কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় রূপচর্চায় পার্লারে যাচ্ছেন না মেয়েরা, পার্লার ব্যবসায়ীদের দুর্দিন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ১৯ জুলাই ২০২০, রবিবার, ৭:২১ | নারী 


বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে সৃষ্ট দুর্যোগে কর্মহীন হয়ে পড়ছেন কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার প্রায় অর্ধ-শতাধিক পার্লার ব্যবসায়ী। লকডাউনে চার মাস ধরে পার্লারগুলো বন্ধ থাকায় আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে গেছে তাদের। এতে দুর্দিন কাটছে না তাদের।

দোকান ভাড়া, নিজের সংসার চালানো নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ছেন তারা। এদিকে কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন পেশার লোকজন সরকারি অনুদান পেলেও তা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন বলে তাদের আক্ষেপ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার পৌরসদরসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রায় অর্ধ-শতাধিক বিউটি পার্লার রয়েছে। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নারী উদ্যোক্তারা এসব পার্লার ব্যবসার মাধ্যমে স্বাবলম্বী হওয়ার চেষ্টা করছিল। এতে কিছুটা স্বচ্ছলভাবে কাটছিল তাদের জীবন।

কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট দুর্যোগে সরকারি নির্দেশনায় গত চার মাস ধরে বন্ধ রয়েছে তাদের প্রতিষ্ঠান। এতে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন এসব নারী উদ্যোক্তারা।

তাছাড়া পার্লার খোলা থাকলেও কোন কাজ নেই। বিয়েসাদিসহ বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ থাকায় মেয়ে-নারীরা পার্লারমুখী হচ্ছেন না।

নিয়মিত যারা রূপচর্চা করতেন তারাও অনেকে আর্থিক সংকটে আবার কেউ করোনার ভয়ে বাইরে কাজ করাচ্ছেন না। এতে অনেকটাই দুর্দিন কাটাতে হচ্ছে পার্লার ব্যবসায়ীদের।

পাশাপাশি গত চার মাসের দোকান ভাড়া বাকি পড়ে যাওয়ায় দুশ্চিতা যেন পিছু ছাড়ছে না তাদের।

নারী উদ্যোক্তারা বলেন, করোনায় তাদের কাজকর্ম বন্ধ হয়ে গেছে। গত চার মাস ধরে তাদের কোন আয়-রোজগার নেই। দোকান ভাড়াসহ পরিবার-পরিজন নিয়ে বেকায়দায় পড়েছেন তারা।

সামনে ঈদুল আজহা। কিন্তু কেউ রূপচর্চা করতে আসছেন না। সবমিলিয়ে দুর্দিন যেন কাটছে না তাদের।

আর্থিক অনুদান ও সহজ শর্তে ঋণ প্রদান করে এসব নারী উদ্যোক্তাদের টিকিয়ে রাখতে সরকারের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর