কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাজিতপুরে অটোসহ নিখোঁজ রাব্বী! পরিবারে মাতম


 স্টাফ রিপোর্টার | ৯ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১:১৫ | বাজিতপুর 


কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের পিরিজপুর ইউনিয়নের রস্তমপুর গ্রামের নিলু মিয়ার ছোট ছেলে মো. রাব্বী (১৮) গত মঙ্গলবার (৭ জুলাই) রাত আনুমানিক ৭টার পর থেকে ব্যাটারিচালিত অটোসহ তাকে খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

পরিবারসহ আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধব গত ২দিন ধরে বাজিতপুর উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন থানা, হাসপাতাল, বাজার-ঘাট সন্ধান করেও এ প্রতিবেদন লিখা পর্যন্ত তার কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে তার পরিবারের পক্ষ থেকে বাজিতপুর থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করা হয়েছে। এর জিডি নং-২৫২ এবং জিডির অর্ন্তভুক্ত তারিখ ৮/০৭/২০২০।

জিডির বর্ণনামতে, মঙ্গলবার (৭ জুলাই) আনুমানিক ৪টার সময় মো. রাব্বী অটোগাড়ী নিয়ে বাড়ি থেকে বাহির হয়। অনুমান সন্ধ্যা ৭ টায় রাব্বীর চাচাতো ভাতিজা কাইয়ুম (২২)-এর সাথে মোবাইলে শেষ কথা বলেন।

কাইয়ুম এ বিষয়ে প্রতিবেদককে জানান, আমি রাব্বীরে জিগাইছি তুই এহন কই। হে বলছে, আমি সুলমানের নাতিরে লইয়া (সাচ্চুর নানার নাম সুলমান) বাজিতপুর আইছি। এর থেকে তার মোবাইল বন্ধ। অটোগাড়ীরও কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

তিন দিন ধরে ছেলের সন্ধান না পাওয়ায় মা ও বাবা বার বার কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন। পরিবারটিতে চলছে মাতম। প্রতিবেশিরা শত চেষ্টা করেও মা-বাবার কান্না আর আহাজারি থামাতে পারছেন না।

এ বিষয়ে ভাগলপুর তদন্ত কেন্দ্র কর্মকর্তা এসআই জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা এ বিষয়ে নিখোঁজ রাব্বীর মোবাইল নাম্বার ট্রেকিং করে ঘটনার দিন কোথায় ছিল, কার সাথে কথা বলেছে তা বের করার চেষ্টা করছি। এ রিপোর্ট হাতে পেলেই আমরা মূল রহস্য বের করতে পারব।

রাব্বীর বড় ভাই মো. সাদেক কান্নাজড়িত কণ্ঠে প্রতিবেদককে বলেন, “আমার ভাইরে হে (সাচ্চু) হয়তো গাড়ীর লাইগ্গা মাইরা ফালাইছে। হে আমার ভাইরে (নিখোঁজ রাব্বী) কয়েকদিন আগেও প্রস্তাব দিছে সন্ধ্যার পরে বাংলা বাজার থেইক্কা ৩ জন মানসেরে (মানুষকে) বাজিতপুর হের অটো নিয়া দিয়া আইতো। বেশি ভাড়া দিবো এই লোভও দেহাইছে।

আমার ভাইরে পিরিজপুর বাজারে একদিন অটোগাড়ী চালাইতে দেইকা  (দেখে) হে বলে তোর গাড়ীটা কুব (খুব) সুন্দর। কয় ট্যাহা দে কিনচছ। হেই কতা রাব্বী মার কাছে কইছে।

কয়েকদিন আগে রাব্বী মার কাছে কইছে, মাহাপাইন্নার (হাপানিয়া) বাদলের পুত  (ছেলে) কালি আমারে লোভ দেহাই রাইতে (রাত্রে) বাজিতপুর যাইতে আর আমার গাড়ী কত ট্যাহা দিয়া কিনছি এ কতা কয়।”

এলাকায় খবর নিয়ে জানা যায়, ঘটনার দিন রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে সন্দেভাজন সাচ্চুর (১৮) বাড়ির কাছে ঈদগাহ মাঠে একটি পরিত্যক্ত অটোগাড়ী রাব্বীর বন্ধু অটোচালক মমিন (১৮) দেখতে পায়। পরের দিন সকালে রাব্বীর ভাই সেখানে গিয়ে কোন অটোগাড়ী দেখতে পায়নি। তবে রাস্তার পাশে পাট খেতের অনেকটুকু অংশ ভাঙ্গা দেখতে পায়।

নেশাখোর সাচ্চু এলাকায় নানা অপকর্মের সাথে জড়িত বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন। ঘটনার পরদিন থেকে সাচ্চুকে কেউ এলাকায় দেখতে পাচ্ছে না।

এ বিষয়ে সাচ্চুর পরিবারের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তারা বর্তমানে সপরিবারে বাড়ি থেকে লাপাত্তা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর