কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বায়তুল মুকাররমের ঈদ জামাতে কিশোরগঞ্জের দুই ইমাম


 যুবায়ের আহমাদ | ৩১ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৮:৫১ | ইসলাম 


করোনাভাইরাসের কারণে জাতীয় ঈদগাহে এবার ঈদের জামাত হচ্ছে না। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমেই হবে দেশের প্রধান ঈদ জামাত। প্রধান জামাতসহ বায়তুল মুকাররমে অনুষ্ঠিত হবে মোট ৬টি ঈদ জামাত। ৬ জামাতের ২টিতেই ইমামতি করবেন কিশোরগঞ্জের দুই কৃতী সন্তান।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের প্রধান ঈদ জামাত বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে সকাল ৭টায় অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এতে ইমামতি করবেন কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান কাসেমী।

এছাড়া পঞ্চম জামাতে ইমামতি করবেন কিশোরগঞ্জের আরেক কৃতী সন্তাম হাফেজ মাওলানা মুফতি অলিউর রহমান খান।

দুজনই কিশোরগঞ্জের জামিয়া ইমদাদিয়ার প্রাক্তন ছাত্র। বায়তুল মুকাররমের প্রথম ও দেশের প্রধান জামাতের ইমাম হাফেজ মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমানের গ্রামের বাড়ি জেলার করিমগঞ্জের নিয়ামতপুরে।

তিনি ১৯৭৭ সালে করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর মরহুম পিতা মাওলানা সৈয়দ মোহাম্মাদ তোহা ছিলেন তাড়াইলের কাজলা আলিম মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ।

তার বেড়ে ওঠা কিশোরগঞ্জের আল জামিয়াতুল ইমদাদিয়াকেন্দ্রিক। নিজ গ্রামের ধলিয়ারকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে তার পিতা তাকে ভর্তি করিয়ে দেন জামিয়া ইমদাদিয়ায়।

আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহ’র (রহ.) ও মাওলানা আতাউর রহমান খানের (রহ.) খুব আদরের ছাত্র ছিলেন তিনি। জামিয়া ইমদাদিয়ায় হিফজ থেকে শুরু করে কৃতিত্বের সঙ্গে কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিস পাস করেন।

মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান কাসেমী উচ্চশিক্ষার জন্য গমন করেন ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দে। দেওবন্দ ফেরত মাওলানা মিজান দেশের কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক ও প্রিন্সিপাল হিসেবে কাজ করে ২০০৬ সালে সরকারি প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা শাহী মসজিদের ইমাম হিসেবে নিয়োগ পান।

৬ মাস আন্দরকিল্লা শাহী মসজিদে দায়িত্ব পালন করার পর তাকে জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়। বর্তমানে তিনি সিনিয়র পেশ ইমাম হিসেবে কর্মরত আছেন।

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি, ফিতরা নির্ধারণ কমিটিসহ বিভিন্ন ধর্মীয় ও রাষ্ট্রীয় কাজে মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান কাসেমী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছেন।

জাতীয় মসজিদে এবারের পঞ্চম ঈদ জামাতের ইমাম কিশোরগঞ্জের আরেক কৃতী সন্তান হাফেজ মাওলানা মুফতী ওয়ালীউর রহমান খান।

মুফতি ওয়ালীউর রহমান খান কিশোরগঞ্জের ধর্মীয় ঐতিহ্যবাহী এক পরিবারে ২ মে, ১৯৬৯ জন্ম গ্রহণ করেন। বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের সাবেক মহাসচিব ও আজীবন সহসভাপতি, শাইখুল হাদিস, জামিয়া ইমদাদিয়ার সাবেক উপাধ্যক্ষ, সাবেক এমপি মাওলানা আতাউর রহমান খান তাঁর পিতা।

জামিয়া ইমদাদিয়ার প্রতিষ্ঠাকাল থেকে আজীবন প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্বপালনকারী পীরে কামেল মাওলানা আহমাদ আলী খান (রহ.) তার দাদা। মাওলানা ওয়ালীউর রহমান খানও বড় হন জামিয়া ইমদাদিয়াকেন্দ্রিক। পবিত্র হিফজুল কোরআন থেকে কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিস সম্পন্ন করেন জামিয়া ইমদাদিয়াতেই।

ঢাকা নেসারিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে কামিল পাস করেন। একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর (এমএ) ডিগ্রি নেন। দেশের অন্যতম শীর্ষ কওমি মাদ্রাসা রাজধানী ঢাকার জামিয়া হুসাইনিয়অ আরজাবাদ মাদ্রাসা থেকে ইফতা (মুফতি) সনদ লাভ করেন।

মুফতি ওয়ালীউর রহমান খান শিক্ষাজীবন শেষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ –এর মুহাদ্দিস (প্রথম শ্রেণি) পদে যোগ দেন ২০০৫ সালে। তাছাড়া বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে বিকল্প ইমাম হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

পাশাপাশি বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের ঈদ জামাতে ২০০৬ সাল থেকে প্রতি বছরই তিনি ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মুহাদ্দিসের গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি, ফিতরা নির্ধারণ কমিটিসহ ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয়ের রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হয় তাকে। দেশের বিভিন্ন টিভি চ্যানেল টকশোতে নিয়মিত আলোচনা করেন তিনি।

ধর্মীয় ও রাষ্ট্রীয় গুরুদায়িত্ব পালনের পরও থেমে থাকেনি তার অধ্যয়ন ও গবেষণা। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়া থেকে এমফিল ডিগ্রি অর্জন করে পিএইচডি (ডক্টরেট) ডিগ্রি সম্পন্ন হওয়ার পথে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর