কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

শত বাঁধা পেরিয়ে আজ তারা আলোর মিছিলে



 মহিউদ্দিন লিটন, বাজিতপুর প্রতিনিধি | ৫ এপ্রিল ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১২:৫৯ | নারী 


নারী সংগ্রামী বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। তেমনি বাজিতপুর উপজেলার পৌরসভাসহ ১১টি ইউনিয়নে অসংখ্য নারী শত বাঁধা পেরিয়ে আলোকিত করছেন পরিবার, সমাজ ও দেশ। তাদের মধ্যে পাঁচজন নারী লাভ করেছেন ‘জয়িতা’ সম্মাননা।

এবার উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে যে পাঁচজন নারী জয়িতা হয়েছেন তারা হলেন, অর্থনৈতিক ভাবে সাফল্য অর্জন কারী নারী নিলুফা বেগম, শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন কারী শিউলী বেগম, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে জীবন সংগ্রামে জয়ী জোসনা বেগম, সফল জননী কানিজ ফাতেমা ও সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদানে সৈয়দা ফারজানা আক্তার।

অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী নিলুফা বেগম: বাজিতপুর পৈরসভার পশ্চিম পৈলনপুর গ্রামের নিলুফার বয়স যখন ১৪ বছর তখন তার মা-বাবা অভাবের তাড়নায় তাকে বিয়ে দিয়ে দেন। ফলে তার লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। স্বামী কোন কাজ করতেন না। স্বামীর সংসারে দারিদ্রতার কারণে তিনি বিয়ের কিছুদিন পরেই নিজের বাবার বাড়িতে চলে আসেন। একে তো বাবার আর্থিক অবস্থা ভাল না, তার উপর নিলুফার আগমন। এ পরিস্থিতিতে নিজেই কিছু একটা করার মনস্থির করেন নিলুফা বেগম। প্রথমে হাঁস-মুরগী পালন করলেও স্বামী ইসমাইল তা গোপনে নিয়ে বাজারে বিক্রি করে দিয়ে নিলুফার সমস্ত স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে বার বার। একেতো নিজের ভরণ পোষণ তার উপর যোগ হয় দু’টি সন্তানের দায়িত্ব। স্বামীকে ব্যবসা করার জন্য লগ্নি করে পুজি দিলেও কিছুই করতে পারে না স্বামী। চারদিক অন্ধকার দেখেন নিলুফা। ঘরের এক কোণে চটপটি তৈরির দোকান করেন। সকাল বেলা নিজ হাতে ফুচকা তৈরি করেন বিকেল বেলায় চটপটির দোকান। প্রথমে ব্যবসা ভাল না চললেও হাল ছাড়েন নি। তিনি আস্তে আস্তে দক্ষ হতে থাকেন ব্যবসা পরিচালনায়। চটপটি তৈরির পাশাপাশি ফুচকা পাইকারি দরে বিক্রি করেন। নিজের বাড়ী, গরুর ছোট খামার, স্বামীর ব্যবসা আয়োজন সবই নিলুফার হাত ধরে। আজ নিলুফা অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী হিসেবে সকলের পরিচিত মুখ।

শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী শিউলী বেগম: উপজেলার সরারচর ইউনিয়নের তেফরিয়া ফকিরবাড়ী গ্রামের শিউলীর যখন পড়াশুনার করার কথা ছিল তখনই পারিবারিক সিদ্ধান্তে শিউলীকে বিয়ে দিয়ে দেয়া হয়। তার স্বপ্ন ছিল লেখাপড়া করে উচ্চ শিক্ষা লাভ করে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবেন। কিন্তু ইচ্ছে পূরণ হলো না। বেকার স্বামী রোজগার করতেও পারে না। জন্ডিসে আক্রান্ত হয়ে আর্থিক দৈন্যদশায় পতিত হতে হয়। ছোট ছোট কন্যা সন্তান নিয়ে তখন সম্পূর্ণ অসহায় অবস্থায় শিউলী। একমাত্র মুক্তি দিতে পারে শিক্ষা। নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে পরিবারের অগোচরে ভর্তি হন উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে। সেখান থেকেই এসএসসি পরীক্ষা পাশ করেন শিউলী। তারপর আনন্দ স্কুল ও কিন্ডার গার্টেন স্কুলে দু’শিফটে শিক্ষকতা করে নিজের পড়াশুনা ও সংসারের খরচ চালিয়েও এইচএসসি পাশ করেন। ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস। ২০১৬ সালের মার্চ মাসে স্বামী অসুস্থ হয়ে পড়েন। ডাক্তারি পরীক্ষায় ধরা পড়ে তার দুটি কিডনীই বিকল হয়ে পড়েছে। প্রতি সপ্তাহে দুই দিন তাকে ডায়ালসিস করাতে হবে। ব্যয়বহুল খরচ সপ্তাহে ১০ হাজার টাকা লাগবে চিকিৎসা বাবদ। একদিকে সংসারের খরচ, মেয়েদের লেখাপড়ার খরচ, অন্য দিকে তার স্বামীর চিকিৎসার খরচ। সব মিলে চোখে অন্ধকার দেখেন শিউলী। ২০১৬ সালের আগস্ট মাসে তাঁর স্বামী মারা যায়। তারপরও হাল ছাড়েননি। তিনি ¯œাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। শিউলী নিজের জীবন দিয়ে উপলব্দি করেছেন, একমাত্র শিক্ষাই পারে জীবনকে আলোকিত করতে। তাই নারী শিক্ষা অত্যাবশ্যক। মেয়েদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করেছেন। বড় মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আর ছোট মেয়ে আফতাবউদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজে পড়ছে । নিজে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। তিনি একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করেন।

সফল জননী কানিজ ফাতেমা: দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করার সময় বিয়ে হয় কানিজ ফাতেমার। বিয়ের পর স্বামীর যৌথ পরিবার। সন্তান জন্ম হওয়ার আর পড়াশোনা হয়নি। সন্তানদের পড়াশোনার জন্য দেড় রুমের ঘর ভাড়া নিয়ে থাকেন ভাগলপুর। কানিজ ফাতেমা বাল্যবিয়ের কারণে মাধ্যমিকের গন্ডি পেরুতে পারেননি। তাই সন্তানদের দিয়ে সেই ইচ্ছে পূরণ করার প্রতিজ্ঞা করেন। নিজের সব ইচ্ছাকে ত্যাগ করে ছেলে মেয়েদের পড়াশুনার দিকে নজর দেন তিনি। পরপর ২ মেয়ে হওয়ার পর এক ছেলে হয়। ছেলে এবং মেয়ের মধ্যে কোন তফাত করেননি তিনি। সমান গুরুত্ব দিয়ে সন্তান হিসেবে তাদেরকে মানুষ করেন। তার তিন সন্তানই এখন বিসিএস ক্যাডার। এর মধ্যে বড় মেয়ে  ৩১তম বিসিএস-কাস্টমস ক্যাডার, ছোট মেয়ে ৩৩তম বিসিএস-আনসার ক্যাডার এবং একমাত্র ছেলে ৩৬তম বিসিএস-পুলিশ ক্যাডার। কানিজ ফাতেমা এখন একজন সফল জননী।

নির্যাতনের বিভীষিকা  মুছে ফেলে নতুন উদ্যেমে জীবন শুরু করেছেন জোসনা আক্তার: উপজেলার গাজিরচর ইউনিয়নের সাদিরচর গ্রামের জোসনার বয়স যখন ১১ বছর তখন তার গরিব মা-বাবা অভাবের তাড়নায় এক বয়স্ক ছেলের সাথে বিয়ে দেন। যার ৩টি সন্তান আছে এবং প্রথম বউ বর্তমান। জোসনা পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ছে। রান্নাও করতে পারতো না। সতীনের সংসারে কাজ না করতে পারলে সতীন খাবার বন্ধ করে দিত। শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতো প্রতিনিয়ত। যৌতুকের টাকার জন্য জোসনাকে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দিত। কিন্ত জোসনার বাবা টাকা কোথায় পাবে? জোসনার দুই ভাই আর চার বোন। বাবা অসুন্থ রোজগার করতে পারেন না। কোন রকমে নিজের একটি জমি ও অন্যের জমি চাষ করে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাতেন। জোসনা বাবার বাড়িতে এলে মা-বাবা আবারও চাপ দিয়ে তাকে শ্বশুর বাড়িতে পাঠিয়ে দিত। এভাবে ১১মাস চলে যায়। কাজ না করায় এবং যৌতুকের টাকা না আনার কারণে জোসনার স্বামী ও সতীন দুজনে মিলে জোসনাকে ভাজাকাঠি দিয়ে পিঠে ছ্যাকা দিতে দ্বিধাবোধ করে নি। অবশেষে জোসনা রাতের অন্ধকারে শ্বশুর বাড়ী থেকে বাবার বাড়ি চলে আসেন। জোসনা তার দুঃসম্পর্কের এক চাচাতো বোনের সাথে পালিয়ে ঢাকা চলে যায়। সেখানে এক গার্মেন্টে কাজ করে নিজের খরচ মিটিয়ে যা বাঁচতো তা বাড়িতে পাঠাতেন। এভাবে তিন বছর চলে যায়। বাবা অসুস্থ হয়ে পড়ার কারণে জোসনা বাড়ীতে আসে। গার্মেন্টে আর না ফিরে বাড়ীতেই জোসনা তার আশেপাশের ৯জনকে কাজ শেখান। তাদের মধ্যে ৩ জন কে গার্মেন্টে যাওয়ার জন্য অনুপ্রাণিত করেন। গার্মেন্টের মালিক জোসনাকে তার কাজের জন্য অনেক পছন্দ করত। কিন্তু ৬ মাস ছুটিতে থাকার জন্য তাকে চাকুরি না দেয়ার মত পোষণ করেন। জোসনা যখন তার পারিবারিক সব ঘটনা খুলে বলে তখন মালিক পুনরায় চাকুরি দেন। এক বছর পর জোসনাকে গার্মেন্টের পক্ষ থেকে বিদেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়। বিদেশে গেলেও জোসনা তার নির্যাতনের কথা ভুলেননি। পণ করেন, নিজে প্রতিষ্ঠিত হবেন এবং ভাই-বোনদের প্রতিষ্ঠিত করবেন। বিদেশ থেকে বাড়ীতে আসার পর উপার্জনের টাকায় জোসনা জমি ক্রয় করে মুদির দোকান দিয়েছেন। জোসনা তার বাড়ীর আশেপাশে অভিভাবকদের বুঝান যে, কম বয়সে মেয়ে বিয়ে দিলে অবস্থা তার মতো হবে। আজ জোসনা নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যেমে জীবন শুরু করেছেন।

সমাজ উন্নয়নে আসমান্য অবদান রেখেছে সৈয়দা ফারজানা: উপজেলার দিলালপুর ইউনিয়নের মোল্লাপাড়া গ্রামের সৈয়দা ফারজানা। এলাকার জুয়া খেলার আসর ভেঙ্গে দিয়ে যুব সমাজকে তিনি রক্ষা করেছেন। টাকা দিয়ে কেরাম খেলা বন্ধ করেছেন এবং নিজের ভাইয়ের দোকানের কেরামবোর্ড ভেঙ্গে দিয়ে এলাকার ৪-৫ জন মহিলাকে সাথে নিয়ে প্রতিবাদ করেছেন। ফারজানা ১৯৯৮ সাল থেকে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে কাজ করছেন। সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচির সহযোগিতায় একমাস ব্যাপি তিনি নিজে ছাড়াও আরো ৩০ জন মহিলাকে যুব উন্নয়ন অফিস থেকে সেলাই প্রশিক্ষণ করিয়েছেন। গ্রাম আদালত কমিটিতে তিনি রয়েছেন এবং আইনি সহযোগিতা পাওয়ার জন্য অসহায় নারীদের সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। তিনি গর্ভবর্তী মায়ের গর্ভকালীন সময়ে স্বাস্থ্যসেবা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১৩ জন মহিলাকে ধাত্রী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন। বর্তমানে ১৩ জনই এলাকায় ধাত্রীর কাজ করছেন। এলাকার যে কোন সমস্যা হলে তার কাছে সবাই পরামর্শ গ্রহণ করেন। সমাজ উন্নয়নে নিরবে নিভৃতে কাজ করে যাচ্ছেন সৈয়দা ফারজানা।

বাজিতপুর মহিলা বষিয়ক কর্মকর্তা রেহানা আক্তার বলেন, নারীরাও শত বাঁধা পেরিয়ে জীবন সংগ্রামে জয়ী হতে পারে। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর মাঠ পর্যায়ে ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ এর নির্বাচিত এই পাঁচ নারী সংগ্রামী সেসব নারীরই প্রতিচ্ছবি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর
















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ