কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এমপিওভূক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারিবৃন্দের উচ্চতর স্কেল প্রদানের বিষয়ে স্পষ্টীকরণ ও কিছু কথা


 মোঃ আঃ বাতেন ফারুকী | ৯ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৪:২৮ | মত-দ্বিমত 


শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের বিগত ৯ মার্চ ২০২০ খ্রীঃ তারিখের পত্রসূত্রে অর্থ মন্ত্রণালয় গত ৩১ মে ২০২০ খ্রীঃ তারিখে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব বরাবর এমপিওভূক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারিবৃন্দের উচ্চতর স্কেল প্রদানের বিষয়ে স্পষ্ঠীকরণ বিষয়ে চিঠি প্রদান করেন।

চিঠিতে বলা হয়, (ক) "বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো এবং এমপিও নীতিমালা ২০১৮ এর ১১.৫ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী এমপিওভূক্ত শিক্ষক কর্মচারীগণ এমপিওভূক্তির তারিখ থেকে পদোন্নতি বা টাইমস্কেল বা অন্য কোনো ভাবে উচ্চতর স্কেল না পেয়ে থাকলে জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ এর ৭(১) নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ১০ (দশ) বছর সন্তোষজনক চাকরি পুর্তিতে পরবর্তী গ্রেডে একটি উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হবেন," এবং চিঠির (খ) অংশটি নিয়ে মহামান্য হাইকোর্টের রায় নিষ্পত্তি না হওয়ায় করণীয় কিছু নেই। সংগতকারণে আমাদেরও আলোচনা করার কিছু নেই।

উক্ত চিঠি প্রাপ্তির পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৭ জুন ২০২০ খ্রীঃ তারিখে মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর বরাবর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য চিঠি প্রদান করেন এবং যথারীতি মাউশি থেকে ১০ জুন ২০২০ খ্রীঃ তারিখে মাঠ পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দকে পুর্বোক্ত পত্রদ্বয়ের ছায়ালিপিসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চিঠি প্রদান করেন।

মূলত এরপর থেকেই একই স্কেলে ক্ষেত্রমতে একই পদে ১০ বছর চাকরি পুর্তী করা শিক্ষক কর্মচারিগণ আবেদন করা শুরু করেন। কারণ বিগত পাঁচ বছর যাবৎ অনেক শিক্ষক কর্মচারি প্রাপ্য স্কেল প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত আছেন।

কিন্তু বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি বলে কথা। তাদের বিষয়ে সংশয়, দ্বিধা সর্বদা লেগেই থাকে। শুধু অতি বুঝা কিংবা দায় না নেয়ার মানসিকতার দরুন একটি বিষয়ে দু'বার স্পষ্টীকরণ চিঠি প্রয়োজন হয়। যাক একেবারে নিশ্চিত হবার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর আবারও স্পষ্টীকরণ চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন। কারণ মাঠ পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা নানা মুনির নানা মত দিয়ে যাচ্ছেন। যথারীতি আমিও তাই করতে যাচ্ছি।

বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারিবৃন্দের মধ্যে শিক্ষক শ্রেণির এন্ট্রি লেভেলে দুই ধরনের শিক্ষক এমপিওভূক্ত হয়ে থাকেন। মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ধর্মের শিক্ষক পদে কেবল একটি  গ্রেডের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে (যা অমানবিক ও অনৈতিক বলে আমি মনে করি); গ্রেড-১১। আবার কৃষি ও কম্পিউটার/আইসিটি বিষয়ের শিক্ষক পদে কেবল গ্রেড-১০ নির্ধারিত আছে। বাকি সকল বিষয়ের সহকারী শিক্ষক পদে দুটো করে গ্রেড নির্ধারিত আছে; গ্রেড ১০ ও ১১। গ্রেড-১১ এর জন্য বিএড প্রশিক্ষণবিহীন শিক্ষক এবং গ্রেড-১০ এর জন্য বিএড প্রশিক্ষণসহ শিক্ষক অথবা স্নাতকসহ বিশেষ কোনো কোর্স সম্পন্নকারি শিক্ষক (কৃষি, কম্পিউটার/আইসিটি)।

কিন্তু উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং মহাবিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে কেবল সহকারী শিক্ষক, শারীরিক শিক্ষা পদে গ্রেড-১০ ও গ্রেড-১১ দুটোই নির্ধারিত আছে। আর সকল পদে একটি করে গ্রেডই নির্ধারিত আছে। দুই গ্রেড বিশিষ্ট পদগুলো নিয়েই যত ঝামেলা। কোনো শিক্ষক গ্রেড-১১ তে যোগদান করে তিনি বিএড প্রশিক্ষণ করে গ্রেড-১০ প্রাপ্ত হওয়ার পর উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হবেন কি না? পেলেই বা কখন থেকে পাবেন? কিংবা কারা পাবেন, কারা পাবেন না? - এ প্রশ্নও সামনে আসছে।

এ বিষয়ে বিশদ আলোচনার আগে সংশ্লিষ্ট নীতিমালা, পরিপত্র ও আদেশগুলো বিশ্লেষণ করলে বোধ করি স্পষ্টীকরণ কিছুটা সহজিকরণ হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আদেশ সংবলিত চিঠিটি আগেই উল্লেখ করেছি। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ এর ১১.৫ অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে, "শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মচারীগণ তাঁদের এমপিওভূক্তির তারিখ থেকে ১০(দশ) বছর সন্তোষজনক চাকরি পুর্ণ হলে পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন এবং পরবর্তী ৬ বছর পর একইভাবে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্য হবেন। তবে উল্লেখিত স্কেল প্রাপ্তির ক্ষেত্রে একই স্কেলে যথাক্রমে ১০ বছর ও ০৬ বছর চাকুরি পূর্ণ হতে হবে। সমগ্র চাকরি জীবনে দুটির বেশি উচ্চতর গ্রেড/টাইম স্কেল (যে নামেই অভিহিত হোক না কেন) প্রাপ্য হবেন না।"

আবার ২০১৫ জাতীয় বেতন স্কেলের ৭ এর ১ ও ২ অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে,

"(১) কোনো স্থায়ী কর্মচারী পদোন্নতি ব্যতিরেকে একই পদে ১০ (দশ) বৎসর পূর্তিতে এবং চাকরি সন্তোষজনক হওয়া সাপেক্ষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ১১তম বৎসরে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্য হইবেন।

(২) কোনো স্থায়ী কর্মচারী তাহার চাকরির ১০ (দশ) বৎসর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্তির পর পরবর্তী ৬ (ছয়) বৎসরে পদোন্নতি প্রাপ্ত না হইলে ৭ম বৎসরে চাকরি সন্তোষজনক হওয়া সাপেক্ষে, স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরবর্তী উচ্চতর গ্রেডে বেতন প্রাপ্য হইবেন।"

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আদেশ সংবলিত চিঠিটি বিশ্লেষণ করলে সহজেই বোঝা যায়, চিঠির সারাংশ সাজানো হয়েছে মূলত ২০১৫ সালের জাতীয় বেতন স্কেলের ১১.৫ অনুচ্ছেদ এবং ২০১৮ সালের এমপিও নীতিমালার ৭(১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী। কাজেই চিঠির বক্তব্য অপেক্ষা মোক্ষম হাতিয়ার হলো এমপিও নীতিমালা এবং জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫।

২০১৫ সালের জাতীয় বেতন স্কেলের ৭(১) অনুচ্ছেদে পরিষ্কারভাবে বলা আছে কোনো স্থায়ী কর্মচারী একই পদে সন্তোষজনকভাবে দশ বছর চাকরি পূর্ণ করলে তিনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন। ৭(২) অনুচ্ছেদে আছে, দশ বছর পূর্তিতে উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির পর পরবর্তী ছয় বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন। প্রথমে 'একই পদে 'এবং দ্বিতীয় উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির ক্ষেত্রে 'পদোন্নতি না পেয়ে থাকলে ' কথাগুলো উল্লেখ আছে। অর্থাৎ পদোন্নতির মাধ্যমে পদের পরিবর্তন হয় সেক্ষেত্রে কোনো কর্মচারী যখন যে পদে থাকবেন সে পদে উল্লেখিত চাকরির মেয়াদ পূর্ণ হলেই তিনি উচ্চতর গ্রেডসমূহ পাবেন। পদোন্নতি না পেলে ১১তম বছরে প্রথম উচ্চতর গ্রেড এবং ১৭তম বছরে দ্বিতীয় উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্ত হবেন। আরও স্পষ্ট হয়ে যায় যখন দেখতে পাই উভয় গ্রেড প্রাপ্তির ক্ষেত্রেই 'পদোন্নতি ব্যতিরেকে' কথা উল্লেখ আছে।

অপরদিকে, ২০১৮ সালের এমপিও নীতিমালার ১১.৫ অনুচ্ছেদে অত্যন্ত স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে, উল্লেখিত স্কেল প্রাপ্তির ক্ষেত্রে একই স্কেলে যথাক্রমে দশ বছর ও ছয় বছর সন্তোষজনক চাকরির মেয়াদ পূর্ণ করতে হবে।

এখন দেখা যাক কারা কখন কিভাবে উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন?

বিদ্যালয় পর্যায়ে (উচ্চ মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়) মোট ৩২টি পদের মধ্যে ৪টি প্রশাসনিক পদ বাদে ২৮টি পদের ১১টি পদে চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে দুটো বেতন গ্রেড রয়েছে। এসব পদে যারা নিচের (২) গ্রেড অর্থাৎ ১১তম গ্রেডে যোগদান করেছেন তারা বিএড না করলে দশ বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর ১১তম বছরে প্রথম উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্য হবেন যদিও বিএড প্রশিক্ষণ করা চাকুরির একটি অপরিহার্য শর্ত। আর যারা বিএডসহ উপরের (১) গ্রেড অর্থাৎ ১০তম গ্রেডে যোগদান করেছেন তারাও দশ বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন। আর যারা ১১তম গ্রেডে যোগদান করে পরবর্তীতে যে কোনো সময় বিএড বা সমমানের প্রশিক্ষণ করে ১০ম গ্রেড প্রাপ্য হয়েছেন যা তাদের যোগ্যতার ভিত্তিতে অর্জন এবং তা নিয়োগকালীন যোগ্যতা ছিল, সেজন্য তারাও প্রথম উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্য হবেন।

কথা উঠেছে পেলে ১০ বছর গণনা করা হবে কখন থেকে? ১১তম গ্রেড থেকে ১০ম গ্রেডে উন্নীত হওয়ার দরুন তাদের পদের কোনো পরিবর্তন হয়নি কিন্তু স্কেল বা বেতন গ্রেডের পরিবর্তন হয়েছে। জাতীয় বেতন স্কেল অনুযায়ী তারা একই পদে আছেন। সুতরাং তাদের দশ বছর গণনা শুরু হবে ১১তম গ্রেড অর্থাৎ যোগদানের তারিখ থেকেই। আবার এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী তারা ১০ম গ্রেড প্রাপ্তির পর একই স্কেলে নেই। সুতরাং তাদের দশ বছর গণনা শুরু হবে ১০ম গ্রেড প্রাপ্তির তারিখ থেকে।

আমার মতামত হলো, যেহেতু বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগ ও বেতন-ভাতাদি এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী প্রদান করা হয়ে আসছে সেহেতু এমপিও নীতিমালার ১১.৫ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী যেসব শিক্ষক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ১১তম গ্রেড থেকে ১০ম গ্রেডে উন্নীত হয়েছেন তাদের উচ্চতর স্কেল প্রাপ্তির ক্ষেত্রে ১০ম গ্রেড প্রাপ্তির তারিখ থেকে ১০ বছর সন্তোষজনক চাকরি পূর্ণ হতে হবে। আর অন্য সকল শিক্ষক-কর্মচারী এমপিওভূক্তির তারিখ থেকে ১০ বছর পূর্তিতে উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হবেন।

কলেজের ২০টি পদের মধ্যে ৪টি প্রশাসনিক পদ বাদে ১৬টি পদের কেবল ১টি পদে (সহকারী শিক্ষক, শারীরিক শিক্ষা) চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে দুটো বেতন গ্রেড রয়েছে এবং সংগত কারণে তারাও পূর্বে উল্লেখিত বিদ্যালয় শাখার ১১ টি পদের ন্যায় উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হবেন। প্রভাষক পদের যারা অনুপাত প্রথায় সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাবেন তারা সহকারী অধ্যাপক পদে দশ বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন এবং যারা অনুপাত প্রথায় সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পাবেননা তারা এমপিওভূক্তির তারিখ থেকে দশ বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন। আর বাকি পদগুলোতে যথা নিয়মে দশ বছর সন্তোষজনক চাকরি করার পর পরবর্তী উচ্চতর বেতন গ্রেড প্রাপ্য হবেন।

সবশেষে প্রশাসনিক ৮ টি পদের প্রায় সবাই ন্যূনতম একটি টাইমস্কেল/উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হওয়ার পর প্রশাসনিক পদে এমপিওভূক্ত হয়েছেন। কাজেই তারা প্রথম উচ্চতর স্কেল নিশ্চয় পেয়ে গেছেন। তবে যারা প্রতিষ্ঠাকালীন প্রশাসনিক পদে এমপিওভূক্ত হয়েছেন এবং ২০১৫ সালের জাতীয় বেতন স্কেলের কারণে যদিও বা কেউ কেউ টাইম স্কেল না পেয়ে ১২ বছর বা প্রয়োজনীয় অভিজ্ঞতা অর্জন করে কোনো প্রশাসনিক পদে (সহকারী প্রধান শিক্ষক/উপাধ্যক্ষ) এমপিওভূক্ত হয়েছেন তারাও কিন্তু ন্যূনতম একটি বেতন গ্রেড ডিঙ্গিয়ে একটি টাইম স্কেল পাওয়া শিক্ষকদের মতই সমপদে সমস্কেলে অবস্থান করছেন। কাজেই প্রশাসনিক পদে আপাতত প্রথম উচ্চতর স্কেল পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। যেহেতু সমগ্র চাকরি জীবনে দুটির বেশি উচ্চতর স্কেল পাওয়ার সুযোগ নেই। তবে জাতীয় বেতন স্কেলের ৭(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দ্বিতীয় উচ্চতর স্কেল (মামলা নিষ্পত্তি সাপেক্ষে) প্রাপ্তির আদেশ জারি হলে প্রশাসনিক পদে কর্মরতগণ দ্বিতীয় উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হবেন। অর্থাৎ অধ্যক্ষ,উপাধ্যক্ষ,প্রধান শিক্ষক, সহকারী প্রধান শিক্ষক এসব প্রশাসনিক পদে ইতোমধ্যে একটি টাইম স্কেল প্রাপ্ত হওয়ায় বা টাইম স্কেল না পেয়েও সরাসরি উচ্চতর পদে নিয়োগ পাওয়ার দরুন আপাতত কোনো উচ্চতর স্কেল প্রাপ্য হবেন না। আর যদি জাতীয় বেতন স্কেলের 'একই পদে' শব্দগুলোর বদৌলতে স্পষ্টীকরণে পজিটিভ মতামত দেয়া হয় তবে তো কথাই নেই। যা হোক সে পর্যন্ত বেসরকারি শিক্ষক সমাজকে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করা ছাড়া কোনো উপায় নেই।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ খুব তাড়াতাড়ি স্পষ্টীকরণ আদেশ দিয়ে অপেক্ষমান প্রাপ্য ও কাঙ্ক্ষিত উচ্চতর স্কেল প্রাপ্তির ব্যবস্থা করুন।

# মোঃ আঃ বাতেন ফারুকী, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, বৌলাই, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর