কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেলে অন্য রোগীদের সেবা দেয়ার নির্দেশ স্বাস্থ্য সচিবের


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২৫ জুলাই ২০২০, শনিবার, ৭:৫৩ | স্বাস্থ্য 


সারা দেশে প্রশাসনে সাড়ে ছয় হাজার ক্যাডার সদস্য রয়েছে। পুলিশে তিন হাজার ক্যাডার সদস্য আর স্বাস্থ্য বিভাগে প্রশাসন ক্যাডারের দ্বিগুণ সদস্য রয়েছে। প্রশাসন ও পুলিশ সারা দেশে তাদের কাজ সু-সম্পন্ন করে জনগণকে সঠিক সেবার পাশাপাশি আইন-শৃংখলা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে রক্ষা করে দেশের মানুষের কাছে সমাদৃত হচ্ছেন।

অথচ স্বাস্থ্য খাতে দ্বি-গুণের বেশি ক্যাডার সদস্য থাকার পরও তাদের চেয়ে অনেকটাই পেছনে রয়েছে। তাই ৬৪ জেলায় মেডিকেল অফিসার, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, কনসালটেন্টদের সুষম বন্টন করে তাদের যথাযথ পোস্টিং দিতে পারলে জনগণের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত হতে পারে। আমরা সেই দিকেই এগিয়ে যাচ্ছি।

শনিবার (২৫ জুলাই) কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যার হাসপাতাল ও শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপতালে চিকিৎসকদের সাথে এক মত-বিনিময় সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বসুন্ধরা করোনা হাসপাতালের জন্য ৩৭ জন রোগীর জন্য ১৮১ জন চিকিৎসক। তাদের থাকা খাওয়ার জন্য সরকারের মোটা অংকের টাকা খরচ হয়েছে।

দেশে শুধু কোভিড-১৯ রোগি রয়েছে? এমন প্রশ্ন সামনে এসেছে। পেট ব্যথা, লিভার, হার্ট, নিমোনিয়াসহ নানা প্রকার রোগের চিকিৎসা সেবা করোনার কারণে গত তিন/চার মাস সঠিকভাবে হয়নি। তাই এসব রোগিদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে হবে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জে কোনো মানুষ জঠিল রোগে আক্রান্ত হলে তার চিকিৎসা এই জেলাতেই হবে। এর জন্য মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সব ধরণের চিকিৎসা সরঞ্জামসহ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পোস্টিং দিতে হবে।

এরপর কোনো রোগীকে যদি উন্নত চিকিৎসা সেবা নিতে হয়ে, তাহলে তাকে ঢাকা অথবা বিদেশে যেতে হবে এমন ব্যবস্থা করতে আমরা বদ্ধ পরিকর।

তিনি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের যাবতীয় সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন। কোভিড রোগী কমে আসায় তিনি একটি ইউনিট বাদ দিয়ে অন্য ইউনিটগুলোতে অন্যান্য সকল রোগের চিকিৎসার দ্বার উন্মোচন করার জন্য কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

সচিব আরও বলেন, করোনাকালে সচিব হিসেবে কিশোরগঞ্জের করোনার দায়িত্ব পাওয়ার পরই করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে প্রথম সভায় মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করি। এতে এ জেলার মানুষ উপকৃত হয়েছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ঘরের বাইরে ও অফিস-আদালতে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করে গত ২৩ জুলাই মন্ত্রণালয় থেকে পরিপত্র জারি করা হয়েছে। মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। মাঠপর্যায়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ এ ব্যাপারে কঠোর ভূমিকা পালন করবে।

মাস্ক পরার গুরুত্বের কথা উল্লেখ করে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, তিনি (সচিব) স্ত্রীকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি গিয়েছিলেন। সেখানে এক আত্মীয়ের মাধ্যমে তার স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর করোনার কাছে পরাজিত হয়ে স্ত্রী কামরুনাহার জেবু মারা যায়।

গ্রামের বাড়িতে ওই আত্মীয় (নারী) এবং স্ত্রী জেবু মাস্ক ছাড়া ছিলেন। একে-অপরের সঙ্গে মাস্ক ছাড়া মিশেছেন। মূলত ওই আত্মীয়ের কাছ থেকে  স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হন। স্ত্রী মারা গেলেও ওই আত্মীয় এখন সুস্থ।

স্বাস্থ্য বিভাগের সচিব মো. আবদুল মান্নান বলেন, এখন আমার কাছে বার বার মনে হয় মাস্ক পরিহিত থাকলে আমার স্ত্রীকে হয়তো হারাতে হতো না। আমরা মানুষকে সচেতন করছি। কোনো অবস্থায়ই মাস্ক ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না। মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে আরও কঠোর হবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও প্রশাসনকে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি তার জীবনের এই হৃদয় বিদায়ক ঘটনা তুলে ধরেন।

তিনি আরো বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক কঠিন সময়ে এবং বিব্রতকর পরিস্থিতিতে নতুন দায়িত্ব পেয়েছেন। আশা করি সততা ও দেশপ্রেমের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে তিনি তার দায়িত্ব  পালন করে উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন।

কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্স সঙ্কটের সমাধান করা হবে জানিয়ে স্বাস্থ্য সচিব মো. আবদুল মান্নান বলেন, এ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করছে। গত তিন মাসে ১০ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ পেয়েছেন।

জেলার বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে মানুষ স্বাস্থ্যসেবা নিতে গিয়ে যেন হয়রানির শিকার না হন, বিষয়টি নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এ সময় কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা বিএমএ‘র সভাপতি ডা. মাহবুব ইকবাল, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. দীন মোহাম্মদ, স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক ডা. মো. হাবিবুর রহমান, সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, উপ-পরিচালক ডা. মো. হেলাল উদ্দিন, কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মো. হিবরুল বারী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর