কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাজিতপুরে অটোচালক রাব্বী হত্যায় এক আসামি গ্রেপ্তার


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৩:০২ | বাজিতপুর 


কিশোরগেঞ্জর বাজিতপুরে চাঞ্চল্যকর অটোরিকশাচালক মো. রাব্বী (১৮) হত্যা মামলার কাইয়ুম (২০) নামে এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার (১৫ জুলাই) বিকালে উপজেলার সরারচর বাজারে অগ্রণী ব্যাংকের সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া কাইয়ুম উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের হাফানিয়া গ্রামের রমজান মিয়ার ছেলে। সে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সারোয়ার জাহান বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মো. সারোয়ার জাহান কিশোরগঞ্জ নিউজকে জানান, মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) দুপুরে রাব্বীর লাশ উদ্ধারের পর রাতে নিহতের বড় ভাই সাদেক বাদী হয়ে সাচ্চুকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে বাজিতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।

আসামিদের ধরতে পুলিশ গোয়েন্দা তৎপরতাসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছে। এর অংশ হিসেবে বুধবার (১৫ জুলাই) বিকাল সোয়া ৫টার দিকে সরারচর বাজারে অগ্রণী ব্যাংকের সামনে তারা অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি কাইয়ুমকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে একটি স্যামসাং মোবাইল ফোন ও ৩টি সীমকার্ড উদ্ধার করা হয়।

কাইয়ুমের মোবাইল থেকে নিহত রাব্বীর নিখোঁজের আগে ও পরে কয়েকটি কল রয়েছে বলেও চৌকস এই তদন্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের রস্তমপুর গ্রামের বাড়ি থেকে গত ৭ জুলাই বিকালে অটোরিকশা নিয়ে বেরিয়ে নিখোঁজ হয় রাব্বী। পরিবারসহ আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুবান্ধব খোঁজ করেও তার কোন সন্ধান না পেয়ে পরদিন ৮ জুলাই বাজিতপুর থানায় জিডি দায়ের করেন।

ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ নিখোঁজ হওয়ার এক সপ্তাহ পর মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) দুপুরে পার্শ্ববর্তী হাফানিয়া গ্রামের একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাংকি থেকে রাব্বীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

রাব্বী নিখোঁজ হওয়ার পরই পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, হাফানিয়া গ্রামের বাদল মিয়ার ছেলে সাচ্চু (১৮) অটোরিকশাসহ রাব্বীর নিখোঁজের ঘটনায় জড়িত রয়েছে। গত ৭ জুলাই বিকালের দিকে সাচ্চু অটোরিকশাটিকে রিজার্ভ হিসেবে ভাড়া করে রাব্বীকে শহরে নিয়ে যায়।

তাদের ধারণা, সন্ধ্যার পর অন্ধকারে অটোরিকশাটি চুরি করে নিয়ে যেতে চাইলে বাঁধা দেয়ায় রাব্বীকে মেরে ফেলা হয়েছে। পরে ঘটনা ধামাচাপা দিতে রাব্বীর লাশ গুম করে ফেলে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর