কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনা শনাক্তের সংখ্যা ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ৩৭, সুস্থ ১৭৬২


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৩১ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৩:১৯ | সম্পাদকের বাছাই  


কিশোরগঞ্জে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দুই হাজার ছাড়িয়েছে। সংক্রমণ শনাক্তের ১১২তম দিনে এসে এ রেকর্ড যোগ হল। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদনে জেলার ৫ উপজেলায় ২৩ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলার  ১৩ উপজেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১৮।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জেলায় ২৪ ঘন্টায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৩৭ জনের। নতুন মৃত্যু হওয়া ব্যাক্তির নাম মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বাসিন্দা এবং ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর সিনিয়র আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ ছিলেন।

মাওলানা রফিকুল ইসলাম বুধবার (২৯ জুলাই) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

জেলায় ২৪ ঘন্টায় করোনাভাইরাস মুক্ত হয়ে  সুস্থ হয়েছেন ১৭ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৭৬২ জন।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান।

সিভিল সার্জনের দেয়া তথ্য মতে, কিশোরগঞ্জে জেলায় প্রথম কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয় গত ৯ এপ্রিল, করিমগঞ্জ উপজেলার এক মৃত ব্যক্তির শরীরে। এরপর সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে পুরো জেলায়।

সিভিল সার্জনের দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে  দেখা গেছে, এ জেলায় সংক্রমণ শনাক্তের  দশম দিনে, ২০ এপ্রিল কোভিড রোগীর সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়ে যায়। ওইদিন ৬৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হওয়ায় জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা  ১৪২ জনে দাঁড়ায়।

শনাক্তের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে যায় ১২ মে ৩৪তম দিনে। ৩০০ রোগী শনাক্ত হয় ২৮ মে  ৫০তম দিনে। ৫০০ রোগী শনাক্ত হয় ৫ জুন ৫৭তম দিনে।

এক হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৭ জুন ৬৯তম দিনে। কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা দুই হাজার ছাড়িয়েছে বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) ১১২তম দিনে।

অর্থাৎ প্রথম এক হাজার রোগী শনাক্ত হতে সময় লাগে ৬৯ দিন আর পরের এক হাজার রোগী শনাক্ত হয় মাত্র ৪৩ দিনে।

এ সময়ের  মধ্যে মোট ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে  কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার আটজন হোসেনপুর উপজেলার একজন, করিমগঞ্জ উপজেলার দুইজন, তাড়াইল উপজেলার একজন, কটিয়াদী উপজেলার একজন, কুলিয়ারচর উপজেলার তিনজন, ভৈরব উপজেলার ১৪ জন, নিকলী উপজেলার তিনজন, বাজিতপুর উপজেলার দুইজন, ইটনা উপজেলার একজন ও মিঠামইন উপজেলার একজন রয়েছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, সর্বশেষ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রি-আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ সোমবার (২৭ জুলাই), মঙ্গলবার (২৮ জুলাই), বুধবার (২৯ জুলাই) ও বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সংগৃহীত ১৮৪ জনের নমুনা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়।

ল্যাবটিতে মোট ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া ২৩ জনের মধ্যে ১১ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার। বাকি ১২জনের মধ্যে  ভৈরব উপজেলায় রয়েছেন সাতজন, কটিয়াদী উপজেলায় দুইজন, নিকলী উপজেলায় দুইজন এবং হোসেনপুর উপজেলায় রয়েছেন দুইজন।

নতুন সুস্থ হওয়া ১৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সবোর্চ্চ সাতজন রয়েছেন। বাকি ১০জনের মধ্যে পাকুন্দিয়া উপজেলার চারজন, কটিয়াদী উপজেলার একজন এবং বাজিতপুর উপজেলার পাঁচজন রয়েছেন।

সিভিল সার্জন জানান, সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২১৯ জন কোভিড-১৯ রোগী রয়েছেন। এদের মধ্যে ২৫ জন হাসপাতালে এবং বাকি ১৯৪ জন নিজ নিজ বাড়িতে হোম আইসোলেশনে আছেন।

এছাড়াও অন্য জেলায় শনাক্তকৃত একজন করোনা পজেটিভ এবং দুইজন সাসপেক্টটেড/নেগেটিভ বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে জেলার ২১৯ জন করোনায় আক্রান্ত কোভিড-১৯ রোগীর মধ্যে সদর উপজেলায় রয়েছেন সর্বোচ্চ ১১২ জন।

এছাড়া হোসেনপুর উপজেলায় রয়েছেন নয়জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় নয়জন, তাড়াইল উপজেলায় চারজন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৩ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় তিনজন, ভৈরব উপজেলায় ৪৩ জন, নিকলী উপজেলায় নয়জন, বাজিতপুর উপজেলায় তিনজন, ইটনা উপজেলায় একজন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় রয়েছেন একজন।

জেলার ১৩ উপজেলার মধ্যে একমাত্র মিঠামইন উপজেলায় বর্তমানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোন কোভিড রোগী নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর