কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ৪৫ নমুনায় ২১ জনের পজেটিভ, একজনের মৃত্যু, সুস্থ ১৪


 স্টাফ রিপোর্টার | ৩ আগস্ট ২০২০, সোমবার, ১:১৩ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ এর নতুন সংক্রমণ থেমে নেই। সর্বশেষ রোববার (২ আগস্ট) দিবাগত রাতে মোট ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত এই ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে জেলায় নতুন করে মোট ২১ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে।

অন্যদিকে ২৩ জনের নেগেটিভ এসেছে। পুরাতন পজেটিভ একজনের আবারও পজেটিভ এসেছে। নতুন করে ১৪ জন সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া করোনার ছোবলে ঝরে গেছে আরেকটি মূল্যবাণ প্রাণ। এ নিয়ে জেলায় মোট ৩৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন।

নতুন ২১ জনের করোনা পজেটিভ আসায় জেলার ১৩টি উপজেলায় মোট ২০৪৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৭৮১ জন সুস্থ হয়েছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩০ জন।

নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া ২১ জনের মধ্যে ১৯ জনই কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায়। এছাড়া বাকি ২ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় ১ জন এবং নিকলী উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

নতুন সুস্থ হওয়া ১৪ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সর্বোচ্চ ১০ জন রয়েছেন। এছাড়া বাকি ৪ জনের মধ্যে তাড়াইল উপজেলার একজন ও ভৈরব উপজেলার ৩ জন রয়েছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২৩০ জনের মধ্যে ২৫ জন হাসপাতালে এবং বাকি ২০৫ জন নিজ নিজ বাড়িতে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

হাসপাতালে থাকা ২৫ জনের মধ্যে তিনজন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন।

এছাড়া অন্য জেলায় শনাক্তকৃত ১ জন করোনা পজেটিভ এবং ৭ জন সাসপেক্টটেড/নেগেটিভ বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রি-আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ শুক্রবার (৩১ জুলাই) ও রোববার (২ আগস্ট) সংগৃহীত ৪৫ জনের নমুনা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়।

ল্যাবটিতে এই ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে ২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

শুক্রবার (৩১ জুলাই) পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ২০২৮ জন। শনিবার (১ আগস্ট) ঈদের দিন নমুনা পরীক্ষার কোন রিপোর্ট দেয়া হয়নি। রোববার (২ আগস্ট) নতুন করে আরো ২১ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০৪৯ জনে।

এদিকে জেলায় করোনাভাইরাস থেকে নতুন করে ১৪ জন সুস্থ হয়েছেন। এর আগে জেলায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ছিল ১৭৬৭ জন। ফলে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭৮১ জন।

রোববার (২ আগস্ট) দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান কিশোরগঞ্জ নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান কিশোরগঞ্জ নিউজকে জানান, প্রকাশিত ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে নতুন করে ২১ জনের পজেটিভ ও ২৩ জনের নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া পুরাতন পজেটিভ একজনের আবারও পজেটিভ এসেছে।

ফলে রোববার (২ আগস্ট) পর্যন্ত পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ২০৪৯ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৬০৪ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৫০ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১২১ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৮৬ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১০৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১১৮ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১০৮ জন, ভৈরব উপজেলায় ৫৬৪ জন, নিকলী উপজেলায় ৪২ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৬৪ জন, ইটনা উপজেলায় ৩২ জন, মিঠামইন উপজেলায় ৩৮ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১৩ জন এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে ৩৮ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন। সর্বশেষ রোববার (২ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কিশোরগঞ্জ শহরের একরামপুর এলাকার বাসিন্দা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ওয়ালিউল ইসলাম বুলবুল (৬২) মারা গেছেন। রোববার (২ আগস্ট) প্রকাশিত রিপোর্টে তাঁর কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

উপজেলাওয়ারী হিসেবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৯ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ২ জন, তাড়াইল উপজেলার ১ জন, কটিয়াদী উপজেলার ১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলার ৩ জন, ভৈরব উপজেলার ১৪ জন, নিকলী উপজেলার ৩ জন, বাজিতপুর উপজেলার ২ জন, ইটনা উপজেলার ১ জন ও মিঠামইন উপজেলার ১ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩০ জন। উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১২২ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৯ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১০ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৪ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৩ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৩ জন, ভৈরব উপজেলায় ৪০ জন, নিকলী উপজেলায় ১০ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৫ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১ জন বর্তমানে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি রয়েছেন।

জেলার ১৩ টি উপজেলার মধ্যে একমাত্র মিঠামইন উপজেলায় বর্তমানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোন রোগী নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর