কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মেয়াদ শেষ হলেও কাজই শুরু হয়নি ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙন রোধ প্রকল্পের


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ১ জুলাই ২০২০, বুধবার, ৭:১৬ | জনদুর্ভোগ 


পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের বামতীরের ভাঙন রোধ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়েছে বিগত ২৫ জুন। কিন্তু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অবহেলায় অদ্যাবধি প্রকল্পের কাজই শুরু হয়নি। এ পরিস্থিতিতে নদের গর্ভে বিলীন হচ্ছে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার সিদলা ইউনিয়নের সাহেবেরচর গ্রামটি।

এলাকাবাসী বলছেন, সময়মত কাজটি শুরু করলে ভাঙনের কবল থেকে রক্ষা পেতেন এলাকাবাসী। থেমে যেতো অসহায়দের আর্তনাদ।

এদিকে নদের পানি বাড়ার সাথে সাথে বিলীন হচ্ছে বসতভিটা, বাড়িঘর ও উর্বর চার ফসলী জমি।

হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এএসএম জাহিদুর রহমান এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওয়াহিদুজ্জামান গত ২৬ জুন সরেজমিনে পরিদর্শন করে এর সত্যতা পেয়ে রোববার (২৮ জুন) কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবর প্রতিবেদন প্রেরণ করেছেন।

সরেজমিনে কথা হয় সাহেবেরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলামের সাথে। তিনি জানান, ব্রহ্মপুত্র নদের বাম দিকের অংশ ভাঙনের কারণে গ্রামের তিন কিলোমিটার একাধিক বার ভাঙনে অনেকেই বাপ-দাদার পৈত্রিক সম্পত্তি হারিয়ে অন্যের জমিতে কাজ করছে।

ইতোমধ্যে সাহেবেরচর গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়টি দু’বার ভাঙনের কবলে নদের গর্ভে বিহীন হয়ে গেছে। প্রায় ৩০ বছর ধরে ভাঙনের কারণে নদের গর্ভে বিলীন হয়ে অনেক পরিবার নি:স্ব।

এ অঞ্চলের রতন মিয়া, মঞ্জিল মিয়া, আব্দুল করিম রাস্তার উপর বাড়ি তৈরি করে বসবাস করে অন্যের জমিতে কাজ করছেন। এছাড়া অনেকেই এ অঞ্চল ছেড়ে নদের ওপাড়ে পাড়ি জমিয়েছেন। ভাঙনের কারণে গ্রামটি অনেকটাই ছোট হয়ে আসছে।

নদের ভাঙনের কবল থেকে গ্রামবাসীকে ও চার ফসলী উর্বর জমি রক্ষা করতে প্রয়াত এলজিআরডি মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ডিও লেটারের প্রেক্ষিতে সাহেবেরচর গ্রামের পশ্চিম দিকের হাজিবাড়ি থেকে পূর্ব দিকের অংশ ভাটিপাড়া পর্যন্ত ২ হাজার ৪০০ মিটার ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাঙন রোধ প্রকল্পের অনুমোদন হয় বিগত বছর।

এতদিনে নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ায় বিগত বছর ৬৮০ মিটার বাদ দিয়ে দরপত্র আহ্বান হলেও সে কাজ শেষ করার কথা ছিল বিগত ২৫/০৬/২০২০ খ্রি: এর মধ্যে। যা এখনও শুরুই হয়নি।

হোসেনপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওয়াহিদুজ্জামান জানান, সরকারি নির্দেশনায় প্রকল্পের অগ্রগতির প্রতিবেদন চাওয়ার প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙনের অংশে এখনও কোন জিও ব্যাগ না ফেলায় নদের পানি বাড়ার সাথে সাথে বাড়ি-ঘর নদের গর্ভে বিলীন হচ্ছে। অন্তত জিও ব্যাগগুলি যদি ফেলানো হত, তা হলে ভাঙন রোধ হত।

এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কিশোরগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলী জানান, প্রকল্পটি আমাদের নজরদারিতে রয়েছে। যেহেতু এটি একটি প্যাকেজের আওতায় রয়েছে, যেহেতু প্রকল্পের সার্বিক দিক বিবেচনায় ১৫ সদস্যের স্টিয়ারিং কমিটির মিটিং শেষে দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর