয় সম্পর্কে কি বিশ্বাস করতে হবে তা জানা অথবা কোনো কাজ কিভাবে সঠিকভাবে করতে হবে তা জানা অথবা বুঝা। এখন যদি কেউ ওই দুইটি বিষয়ের কোনোটি জানতে না পারে তবে বোঝা যাবে যে, সে আসলে জ্ঞান অর্জন করেনি। আর, জ্ঞান অর্জন করার একটি প্রধান এবং প্রথম ধাপ হচ্ছে অক্ষরজ্ঞান অর্জন করা। সুতরাং, অক্ষরজ্ঞান অর্জন করা মানেই জ্ঞান অর্জন করা নয়। আমরা যারা দেখে দেখে কুরআনের আরবি আয়াতগুলো সঠিকভাবে উচ্চারণ করতে পারি তারা মূলত অক্ষরজ্ঞান অর্জন করেছি অর্থাৎ জ্ঞান অর্জনের প্রাথমিক ধাপ সম্পন্ন করেছি। কিন্তু, এভাবে কুরআনের আরবি আয়াতগুলো উচ্চারণ করেও যেহেতু আল্লাহ কি বলেছেন তা জানতে পারি না সেহেতু এটাকে প্রকৃত জ্ঞান অর্জন করা বোঝায় না।

(৬) উপদেশ কি?

কুরআনকে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মানব জাতির জন্য উপদেশ বলেছেন। ‘উপদেশ’ দিয়ে কি বোঝায়? ধরুন একজন ডাক্তার, ইংরেজি জানেন না এমন এক ডায়বেটিক রোগীকে উপদেশ দিল “Don’t take sugar”। রোগী কিছুই বুঝতে পারল না। না বোঝার কারণে সে চিনি খাওয়া বন্ধ করলো না। এখন যেহেতু, ওই রোগী ইংরেজি জানে না সেহেতু তাকে দেয়া উপদেশ “Don’t take sugar” কথাটিকে তার জন্য আর ‘উপদেশ’ বলা যাবে না। ডাক্তার কি বলেছে তা বোঝার চেষ্টা না করে শুধু “Don’t take sugar” বলতে থাকলে তা রোগীর কোনো উপকারে আসবে না। তারমানে, ‘উপদেশ’ তখনই ‘উপদেশ’ হবে যখন দেয়া উপদেশ বুঝতে পারবে। সুতরাং, যারা কুরআন পড়ার সময় আল্লাহর কথা বুঝতে পারে না তখন কুরআন তার জন্য আর ‘উপদেশ’ হিসেবে থাকবে না।

(৭) তেমনি কুরআন মানবজাতির জন্য হুদা অর্থাৎ সঠিক পথ প্রদর্শনকারী। কিন্তু কুরআন তখনি পথ প্রদর্শন করবে যখন কেউ তা বুঝতে পারবে। এখানে একই রকম যুক্তি প্রযোজ্য যা (৬) নম্বর পয়েন্টে বলা হয়েছে। অর্থাৎ, ‘হুদা বা সঠিক পথ প্রদর্শনকারী’ তখনই হবে যখন এতে আল্লাহ কি বলেছেন প্রথমত তা জানতে পারবে এবং পরবর্তীতে তা বুঝে গ্রহণ করবে। আবার, সঠিক তথ্য জানার জন্য একটি প্রধান মাধ্যম হচ্ছে অক্ষরজ্ঞান অর্জন করে পড়ার মাধ্যমে জানা।

এতোক্ষন ভাষার ব্যবহার, জ্ঞান অর্জন করার গুরুত্ব এবং সর্বোপরি কুরআন বুঝে পড়ার জন্য কিছু যুক্তি উপস্থাপন করা হল। নাবি (সা)-এর বহু হাদিসে কুরআন পড়ার ফযিলত সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে। সে সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি। এখন কুরআন কিভাবে পড়তে হবে তা সম্পর্কে নিম্নে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ হাদিস উপস্থাপন করা হলো। হাদিসগুলো পড়ার সময় মনে রাখতে হবে উক্ত হাদিসগুলো রাসুলুল্লাহ (সা) বা সাহাবি (রা)গণ তাদের মাতৃভাষায় একে অপরকে বলেছিলেন। ভিন্ন ভাষাভাষী কোনো মানুষকে উক্ত হাদিস (কথা) বলা হয়নি। অর্থাৎ, যখন কথাগুলো বলা হয়েছিল তখন তাঁদেরকে বোঝানোর জন্য ভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করার দরকার হয়নি। আমরা যখন হাদিসগুলোর অনুবাদ পড়ব তখন কোনোভাবেই ভুলে গেলে চলবে না যে আমাদের মাতৃভাষা আরবি নয় আমাদের মাতৃভাষা বাংলা।

(৮) আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেন, ‘‘এক মাসে কুরআন পাঠ সমাপ্ত কর।’’ আমি বললাম, ‘‘আমি এর চেয়ে অধিক করার শক্তি রাখি।’’ তখন নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘‘তাহলে সাত দিনে তার পাঠ শেষ করো এবং এর চেয়ে কম সময়ে পাঠ শেষ কোরো না।’’ (বুখারী, ৫০৫৪)

এই হাদিসে ৭ দিনের কম সময়ে কুরআন খতম করতে নিষেধ করা হয়েছে। আরেকটি হাদিস থেকে জানা যায় আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা) প্রতি রাতে কুরআন খতম করতেন। কিন্তু নাবি (সা) তাকে প্রথমে ১ মাসে এবং পরে আব্দুল্লাহ (রা) যখন আরও বেশি করার ক্ষমতা রাখেন বলেন তখন ১ সপ্তাহে কুরআন খতম করতে বলেন। (বুখারী, ৫০৫২)

(৯) আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে যে, নাবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ তিন দিনের কম সময়ে যে লোক কুরআন পাঠ করল সে কুরআনের কিছুই বুঝেনি। (তিরমিজি, ২৯৪৯)

প্রথম হাদিসটি থেকে জানা যায়, নাবি (সা) সাত দিনের কম সময়ের মধ্যে কুরআন পড়ে শেষ করতে নিষেধ করেছেন। দ্বিতীয় হাদিস থেকে বোঝা যায় নূন্যতম তিন দিনের কম সময়ে কুরআন পড়ে শেষ করতে নিষেধ করেছেন। কিন্তু কেন? কারণ, তিন দিনের কম সময়ে যদি কেউ কুরআন পড়ে তবে তার পক্ষে সঠিকভাবে কুরআনের হক আদায় করা সম্ভব হবে না। কুরআনের হক দিয়ে বোঝায় কুরআনের আয়াত নিয়ে তাফাক্কুর (চিন্তাভাবনা) করা, তাদাব্বুর (গভীর চিন্তা) করা অথবা নূন্যতম তারতিলের সঙ্গে (ধীরে ধীরে স্পষ্টভাবে) পড়া।

যে কারণে, উনাদের মত মানুষদেরকে যাদের মাতৃভাষা ছিল আরবি এবং রাসুলুল্লাহ (সা)-এঁর সাহাবি ছিলেন তাঁদেরকে পর্যন্ত তিন দিনের কম সময়ে কুরআন পড়তে নিষেধ করেছিলেন। কারণ, এর চেয়ে কম সময়ে পড়লে বুঝতে পারবে না। যদি খতম করাই উদ্দেশ্য হত তবে আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা) যিনি প্রতি রাতে কুরআন খতম করতেন তাকে তা করার জন্য নিষেধ করা হত না।

(১০) আবূ সা‘ঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবি সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর সাহাবীদেরকে বলেছেন, তোমাদের কেউ কি এক রাতে কুরআনের এক-তৃতীয়াংশ তিলাওয়াত করা সাধ্যাতীত মনে কর? এ প্রশ্ন তাদের জন্য কঠিন ছিল। এরপর তারা বলল, হে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম! আমাদের মধ্যে কার সাধ্য আছে যে, এটা পারবে? তখন তিনি বললেন, ‘‘কুল হুআল্লাহু আহাদ’’ অর্থাৎ সূরাহ ইখলাছ কুরআনের তিন ভাগের এক ভাগ। (বুখারী, ৫০১৫)

এই হাদিসে দেখা যাচ্ছে সাহাবি (রা)গণের কাছে এক রাতে কুরআনের তিন ভাগের এক ভাগ পড়া কঠিন ছিল। কেন কঠিন ছিল? কারণ, কুরআন পড়া দিয়ে উনারা নূন্যতম তারতিলের সঙ্গে কুরআন পড়া বুঝতেন। তারতিলের সঙ্গে পড়া দিয়ে কি বোঝায় তা সহজে বোঝার জন্য আমি একটি উদাহরণ আপনাদের সামনে পেশ করছি শুধু চিন্তা করার জন্য। মনে করুন, কোনো একটি অনুষ্ঠানে কোনো দেশের প্রধানমন্ত্রী নিজে উপস্থিত আছেন। ওই অনুষ্ঠানে সরকারের একজন কর্মচারীকে প্রধানমন্ত্রীর লিখিত বক্তব্য জনগণের উদ্দেশ্যে পাঠ করতে বলা হল। এবার চিন্তা করুর ওই কর্মচারী লিখিত বক্তব্যটি কিভাবে পাঠ করবে! আমরা হচ্ছি আল্লাহর সৃষ্টি করা দাস। যিনি শুধু আমাদের বাহ্যিক অবস্থাই দেখেন না বরং অন্তরে কি আছে তাও জানেন। তাহলে একটু ভাবুন আমাদের কিভাবে কুরআন পাঠ করা উচিত!

(১১) নাহীক ইবনু সিনান নামের এক ব্যক্তি আবদুল্লাহ (ইবনু মাসউদ) (রাঃ) এর কাছে এসে বলল, হে আবূ আবদুর রহমান! এ শব্দটি আপনি কিভাবে পাঠ করে থাকেন “আলিফ” সহকারে নাকি “ইয়া” সহকারে অর্থাৎ مِنْ مَاءٍ غَيْرِ آسِنٍ না مِنْ مَاءٍ غَيْرِ يَاسِنٍ আবূ ওয়াইল (রহঃ) বলেন, আবদুল্লাহ (রাঃ) বললেন, আর এ শব্দটি ছাড়া বাকী কুরআনের সবটাই তুমি আয়ত্ত করে ফেলেছ? সে বলল, আমি তো মুফাসসাল (সূরাসমূহ) এক রাকআতেই পড়ে থাকি। আবদুল্লাহ (রাঃ) বললেন, কবিতার ফড়ফড়ানির ন্যায় ফড়ফড় করে কী? একদল লোক কুরআন পাঠ করে থাকে যা তাদের কন্ঠনালী অতিক্রম করে না। তবে যখন তা কলবে পতিত হয় এবং তা তাতে দৃঢ় অবস্থান নেয় তখনই তা উপকারে আসে।....। (মুসলিম, ১৭৮১)

এই একটি হাদিস বুঝতে পারলেই অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা) সেই চার জনের অন্যতম যাদের কাছ থেকে নাবি (সা) কুরআন শিখতে অন্যদেরকে বলেছেন। মুফাসসাল সুরা দিয়ে সাধারণত মক্কায় অবতীর্ণ সুরাগুলোকে বোঝায়। (বুখারী, ৪৯৯৩)। অনেকগুলো সুরা যখন এক রাকাতে পড়ার কথা আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা)কে অবহিত করা হয় তখন তিনি বলেন, “কবিতার ফড়ফড়ানির ন্যায় ফড়ফড় করে কি?” আমাদের মাঝে কার সাহস আছে, যখন কেউ অতিদ্রুত কুরআন পড়বে তার পড়াকে কবিতার ফরফরানির সাথে তুলনা করবে? আমরা কি আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা)-এর চাইতে কুরআনকে বেশি সম্মান করি বা বেশি ভালবাসি নাকি বেশি বুঝি! কিন্তু, আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা) এভাবে কেন বললেন? কারণ, এভাবে কুরআন পড়া কুরআন পড়ার উদ্দেশ্যের সঙ্গে পুরোপুরি সাংঘর্ষিক। আর এভাবে কেউ পড়লে সে নিজেও সব সময় খেয়াল রাখতে পারবে না আল্লাহ ওইসব আয়াতে কি বলছেন। যদিও তার মাতৃভাষা আরবি হয়। যে কারণে নাবি (সা) বলেছেন যে তিন দিনের কম সময়ে কুরআন পড়লো সে বুঝবে না।

এরপর তিনি আবার বলেছেন, “একদল লোক কুরআন পাঠ করে থাকে যা তাদের কন্ঠনালী অতিক্রম করে না। তবে যখন তা কলবে পতিত হয় এবং তা তাতে দৃঢ় অবস্থান নেয় তখনই তা উপকারে আসে।” কণ্ঠনালী অতিক্রম করে না দিয়ে কি বোঝানো হয়েছে? যখন কুরআন দ্রুতবেগে পড়া হয় তখন আল্লাহ কোনো শব্দ কিভাবে ব্যবহার করে কি বলতে চেয়েছেন তার প্রতি লক্ষ্য রাখা সম্ভব হয় না। কিন্তু যখন ধীরে ধীরে তারতিলের সঙ্গে পড়া হয় একমাত্র তখনই কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন বা কোন শব্দ ব্যবহার করেছেন তা জানতে পারা যায়। আর যখন কেউ তা বুঝতে পারে সাথে সাথে তা অন্তরে প্রভাব ফেলতে শুরু করে যখন কেউ তাতে ইমান আনে।

এখানে আবার মনে করিয়ে দিতে চাই, এই সবগুলো হাদিসে যাদের কথা বলা হচ্ছে তাঁদের সকলের মাতৃভাষা ছিল আরবি। তাঁদেরকেই কুরআন বোঝার চেষ্টা না করে দ্রুতগতিতে কবিতার ফরফরানির মত পড়তে নিষেধ করা হয়েছে। সুতরাং, কুরআন বুঝতে চেষ্টা না করে শুধু দ্রুততার সাথে খতম করা কুরআন নাযিল করার উদ্দেশ্য নয় যদিও কারো মাতৃভাষা আরবি হয়।

(১২) আবদুল্লাহ ইবনে মাসঊদ (রা) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেনঃ রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি কুরআনের একটি হরফ (অক্ষর) পাঠ করবে তার (হাসানা) নেকী হবে। আর নেকী হয় দশ গুণ হিসাবে। আমি বলি না যে, আলিফ-লাম-মীম মিলে একটি হরফ; বরং আলিফ একটি হরফ, লাম একটি হরফ, এবং মীম আরেকটি হরফ। (তিরমিজী, ২৯১০)

এখন পর্যন্ত বোঝার কোনো চেষ্টা না করে কুরআন পড়ার পিছনে এই একটি হাদিসকেই সবাই ব্যবহার করা আসছে। এই হাদিসটি বোঝার জন্য কয়েকটি বিষয় ভাল করে বুঝতে হবে। যথাঃ

(ক) এই হাদিসটি বলার উদ্দেশ্য কি? (খ) কিরায়াত এবং ইকরা শব্দের অর্থ কি? (গ) পড়া দিয়ে কি বোঝায়? (ঘ) পড়া এবং উচ্চারণ করার মধ্যে পার্থক্য কি? (ঙ) হারফে মুকাত্তায়াত!

(ক) এই হাদিসটি বলার উদ্দেশ্য কি?

হাদিসটি ভালোভাবে পড়লে বোঝা যায় নাবি (সা) এখানে হরফ (অক্ষর) কি এবং কুরআন পড়ার সময় প্রতিটি হরফের বিনিময়ে কি পরিমান নেকি হবে এবং কিভাবে হিসাব করা হবে তা বোঝাতে চাচ্ছেন। কয়েকটি হরফ মিলে গঠিত কোনো শব্দকে অথবা কয়েকটি শব্দ নিয়ে গঠিত একটি আয়াতকে যেন আমরা হরফ মনে না করি সে জন্যই এ হাদিসটি নাবি (সা) বলেছেন। এ বিষয়টি নিয়ে দ্বিমত পোষণ করার কোনো অবকাশ নেই। হিসেবটা সহজে বোঝাবার জন্যই তিনি আলিফ লাম মীম অক্ষরগুলো ব্যবহার করেছিলেন। অন্য যে কোনো শব্দ যেমনঃ সুবহানাল্লাহ বা আলহামদুলিল্লাহ বললে তখন এসব শব্দে কয়টি হরফ আছে তা গুনে বের করতে হত। না গুনে কেউ বলে দিতে পারবে না সুবহানাল্লাহ বা আলহামদুলিল্লাহতে কয়টি হরফ আছে। কিন্তু, যেহেতু নাবি (সা) হাদিসটিতে ‘আলিফ লাম মীম’ ব্যবহার করেছেন সেজন্য আমরা অর্থাৎ কেউ একজন প্রথম ধরে নিয়েছিল যে কুরআন বোঝার চেষ্টা না করলেও সোয়াব পাওয়া যাবে। এ ধারণাটি এই হাদিসের মূল উদ্দেশ্য নয় বরং আমরা ধরে নিয়েছি। এই ধরে নেয়াটা কতটা যৌক্তিক বা গ্রহণযোগ্য তাই বিবেচনা করা দরকার। কারণ, কিসে কতটুকু সোয়াব হবে কি হবে না তা আল্লাহ রাব্বুল আলামিন অথবা রাসুলুল্লাহ (সা) না বলে থাকলে অন্য কারো পক্ষে নির্ধারণ করার কোনো ক্ষমতা ইসলামে দেয়া হয়নি।

(খ) কেরায়াত এবং ইকরা শব্দের অর্থ কি?

আরবি ‘কেরায়াত’ শব্দের অর্থ হচ্ছে পাঠ করা বা পড়া (বিশেষ্য)। আর ‘ইকরা’ শব্দের অর্থ হচ্ছে পড়ো। ‘পড়ো’ দিয়ে এখানে পড়ার জন্য আদেশ করা হয়েছে (ক্রিয়া বাচক)। আবার রাসুলুল্লাহ (সা) জ্ঞান অর্জন করা ফরজ বলেছেন। আর জ্ঞান অর্জন করার প্রধান মাধ্যম হচ্ছে অক্ষরজ্ঞান অর্জন করার মাধ্যমে পড়তে শেখা। (৪ এবং ৫ নং পয়েন্ট)

(গ) ‘পড়া’ দিয়ে কি বোঝায়?

এতোক্ষণ আলোচনা করার মাধ্যমে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় যে পড়ার উদ্দেশ্য হচ্ছে কি লিখা আছে তা জানতে পারা। অর্থাৎ, কি লিখা আছে তা যদি কেউ বুঝতে না পারে তখন তাকে আর ‘পড়া’ বলা যাবে না। আমার জন্য এতটুকুই যথেষ্ট। তবুও উইকিপিডিয়াতে ‘পড়ার’ যে সংজ্ঞা দেয়া আছে তা হলোঃ ‘Reading’ is the complex cognitive process of decoding symbols to derive meaning. যার মোটামুটি অর্থ হচ্ছেঃ ‘পড়া’ হচ্ছে জ্ঞান অর্জনের এক জটিল প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে শব্দ বা চিহ্ন থেকে তার মর্মার্থ বের করা। সুতরাং, শব্দের বা বাক্যের মর্মার্থ বুঝতে না পারলে তাকে আর ‘পড়া’ বলা যাবে না।

(ঘ) পড়া এবং উচ্চারণ করার মধ্যে পার্থক্য কি?

সুতরাং, যখন কেউ পড়ার চেষ্টা করল কিন্তু কিছুই বুঝতে পারলো না, তখন সে পড়েছে তা আর বলা যাবে না। তাহলে সে কি করেছে? আসলে তখন সে শব্দগুলো শুধু উচ্চারণ করেছে। যেমন ধরুন, একজন ব্রিটিশ নাগরিক যিনি ইংরেজি ছাড়া আর কোনো ভাষা লিখতে পড়তে জানে না। তাকে প্রথমে বাংলা অক্ষর অ আ ক খ গ সব শেখানো হল। তারপর, বাংলা শব্দ কিভাবে গঠিত হয় তা শেখানো হল। অর্থাৎ, া আকার, ে একার, ো ওকার, ু উকার, ি ইকার ইত্যাদি সব শেখানো হল। তারপর তাকে পড়তে দেয়া হলঃ “বাংলাদেশ আমার জন্মভূমি”। সে কি পড়তে পারবে না? অবশ্যই পারবে। কিন্তু সে কি পড়েছে তার অর্থ কিছুই বলতে পারবে না। তার মানে সে “বাংলাদেশ আমার জন্মভূমি” বাক্যটি উচ্চারণ করল ঠিকই কিন্তু যেহেতু কিছুই বুঝতে পারেনি সেহেতু সে ওই বাক্যটি পড়েছে তা আর বলা যাবে না। তাহলে সে কি করেছে? সে “বাংলাদেশ আমার জন্মভূমি” বাক্যটি উচ্চারণ করেছে। অর্থাৎ, যখন কোনো শব্দের বা বাক্যের অর্থ যদি কেউ বুঝতে না পারে তখন তাকে পড়া না বলে উচ্চারণ (Pronounce/Utterence) করছে বলাটাই সঠিক হবে। উক্ত হাদিসটিতে ইকরা অর্থাৎ পড়ার কথা বলা হয়েছে। উচ্চারণ করার কথা বলা হয়নি। বাংলা ‘উচ্চারণ’ শব্দের আলাদা আরবি আছে।

(ঙ) হারফে মুকাত্তায়াতঃ

“হারফে মুকাত্তায়াত” যার অর্থ ‘বিচ্ছিন্ন বর্ণগুলি’ টার্মটা প্রথম কে ব্যবহার করেছেন তা দেখা দরকার। ইসলাম সম্পর্কে অনেক পড়াশোনা করে এমন তিনজনকে জিজ্ঞাসা করে এর ভাল কোনো উত্তর পাইনি। পাব বলেও মনে হচ্ছে না। যাই হোক, আমি এসব অক্ষরকে আলাদা করে দেখিনা। এগুলো কুরআনেরই আয়াত। যেমনঃ আলিফ লাম মিম, ইয়া সিন, ত্বা সিন মিম, হা মিম ইত্যাদি। আল্লাহ কেন শুধু এই অক্ষরগুলো দিয়ে এক একটি আয়াত হিসেবে রেখেছেন তা আল্লাহই ভাল জানেন। সুরা আলে ইমরানের ৭ নং আয়াতে আল্লাহ বলেছেন কুরআনে দুই ধরনের আয়াত আছে, সুস্পষ্ট এবং অস্পষ্ট আয়াত। আবার বলেছেন সুস্পষ্ট আয়াতই হচ্ছে কিতাবের মূল। আর সাবধান করেছেন অস্পষ্ট আয়াত নিয়ে অযথা সময় নষ্ট না করতে। এসব অস্পষ্ট আয়াতগুলোও আল্লাহর একটা পরীক্ষা। কারণ, যাদের অন্তরে সমস্যা আছে তারাই এসব অস্পষ্ট আয়াত নিয়ে সময় কাটাবে এবং বিভ্রান্তি ছড়াবে। অথচ, আল্লাহ নিজেই বলে দিয়েছেন এসব আয়াতের অর্থ এক আল্লাহ ছাড়া আর কেউ জানে না। আলিফ লাম মিম, হা মীম ইত্যাদি নিশ্চিতভাবে অস্পষ্ট আয়াত। এদেরকে ‘হারফে মুকাত্তায়াত’ নাম দিয়ে আলাদা করে দেখার কোনো সুযোগ নেই। এগুলো কুরআনের একেকটি স্বতন্ত্র আয়াত। সুতরাং, আল্লাহ যেভাবে এসব আয়াতকে রেখেছেন আমাদের দায়িত্ব সেভাবেই শুধু পড়ে যাওয়া। আর যেহেতু অস্পষ্ট আয়াত তাই, ‘কেন আল্লাহ এভাবে দিলেন?’, ‘এর মাধ্যমে আল্লাহর উদ্দেশ্য কি?’ ইত্যাদি চিন্তা করে অযথা সময় নষ্ট না করা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে বোঝার তৌফিক দান করুন।

(১৩) হাদিসে ‘ইকরা’ শব্দ দিয়ে কি বোঝানো হয়েছে:

কোনো একটি শব্দ দিয়ে কি বোঝায় তা ওই শব্দটির ব্যবহারের উপর নির্ভর করে। একটি বাক্যে একটি শব্দের ব্যবহার করা দিয়ে বোঝা যায় শব্দটি দিয়ে আসলে কি বোঝানো হচ্ছে। নিচের হাদিসটি ভালোভাবে লক্ষ্য করুন। উকবা ইবন আমের (রা) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

«أَفَلَا يَغْدُو أَحَدُكُمْ إِلَى الْمَسْجِدِ فَيَعْلَمُ، أَوْ يَقْرَأُ آيَتَيْنِ مِنْ كِتَابِ اللهِ عَزَّ وَجَلَّ، خَيْرٌ لَهُ مِنْ نَاقَتَيْنِ، وَثَلَاثٌ خَيْرٌ لَهُ مِنْ ثَلَاثٍ، وَأَرْبَعٌ خَيْرٌ لَهُ مِنْ أَرْبَعٍ، وَمِنْ أَعْدَادِهِنَّ مِنَ الْإِبِلِ»

“তোমাদের কেউ কি এরূপ করতে পার না যে, সকালে মসজিদে গিয়ে মহান আল্লাহ্র কিতাব থেকে দুটো আয়াত জানবে অথবা পড়বে; এটা তার জন্য দু’টো উষ্ট্রীর তুলনায় উত্তম। আর তিনটি আয়াত তিনটি উষ্ট্রী থেকে উত্তম, চারটি আয়াত চারটি উষ্ট্রী থেকে উত্তম। এমনিভাবে যত আয়াত তত সংখ্যক উষ্ট্রী থেকে উত্তম হবে।” (মুসলিম, ১৭৪৬ ইফা)।

এই হাদিস থেকে আমি দুটি শব্দের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করবো। يَعْلَمُ، أَوْ يَقْرَأ যার অর্থ হচ্ছেঃ জানবে অথবা পড়বে। কুরআনে يَعْلَمُ শব্দটি বহুবার ব্যবহার করা হয়েছে। হাদিসটিতে জানা এবং পড়ার মাঝে যে শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে তা হচ্ছেঃ “অথবা”। ‘অথবা’ দিয়ে দুটির যে কোনো একটিকে বোঝানো হয়ে থাকে। হাদিসে “জানবে অথবা পড়বে” কেন বলা হল? এই দুটি শব্দ ব্যবহার করার মাধ্যমে আসলে সকল মানুষকে এর অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। যারা পড়তে জানে এবং পড়তে জানে না দুই ধরণের মানুষের কথাই বলা হচ্ছে। যেমনঃ যারা পড়তে জানে তারা তো মসজিদে গিয়ে কুরআন খুলে পড়তে পারবে। কিন্তু যারা পড়তে জানে না তারা কি করবে? তারা মসজিদে গিয়ে যারা কুরআন সম্বন্ধে জানে এবং বুঝে তাঁদের কাছ থেকে কুরআনের একটি একটি করে আয়াত জানবে।

হাদিসটিতে বলা হয়েছে “জানা অথবা পড়া”। ‘অথবা’ দিয়ে বিকল্প বোঝানো হয়। যেমনঃ ‘গরু অথবা ছাগল কুরবানি কর’ দিয়ে বোঝায়, হয় গরু দিয়ে অথবা/কিংবা/নইলে ছাগল দিয়ে কুরবানি কর। হাদিসটিতে আছে জানবে অথবা পড়বে। তারমানে, জানার বিকল্প হচ্ছে পড়া। অর্থাৎ, পড়ার বিকল্প হচ্ছে জানা। সুতরাং, পড়া মানে হচ্ছে পড়ার মাধ্যমে জানা। আর যেহেতু আমরা কুরআন পড়ছি বলি ঠিকই কিন্তু এই পড়ার মাধ্যমে আল্লাহ কি বলেছেন তার কিছুই জানতে পারি না সেহেতু তখন সে কাজটিকে আর ‘পড়া’ বলা যাবে না। অর্থাৎ, উদ্দেশ্য হল কুরআনের আয়াতে আল্লাহ কি বলেছেন প্রথমত তা জানা। তা পড়ার মাধ্যমেই হোক বা কারো কাছে থেকে শোনার মাধ্যমেই হোক। কিন্তু আমরা কুরআন পড়ার নাম করে তা শুধু উচ্চারণ করি এবং এর মাধ্যমে কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন তার কিছুই জানতে পারি না। তখন সেটা আর জানার বিকল্প হয় না। অর্থাৎ, পড়া হয় না। আল্লাহ আমাদেরকে বুঝতে চেষ্টা করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

(১৪) কুরআন নাযিলের উদ্দেশ্যঃ

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কুরআন নাযিলের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলেন, “রমযান মাস, যাতে কুরআন নাযিল করা হয়েছে মানুষের জন্য হিদায়াতস্বরূপ এবং হিদায়াতের সুস্পষ্ট প্রমাণস্বরূপ ও সত্য-মিথ্যার পার্থক্যকারীরূপে।...।” (সুরা বাকারা, ২:১৮৫)। এই আয়াতে আল্লাহ কুরআন নাযিলের তিনটি মূল উদ্দেশ্য আছে বলেছেন, যথাঃ (ক) হিদায়াতস্বরূপ (খ) হিদায়াতের সুস্পষ্ট প্রমাণস্বরূপ এবং (গ) সত্যমিথ্যার পার্থক্যকারীরূপে। কুরআন পড়ার মাধ্যমে কেউ একজন সহজেই জানতে পারবে কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন। কোনো জায়গায় যখন বুঝবে না তখন যিনি আরো ভাল বুঝেন তার কাছ থেকে জেনে নিবেন। এছাড়া কুরআন সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান আছে এমন কোনো সত্যবাদীর কাছ থেকেও জানা সম্ভব। বর্তমানে সত্যবাদী দাবি করনে ওয়ালা মানুষের অভাব নেই এবং একেকজন একেকরকম কথা বলে চলেছে। সুতরাং, কুরআন বুঝে কুরআনকে সত্যমিথ্যার পার্থক্যকারী হিসেবে নিলেই কে সঠিক তা নির্ধারণ করা যাবে ইনশা আল্লাহ। উমার (রা) কুরআন সম্পর্কে বলেছেন, “......আর এই সে কিতাব যার মাধ্যমে আল্লাহ্ তা‘আলা তোমাদের রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে হিদায়াত দিয়েছিলেন। কাজেই একে তোমরা আঁকড়ে ধর। তাহলে এর মাধ্যমে আল্লাহ্ তাঁর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে যে হিদায়াত দিয়েছিলেন তোমরাও সেই হিদায়াত পাবে।” (বুখারী, ৭২৬৯)।

সুতরাং, কুরআন নাযিলের উদ্দেশ্য তখনই কারো দ্বারা বাস্তবায়ন করার সম্ভবনা বেশি, যে কুরআনে কি আছে তা কোনো সত্যবাদীর কাছ থেকে জানবে অথবা পড়ার মাধ্যমে জানবে। যা কিনা কুরআনের আয়াত শুধু উচ্চারণ করার মাধ্যমে আদৌ জানা সম্ভব নয়।

(১৫) যারা জানে আর যারা জানে না তারা সমান নয়:

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন নাবি (সা)কে বলতে বলেছেন, “......(হে নাবি) বলুন, যারা জানে আর যারা জানে না তারা কি সমান? বিবেকবান লোকেরাই কেবল উপদেশ গ্রহণ করে।” (সুরা যুমার, ৩৯:৯)। ‘জানা’ দিয়ে কি বোঝায়? যেমনঃ একজনকে জিজ্ঞাসা করা হল, আচ্ছা ভাই পশ্চিম দিক কোনটি? তখন সে উত্তর দিল, পশ্চিম দিক এই দিকে। তার মানে সে জানে কোন দিকটি পশ্চিম দিক। আরেকজন যে জানে না পশ্চিম দিক কোনটি তাকে জিজ্ঞাসা করলে সে বলতে পারবে না পশ্চিম দিক কোনটি। এটাই হল জানা আর না জানার মধ্যে পার্থক্য। তবে যে জানে না পশ্চিম দিক কোনটি সেও উত্তর, দক্ষিন, পূর্ব, পশ্চিম এসব দিকের নাম ঠিকই জানে।

এবার কুরআনের আয়াত নিয়ে আমরা একটু চিন্তা করি। ধরুন, একজন সুরা মাউনের প্রথম তিনটি আয়াতের অর্থ জানলো। যার অর্থ হচ্ছে, “তুমি কি দেখেছো তাকে যে বিচার দিবসকে মিথ্যা বলে? সে সেই ব্যক্তি যে এতিমকে ধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দেয় এবং সে অভাবগ্রস্তকে খাদ্য দিতে উৎসাহ দেয় না।” কুরআনের এতটুকু অনুবাদ পড়েই অনেক কিছু জানা যায়। এতটুকু কারো জানা থাকলে যারা হাশরের দিন আল্লাহর কাছে জবাবদিহিতার ভয় করে সে অন্তত এতিমের সঙ্গে খারাপ আচরণ করবে না এবং মিসকিনকে খাবার দিতে কখনো অনুৎসাহিত করবে না। আরেকজন ব্যক্তি যিনি এই সুরার অর্থ কিছুই জানেন না, তাদের দুজনের জ্ঞান কি একই রকম থাকবে? কোনো পার্থক্য কি হবে না? অবশ্যই হবে। মাত্র তিনটি আয়াতের অর্থ জানার কারণে এই দুই ব্যক্তির মর্যাদা আল্লাহর কাছে আর সমান হবে না। এখন যে এর অর্থ জানে না তিনি যদি সুরাটি দিনে ১০০ বারও উচ্চারণ করে তবুও সে ওই ব্যক্তির সমান হবে না যে এর অর্থ জানে। কারণ, আল্লাহই বলেছেন যারা জানে এবং যারা জানে না তারা সমান নয়। আল্লাহ আমাদের সবাইকে বুঝতে চেষ্টা করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

(১৬) নিয়ত বা সংকল্প বা উদ্দেশ্যঃ

রাসুলুল্লাহ (সা) বলেছেন, “আমল (কাজ) তার নিয়তের উপর নির্ভর করে।” আমরা যখন বাংলা অক্ষরজ্ঞান অর্থাৎ অ আ ই ক খ গ ইত্যাদি শেখা শুরু করি তখন আমাদের উদ্দেশ্য থাকে বাংলা ভাষায় লিখিত কোনো বইয়ে কি তথ্য আছে তা জানতে। না জানার জন্য আমরা লেখা পড়া শিখি না। কিন্তু কুরআনের বেলায় দেখা যায় ঠিক উল্টো! কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন তা জানার জন্য আমরা কুরআনের অক্ষরজ্ঞান অর্জন করি না। কুরআনের আয়াতগুলো সঠিকভাবে আরবিতে উচ্চারণ করতে শেখার জন্য আমাদেরকে অনেক সময় ব্যয় করতে হয়েছে। অথচ, কুরআন নাযিলের উদ্দেশ্য হল মানুষকে হেদায়াত করা। (১৪ নং পয়েন্ট)। আমরা কুরআনের আয়াত উচ্চারণ করছি ঠিকই কিন্তু কুরআন থেকে হেদায়েত পাচ্ছি না বরং কুরআনে কি আছে তা না জানার কারণে শয়তান বিভিন্নভাবে মানুষকে ধোঁকা দিয়ে চলেছে। এর মূল কারণ, প্রথমত কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন তা না জানা এবং দ্বিতীয়ত জানার পর তা বুঝে গ্রহণ না করার কারণে। এক্ষেত্রে যদি ছোটবেলা থেকেই শেখানো হতো কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন তা জানতে হবে তবে আজ আমাদের শিক্ষিত সমাজের একটি বিরাট অংশ কুরআন সম্পর্কে মূর্খ থাকতো না। আফসোস।

(১৭) তেলাওয়াত দিয়ে কি বোঝায়?

তেলাওয়াত শব্দের একটি প্রধান অর্থ হচ্ছে আবৃত্তি করা। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন, “যেভাবে আমি তোমাদের মধ্যে একজন রাসুল প্রেরণ করেছি তোমাদের মধ্য থেকে, যে তোমাদের কাছে আমার আয়াতসমূহ তেলাওয়াত (আবৃত্তি) করে, তোমাদেরকে পবিত্র করে এবং কিতাব ও হিকমত শিক্ষা দেয়। আর তোমাদেরকে শিক্ষা দেয় এমন কিছু যা তোমরা জানতে না।” (সুরা বাকারা ২:১৫১)।

এই ধরনের কিছু আয়াত আছে যা দেখিয়ে অনেকে বলে থাকেন রাসুলুল্লাহ (সা)-এর একটি কাজ ছিল শুধু কুরআন তেলাওয়াত করে শোনানো। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে কাদেরকে তেলাওয়াত (আবৃত্তি) করে শোনাতেন? এই আয়াতটিতেই তা স্পষ্ট করে বলে দেয়া আছে যে, তোমাদের মধ্য থেকে একজন রাসুল প্রেরণ করা হয়েছে তোমাদের কাছে আল্লাহর আয়াত তেলাওয়াত (আবৃত্তি) করে শোনানোর জন্য। নাবি (সা)-এর নিজের মাতৃভাষা ছিল আরবি এবং যাদেরকে তেলাওয়াত করে শোনাতেন তাদের মাতৃভাষাও ছিল আরবি। যার কারণে যখন তেলাওয়াত করে শোনাতেন তখন আরবের মানুষেরা অধিকাংশ আয়াত বুঝতে পারতেন। আর এই বুঝতে পারার জন্যই কুরআন তেলাওয়াত শুনে তাদের মধ্যে কি প্রতিক্রিয়া হত সে সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, “আর যখন তাদের কাছে আমার আয়াতসমূহ সুস্পষ্টরূপে তেলাওয়াত (আবৃত্তি) করা হলে যারা কুফরী করে তাদের মুখমণ্ডলে তুমি অসন্তোষ লক্ষ্য করবে; তাদের কাছে যারা আমার আয়াতসমূহ তেলাওয়াত (আবৃত্তি) করে, তাদেরকে তারা আক্রমণ করতে উদ্যত হয়।......।” (সুরা হাজ্জ, ২২:৭২)। যারা কুফরী (অস্বীকার) করে তাদের কাছে কুরআন তেলাওয়াত করে শোনালে মুখমণ্ডলে অসন্তোষ প্রকাশ পায় এবং আক্রমণ করতে উদ্যত হয়।

এবার একটু চিন্তা করে দেখুন, যদি একটি স্টেডিয়ামে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের এবং গোত্রের মানুষকে একত্রিত করা হয় যারা আরবি ভাষার কিছুই জানে না এবং তাদের উদ্দেশ্যে ৫ মিনিট কুরআন থেকে তেলাওয়াত করা হয় তবে কি তাদের চেহারায় অসন্তোষ প্রকাশ পাবে বা তারা কি আক্রমণ করতে উদ্যত হবে? কখনই না বরং তখন দেখা যাবে তারা একজন আরেকজনের দিকে তাকিয়ে জানতে চাইবে কেউ কিছু বুঝতে পারছে কিনা! কুরআনের বিভিন্ন আয়াতে দেখা যায় যখন কারো উদ্দেশ্যে আল্লাহর আয়াত তেলাওয়াত করা হয় তখন কোনো বিষয় সম্পর্কে জানানোর জন্যই তেলাওয়াত করা হয়। “ইকরা তেলাওয়াত ও উচ্চারণ” বইটির ৮ নম্বর পয়েন্টে, কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে মানুষকে না জানা বিষয় সম্পর্কে জানানো হয় তার আরো কিছু উদাহরণ দেয়া আছে।

সুতরাং, বুঝা যাচ্ছে কুরআন তেলাওয়াতের সঙ্গে তেলাওয়াত করে কি জানানো হচ্ছে তা বোঝার একটা সম্পর্ক আছে। যার উদ্দেশ্যে তেলাওয়াত (আবৃত্তি) করা হল সে যদি কিছুই বুঝতে না পারে তবে তা আসলে তার জন্য তেলাওয়াত হয়নি। ঠিক যেমন পড়লো কিন্তু কিছুই জানতে পারল না তখন তা আর ‘পড়া’ হয়নি উচ্চারণ হয়েছে। সে জন্যই প্রত্যেক নাবি রাসুল (আ)গণের কাছে তাঁদের মাতৃভাষায় কিতাব নাজিল করা হয়েছিল যেন তা তেলাওয়াত করে আল্লাহ কি বলেছেন তা লোকদেরকে শোনাতে পারেন। আল্লাহ আমাদেরকে বুঝতে চেষ্টা করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

(১৮) কিসে কত নেকি হবে তা কে নির্ধারণ করবেঃ

ইসলামে এটি একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোনো একটি আমল গ্রহণযোগ্য হবার জন্য তা অবশ্যই রাসুলুল্লাহ (সা)-এর সুন্নাহ মত হতে হবে। এবিষয়টি সবাই জানে বিধায় সবাই রাসুলুল্লাহ (সা)-এর সুন্নাহ কোনটি তা নিয়ে বার বার আলোচনা করেন। ঠিক তেমনি একমাত্র আল্লাহই বলবেন অথবা রাসুলুল্লাহ (সা) বলবেন কোন আমল করলে কতটুকু হাসানা (নেকী) হবে। এছাড়া আর যে কেউ বললে তা আর গ্রহণযোগ্য হবে না। যদি কেউ একজন বলে, সুরা ফাতিহা কুরআনের তিন ভাগের এক ভাগ। এটা তখনই গ্রহণযোগ্য হবে যখন তা নাবি (সা) থেকে প্রমাণিত হবে। এটা অনেকটা গায়েবের বিষয়ের মত। যতটুকু আল্লাহ বলেছেন বা নাবি (সা)-এর মাধ্যমে জানিয়েছেন ঠিক তততুকুই বলতে হবে। এর বাইরে কে কি বলল বা স্বপ্নে দেখলো তা কখনো দলিল হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে না। আর যদি এধরণের কোনো কথা আল্লাহ এবং রাসুলুল্লাহ (সা)-এর বিরুদ্ধে যায় তবে তা অবশ্যই ত্যাগ করতে হবে। সুতরাং, কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন তা বোঝার কোনো চেষ্টা না করে শুধু কুরআনের আয়াতগুলো আরবিতে উচ্চারণ করলে যে নেকী হবে সে সম্পর্কে নাবি (সা) থেকে নূন্যতম একটি স্পষ্ট হাদিস থাকতে হবে তবেই তা গ্রহণযোগ্য হবে। এরকম একটি হাদিস কেউ উপস্থাপন করতে পারলেই সকল বিতর্কের অবসান হয়ে যাবে ইনশা আল্লাহ।

(১৯) কিছু অপ্রাসঙ্গিক যুক্তিঃ

কেউ কেউ বলেন সাহাবি (রা)গণের মাতৃভাষা আরবি হওয়া সত্তেও উনারা কুরআনের আয়াত বুঝতে পারতেন না। উদাহরণ হিসেবে কতক্ষণ পর্যন্ত সেহেরি খেতে পারবে তা সম্পর্কে সেই কাল সুতা সাদা সুতার আয়াত উপস্থাপন করেন। (সুরা বাকারা, ২:১৮৭)। যেখানে একজন সাহাবি (রা) বুঝতে ভুল করেছিলেন এই কাল সুতা এবং সাদা সুতা দিয়ে আসলে কি বোঝানো হয়েছে। পরে নাবি (সা) থেকে তিনি সঠিক বিষয়টি জানতে পেরেছিলেন। এমন কোনো বাঙালি পাওয়া যাবে না যে সমস্ত বাংলা শব্দ জানে। এমন অনেক বাংলা শব্দ আছে যার অর্থ জানা না থাকলে কিছুই বুঝা সম্ভব নয়। যেমন: কেউ যদি না জানে ঘৃতকুমারী দিয়ে কি বোঝায়। তবে সে মনে করতে পারে, যে কুমারী ঘি খায় তাকে ঘৃতকুমারী বলে কিংবা যে কুমারীকে ঘৃণা করা হয় তাকে ঘৃতকুমারী বলে। নিজের মাতৃভাষাতেও কেউ কোনো একটি শব্দ বা বাক্য দিয়ে কি বোঝায় তা নাও জানতে পারে। এটা খুবই স্বাভাবিক একটি ব্যাপার। সুতরাং, কুরআন পড়তে গিয়ে যখন কেউ কোনো বিষয় স্পষ্টভাবে বুঝতে না পারে তখন তা সম্পর্কে জানার জন্য যিনি ভাল বুঝেন তার কাছ থেকে জেনে নিবার জন্য আদেশ করা হয়েছে। সেজন্যই নাবি (সা) বলেছেন, “...অজ্ঞতার ঔষধ হচ্ছে জিজ্ঞাসা করা।...। (আবু দাউদ, ৩৩৬)

ভালভাবে না বুঝে এধরণের উদাহরণ শুধু শুধু তর্ক করার উদ্দেশ্যে এখানে না আনার জন্য সকলকে অনুরোধ জানাচ্ছি। পাছে আমাকেও এমন প্রশ্ন করতে হতে পারে যা অনেকের জন্য বিব্রতকর হতে পারে। তাছাড়া কোনো বিষয়ে সমাধানে পৌঁছার জন্য যা সত্য তা গ্রহণ করার মন মানসিকতা নিয়ে আগাতে হয়। নতুবা যারা শুধু তর্ক করতেই ভালবাসে কোনো সমাধানে পৌঁছাতে চায় না তাদেরকে আল্লাহ বলতে বলেছেনঃ সালামা।

এতগুলো পয়েন্টে যা বলা হয়েছে সকলের সুবিধার জন্য তার মূল বিষয়গুলো আবার সংক্ষিপ্ত আকারে নিম্নে দেয়া হলঃ

(১) ভাষা হল মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য। মনের ভাব প্রকাশ করা না গেলে তা কারো জন্য ভাষা নয় বরং শব্দ/Sound তৈরি করা হবে।

(২) অক্ষরজ্ঞান অর্জন করার উদ্দেশ্য (নিয়ত) হল কিতাবে কি আছে তা জানা। না জানার জন্য অক্ষরজ্ঞান অর্জন করা হলে তার দ্বারা পড়ার মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন করা সম্ভব নয়? তখন কুরআন তার জন্য আল্লাহর উপদেশ, সঠিক পথ নির্দেশনা এবং সত্যমিথ্যার পার্থক্যকারী হিসেবে কাজ করবে না।

(৩) ‘পড়া’ দিয়ে বোঝায় পড়ার মাধ্যমে জানতে পারা। যখন কিছুই জানতে পারবে না তখন তাকে আর ‘পড়া’ বলা যাবে না।

(৪) কেউ একজন কোনো একটি বাক্য পড়লো কিন্তু কিছুই বুঝতে পারলো না তখন তাকে আর পড়া বলা যাবে না। আসলে সে বাক্যটি উচ্চারণ করলো। আরবি ইকরা শব্দের অর্থ হচ্ছে পড়ো বা পাঠ করো, উচ্চারণ করো নয়। সকল হাদিসে পড়ার (ইকরা) কথা বলা আছে উচ্চারণ করার কথা বলা হয়নি।

(৫) আলিফ লাম মীম সমান ৩০ নেকির হাদিসটিতে নাবি (সা) হরফ কি এবং প্রতিটি হরফের জন্য (হাসানা) নেকি কিভাবে হিসাব করা হবে তা বোঝাতে চেয়েছেন। কিতাবে আল্লাহ কি বলেছেন তা বোঝার কোনো চেষ্টা না করে শুধু উচ্চারণ করলেও নেকি হবে এটা আমরা ধরে নিয়েছি। এই ধারনাটি যে সঠিক তার পেছনে স্পষ্ট কোনো প্রমাণ এখনও পাওয়া যায়নি।

(৬) অথচ, যখনি কেউ কুরআনে আল্লাহ কি বলেছেন তা জানার জন্য আরবি শেখা শুরু করবে অথবা কুরআনের কোনো নির্ভরযোগ্য অনুবাদ পড়ে জানার চেষ্টা করবে, সাথে সাথে সে যে হাসানা পাওয়া শুরু করবে সে সম্পর্কে কোনো সন্দেহ নেই। কারণ, সে তখন পড়া এবং পড়ার মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন দুটোই করতে থাকবে।

সর্বোপরি যখন আরবি ( اِقۡر) ইকরা শব্দের অর্থ পাঠ করা বা পড়া হয় ততক্ষণ পর্যন্ত কুরআন পড়তে বললে অবশ্যই বুঝে পড়াকেই বোঝায়। আর যদি ইকরা শব্দ দিয়ে, না বুঝে কুরআনের আরবি আয়াতগুলো শুধু উচ্চারণ করা বোঝায়, তবে নিশ্চিন্তে উচ্চারণ করতে থাকুন আর সোয়াব পেতে থাকুন! কিন্তু এখন পর্যন্ত কুরআনের আরবি আয়াতগুলো শুধু উচ্চারণ করলেও সোয়াব হবে এই মর্মে কোনো হাদিস জানা যায়নি। যদি কারো জানা থাকে তবে তা উপস্থাপন করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। তবে, এবিষয়ে নিশ্চিত যে, যখনি কেউ কুরআন বুঝে পড়ার চেষ্টা শুরু করবে সে সাথে সাথে সোয়াব পেতে থাকবে ইনশা আল্লাহ। সে শিক্ষিত বা অশিক্ষিত যেই হোকনা কেন।

রাসুলুল্লাহ (সা) বলেছেন, “যে বিষয়ে তোমার সন্দেহ হয়, তা ছেড়ে দিয়ে যাতে সন্দেহের সম্ভাবনা নেই তা গ্রহণ কর। যেহেতু, সত্য হলো শান্তি ও স্বস্তি এবং মিথ্যা হলো দ্বিধা-সন্দেহ।” (তিরমিজী, ২৫১৮)

হে আল্লাহ আমাদের সবাই যেন কুরআনকে ঐক্যবদ্ধভাবে ধারণ করতে পারি সেই তৌফিক দান করুন। আমিন।

# রিয়াদ আহমেদ তুষার, ১৮-৬-২০২০।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর