কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দিনমজুর থেকে দানবীর আব্দুল কাদির মোল্লা


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ৩১ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৩:৪০ | রকমারি 


মাত্র ৩৬০ টাকার জন্য এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়া হয়নি তাঁর। জীবনকে পরিবর্তনের আশায় শূণ্য হাতে উঠে পড়েন ঢাকাগামী বাসে। কিন্তু ভাড়া না থাকায় বাসের হেলপার নামিয়ে দেন নরসিংদীর ইটাখলা বাসস্ট্যান্ডে। ইটাখলায় দাঁড়িয়ে থাকা ময়মসিংহ থেকে আসা দিনমজুরদের সাথে কামলা খাটেন অন্যের জমিতে।

এখন তিনি দেশসেরা শিল্পপতি। কর্মসংস্থান করেছেন লাখো মানুষের। তাঁর প্রতিষ্ঠিত কলেজ থেকে এখন বের হচ্ছে হাজার হাজার কৃতী শিক্ষার্থী। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ মানবিক সব কর্মকাণ্ডে তার আর্থিক অনুদানের কথা এখন মানুষের মুখে মুখে।

বলছিলাম থার্মেক্স গ্রুপের কর্ণধার আব্দুল কাদির মোল্লার কথা। একজন আলোকিত মানুষের মডেল ও উন্নয়নের রূপকার। নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার পাঁচকান্দী গ্রামে ১৯৬১ সালের ৮ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন আব্দুল কাদির মোল্লা।

পিতার নাম আব্দুল মজিদ মোল্লা আর মাতার নাম নূরজাহান বেগম। ১৯৭৪ সালে ৮ম শ্রেণিতে পড়ার সময় পিতা আব্দুল মজিদ মোল্লা মারা যান। চরম দারিদ্রতার মধ্যেও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়ালেখা চালিয়ে যান। কিন্তু মাত্র ৩৬০ টাকার জন্য এইচএসসি পরীক্ষা দিতে পারেননি তিনি।

নিজেকে তৈরি করতে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে তাঁকে। মাত্র চার টাকা পুঁজি ছিল তাঁর। তাও মানুষের জমিতে ও ইটখোলায় কাজ করে জোগাড় করা। জীবনের প্রথম উপার্জন চার টাকা বিনিয়োগ করেছেন তার শিক্ষায়। তারপর তিন বছর টেকনিক্যাল এডুকেশন কোর্স করেন।

সার্টিফিকেট নিয়ে চলে যান সিঙ্গাপুরে। সেখানে পাঁচ বছর চাকরি করেন। পাঁচ বছর পর দেশে ফিরে এসে চাকুরি নেন তিতাস গ্যাস কোম্পানিতে। এরপর প্রতিষ্ঠা করেন থার্মেক্স গ্রুপ। এখন তার হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যবসা। একজন সফল উদ্যোক্তা এবং দানবীর হিসেবে সর্বত্র তিনি সমাদৃত।

মানবতার মূর্ত প্রতীক, শিক্ষানুরাগী, দানবীর থার্মেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল কাদির মোল্লা নরসিংদীকে বাংলাদেশের ৬৪ জেলার মধ্যে আদর্শিক জেলা, নৈতিক জেলা, শিক্ষানগরী হিসেবে পরিচিত করার লক্ষ্যে “মানুষ মানুষের জন্য, সেবাই আমাদের অঙ্গীকার” এই মিশন এবং ভিশন নিয়ে গড়ে তোলেন পিতার নামে মজিদ মোল্লা ফাউন্ডেশন।

ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান হতে আয়ের লভ্যাংশের ২৫% ব্যায় করেন মানবকল্যাণে। দক্ষ মানব সম্পদ গড়ার ভিশন নিয়ে ১৯৯৫ সালে নিজ গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেন পাঁচকান্দি ডিগ্রি কলেজ। ২০০৬ সালে নরসিংদী শহরে প্রতিষ্ঠা করেন নিজের নামে আব্দুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজ। শুরু থেকেই বাজিমাত করে চলে প্রতিষ্ঠানটি। পরপর তিনবার দেশের মধ্যে ২য় স্থান।

এর ধারাবাহিকতায় প্রতিষ্ঠা করেন স্ত্রীর নামে এনকেএম হাই স্কুল এন্ড হোমস এবং আব্দুল কাদির মোল্লা ইন্টারন্যাশনাল স্কুল। এই প্রতিষ্ঠান চারটি মজিদ মোল্লা ফাউন্ডেশন কর্তৃক সরাসরিভাবে পরিচালিত।

তিনি নরসিংদী জেলার প্রায় আড়াইশ’ স্কুল-কলেজে অবকাঠামো নির্মাণ করেছেন। অনেক স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসাতেও অবকাঠামো নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। শতাধিক এতিমখানা তাঁর অনুদানে পরিচালিত হয়ে আসছে।

তিন শতাধিক স্কুল-কলেজে মজিদ মোল্লা ফাউন্ডেশন এর এফডিআর রয়েছে, যা থেকে খণ্ডকালীন শিক্ষকদের বেতনসহ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে ব্যয় করা হয়।

এছাড়া তাঁর অর্থায়নে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রহল ছাড়াও মসজিদ-মাদরাসা নির্মাণ করা হয়েছে এবং হচ্ছে। তাঁর অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত নরসিংদীর জেলার বেলাব বাজার জামে মসজিদে ১২ হাজার মানুষ একসাথে নামাজ পড়তে পারেন।

আব্দুল কাদির মোল্লা কাজে বিশ্বাসী। ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৮ ঘন্টাই কাজ করেন তিনি। প্রতি সপ্তাহে শনিবার দিন তিনি চিকিৎসা সেবা, কন্যাদায়গ্রস্ত পিতা-মাতাকে সহায়তা, বেকার যুবকদের অল্প পুঁজি দিয়ে ব্যবসায় সহায়তা, রিকশা-ভ্যান দিয়ে সহায়তা, বিধবা নারীদের সেলাই মেশিন, আবাসন ব্যবস্থা, টিউবওয়েল ইত্যাদি দিয়ে সহায়তা করে থাকেন।

কর্মবীর আব্দুল কাদির মোল্লা দেশসেরা করদাতা নির্বাচিত হওয়ায় তাঁকে কর বাহাদুর উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর