কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে হটলাইনে ফোন করলেই বিনামূল্যে করোনা রোগীর বাসায় পৌঁছে যাবে অক্সিজেন


 মাজহার মান্না | ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, ১২:১৯ | বিশেষ সংবাদ 


করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবে গোটা বিশ্বটা যেন স্তম্ভ হয়ে গেছে। কিশোরগঞ্জেও সংক্রমণের কঠিন এই সময়ে শুধুই হাহাকারের শব্দ। হতাশা চেপে ধরছে সকলকে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের বাঁচার আকুতি যেন মানুষের মন ছুঁয়ে যাচ্ছে। ফুসফুসে ইনফেকশন হয়ে অক্সিজেনের অভাবে অনেকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে।

এমন বাস্তবতায় করোনা আক্রান্তদের সেবায় এগিয়ে এসেছেন কিশোরগঞ্জের একদল স্বপ্নবাজ মানুষ। তারা নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনায় স্বাস্থ্যগত জটিল অসহায় রোগীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিনামূল্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহসহ অন্যান্য সার্পোট দিচ্ছেন।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) সকালে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জেলা পাবলিক লাইব্রেরীতে সংবাদ সম্মেলনে উদ্যোক্তা লুৎফুল্লাহ হুসাইন পাভেল, ‘ডেঙ্গু রোধে কিশোরগঞ্জ’র সমন্বয়ক মোঃ শহীদুল হক লাভলু ও বিনামূল্যে অক্সিজেন সার্পোট কার্যক্রমের সমন্বয়কারী এহতেশামুল হুদা মুনাব্বী বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম সম্পর্কে সাংবাদিকদের বিস্তারিত অবহিত করেন।

তারা জানান, কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী স্বাস্থ্যগত জটিলতার কারণে আতঙ্কে বিমর্ষ হয়ে পড়েন। এ সময় তাদের অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়। সেইসব রোগীদের বিনামূল্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ করা হবে।

এ জন্য টেকনিক্যাল সার্পোটের জন্য প্রফেসর ডাঃ খালেকুল ইসলাম ববির নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে ২৪ ঘণ্টা এ কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য কয়েকশ’ স্বেচ্ছাসেবক কাজ করবেন। তাছাড়া এ সেবা নিতে সাধারণ মানুষের জন্য একটি হটলাইন (০১৭১১ ১৪৫৬৬৮) চালু করা হয়েছে।

একই সংবাদ সম্মেলনে উদ্যোক্তারা আরও জানান, করোনার উর্ধ্বমুখী এই সময়ে ডেঙ্গু জ্বরের বাহক এডিস মশার বংশ বিস্তারের প্রকোপ দেখা দিয়েছে।

এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় ‘ডেঙ্গু রোধে কিশোরগঞ্জ’ নামে একটি স্বেচ্ছাশ্রম ভিত্তিক সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করে গত ১৮ জুন থেকে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নেয়।

এ সময় স্বেচ্ছাসেবীরা গণসচেতনতা তৈরির জন্য বাড়ি বাড়ি গিয়ে ২৫ হাজার লিফলেট বিতরণ করাসহ ৬টি ফগার মেশিনের মাধ্যমে ওষুধ ছিটিয়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রতিদিন গড়ে ৮০-৯০ জন স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করেন।

একদিন পর পর সামাজিক এ ব্যতিক্রমি কাজে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের কিশোরগঞ্জের ছাত্ররা ছাড়াও স্থানীয় স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানসহ সকল সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া সংগঠক এবং নাগরিকদের স্বতঃস্ফূর্ত ব্যক্তিগত অংশগ্রহণসহ মোট ৫০০ জন স্বেচ্ছাসেবক অংশ নেন। এ লক্ষ্যে প্রতিটি ওয়ার্ডে ডেঙ্গু রোধ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে এ কাজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনির, সাঈদ সুমনসহ অন্যরা।

ডেঙ্গু রোধ কার্যক্রমের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে আয়োজকরা আরও জানায়, সচেতনতামূলক এ কাজটি বাস্তবায়ন করতে গিয়ে সমাজের নানা শ্রেণি পেশার মানুষের প্রশংসা পাওয়া গেছে। এ কার্যক্রমটি এখনো চলমান রয়েছে। এ কার্যক্রমের সামগ্রিক সফলতা আনতে ইতোমধ্যে স্বেচ্ছাসেবকদের সমন্বয়ে ৯টি ওয়ার্ডে ৯০টি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তাছাড়া জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য বাড়ি বাড়ি গিয়ে আবারো প্রচারণাপত্র বিলি, শিশু ও অভিভাবকদের সমন্বয়ে স্থানীয় চ্যানেল ও সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ডকুমেন্টারি প্রচার করা হবে।

এছাড়া ইসলাম ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী সবাই যাতে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখেন সে লক্ষ্যে আলেম-ওলামা মুফতির সমন্বয়ে একটি টিম গঠন করা হয়েছে। তাঁরা বিভিন্ন মহল্লার মসজিদগুলোতে বক্তৃতায় এ বিষয়টি মানুষের সামনে সঠিকভাবে তুলে ধরবেন।

এছাড়া করোনা পরবর্তী সময়ে উদ্যোক্তারা বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর